যশোর আজ বুধবার , ৩১ জানুয়ারি ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

ডিমের কুসুম বেশী খাওয়ার অপকারীতা

প্রতিবেদক
Jashore Post
জানুয়ারি ৩১, ২০২৪ ১২:৩৪ অপরাহ্ণ
ডিমের কুসুম বেশী খাওয়ার অপকারীতা
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

ডিমের কুসুম একটি ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ প্রাকৃতিক খাবার।ডিমের কুসুম অনেক আগে থেকেই ফ্যাটি খাবার হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ডিমের সাদা অংশের আবার কোনও স্বাদ রয়েছে নাকি! বরং ডিমের কুসুমই তো প্রধান আকর্ষণ।

এর স্বাদের যে কোনও তুলনা নেই। তাই তো আমাদের মধ্যে অনেকেই নিয়মিত একাধিক ডিমের কুসুম খেয়েই রসনাতৃপ্তি সারেন। তাঁদের কথায়, ডিমের কুসুম এমনিতে অত্যন্ত উপকারী একটি খাবার।

এতে রয়েছে ভিটামিন ও খনিজের ভাণ্ডার। তবে এহেন উপকারী খাবারও বেশি সংখ্যায় খেলে একাধিক জটিল রোগের ফাঁদে পড়ার আশঙ্কা বাড়ে।

অধিক ডিমের কুসুম খাওয়ার একাধিক ঝক্কির কথা জেনে নিন-

কোলেস্টেরলের ভাণ্ডার​

একটি ডিমের কুসুমে রয়েছে প্রায় ১৯০ মিলিগ্রাম কোলেস্টেরল। তাই নিয়মিত ডিমের কুসুম খেলে যে অচিরেই রক্তে লিপিডের মাত্রা ঊর্ধ্বমুখী হবে, তা তো বলাই বাহুল্য! আর এই কারণে হার্ট অ্যাটাক থেকে শুরু করে পেরিফেরাল আর্টারি ডিজিজ সহ একাধিক জটিল অসুখের ফাঁদে পড়ার আশঙ্কা বাড়বে বৈকি। তাই আজ থেকেই একাধিক ডিমের কুসুম খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।

বাড়বে ওজন​

ওজন বেশি থাকাটা কোনও কাজের কথা নয়। বরং এই কারণে ডায়াবিটিস, কোলেস্টেরল, হাই প্রেশার থেকে শুরু করে একাধিক জটিল অসুখের ফাঁদে পড়ার আশঙ্কা বাড়ে। তাই সুস্থ-সবল জীবন কাটাতে চাইলে আপনাকে ওজন কমাতেই হবে। একাধিক কুসুম খেলে এই কাজে সাফল্য পাবেন না। কারণ ডিমের কুসুমে রয়েছে ফ্যাটের ভাণ্ডার। আর এই উপাদান ওজন বাড়ানোর কাজে সিদ্ধহস্ত। তাই ওজনকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে চাইলে ডিমের কুসুম এড়িয়ে চলাটাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।

​ডায়াবিটিসের ফাঁদ​

গবেষণায় দেখা গিয়েছে, টপাটপ কুসুম খেলে টাইপ ২ ডায়াবিটিস বা বড় বয়সের ডায়াবিটিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে। তাই এই জটিল অসুখের ফাঁদ এড়িয়ে চলতে চাইলে আপনাকে আজ থেকেই ডিমের কুসুম খাওয়ার লোভ সামলে চলতে হবে।

ঠিক একইভাবে ডায়াবিটিস রোগীদেরও যতটা সম্ভব ডিমের কুসুম এড়িয়ে চলা উচিত। নইলে তরতরিয়ে বাড়বে সুগার। এমনকী অন্যান্য অসুখের ফাঁদে পড়ার আশঙ্কাও বাড়বে।

অ্যালার্জি​র ভয়

অনেকে আবার ডিমের কুসুম খেয়ে ব়্যাশ, চুলকানির ফাঁদে পড়ে বেজায় কষ্ট পান। তাই ডিমের কুসুম খাওয়ার পর এমন কোনও সমস্যা দেখা দিলে এই খাবার না খাওয়াটাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। নইলে বড়সড় বিপদের ফাঁদে পড়ার আশঙ্কা বাড়ে বৈকি!

তবে অ্যালার্জির সমস্যা না থাকলে সকলেই চিকিৎসকের পরামর্শ মতো ডিমের কুসুম খেতে পারেন। তাতে উপকারই পাবেন।

ডায়াবিটিস,কোলেস্টেরল,হাই প্রেশার না থাকলে প্রতিদিন একটা গোটা ডিম খাওয়া যায়। তবে এইসব ক্রনিক রোগ থাকলে সপ্তাহে ১ থেকে ২টার বেশি ডিমের কুসুম বা গোটা ডিম খাবেন না।ডিমে কিন্তু কোনও মতেই কাঁচা নুন ছড়িয়ে খাওয়া যাবে না। এই ভুলটা করলে ব্লাড প্রেশার হবে ঊর্ধ্বমুখী।

 

 

সর্বশেষ - সারাদেশ