যশোর আজ শুক্রবার , ৭ জানুয়ারি ২০২২ ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

টাইব্রেকারে সাইফকে হারিয়ে আবাহনী ফাইনালে

প্রতিবেদক
Jashore Post
জানুয়ারি ৭, ২০২২ ৬:১৭ অপরাহ্ণ
টাইব্রেকারে সাইফকে হারিয়ে আবাহনী ফাইনালে
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

রোমাঞ্চকর উপভোগ্য ম্যাচ উপহার দিয়ে টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলে সাইফকে হারিয়ে জয়ী আকাশি-নীল জার্সিধারীরা। ২০১৮ সালের পর আবারও ফেডারেশন কাপের ট্রফি ছোঁয়া মঞ্চে পৌঁছে গেলো মারিও লেমসের শিষ্যরা। টাইব্রেকারে সাইফকে হারিয়ে আবাহনী ফাইনালে।

দেশের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী ক্লাব আবাহনী লিমিটেড গোল করে এগিয়ে যাচ্ছে তো সাইফ স্পোর্টিং অল্প সময়ের মধ্যে শোধ দিচ্ছে। তিনটি পেনাল্টির পর অতিরিক্ত সময়ে ম্যাচ গড়ালো। সেখানেও ম্যাচের ভাগ্য নিষ্পত্তি হলো না। ৩-৩ গোলে সমতার পর শেষ পর্যন্ত টাইব্রেকারে পাওয়া গেলো জয়-পরাজয়।

ঢাকার কমলাপুরে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার ( ৬ জানুয়ারি ) রাতে আবাহনীর জয়ের নায়ক গোলকিপার শহিদুল আলম সোহেল। তিনি বাঁ-দিকে ঝঁপিয়ে পড়ে নাইজেরিয়ার এমফন সানডে উদোহ ও অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়ার শট প্রতিহত করেন। তবে সাইফ স্পোর্টিংয়ের হয়ে সাজ্জাদ হোসেন, ফয়সাল আহমেদ ফাহিম ও রুয়ান্ডার ডিফেন্ডার এমেরি বেইসেঙ্গে লক্ষ্যভেদ করতে পেরেছেন।

বিপরীতে আবাহনী চারটি শট নিয়ে সবক’টিতেই সফল। তাদের পক্ষে জাল কাঁপিয়েছেন মিলাদ শেখ সোলায়মানি, রেজাউল করিম, মেহেদি হাসান ও নুরুল নাইম ফয়সাল।

টাইব্রেকারে যাওয়ার আগে অতিরিক্ত সময়ে কম উত্তেজনা হয়নি। সাইফের ফরোয়ার্ড রাকিব হোসেন গোল করে স্কোরলাইন ৩-২ করেন। ৯৪ মিনিটে কলিনদ্রেসের ছোট পাস ধরে জুয়েল আড়াআড়ি ক্রস বাড়ান।তখন গোলমুখে তালগোল পাকিয়ে মেহেদি হাসান রয়েল শট নিতে ব্যর্থ হওয়ার পর পাশে থাকা রাকিব লক্ষ্যভেদ করেন। বল জালে জড়িয়েই জার্সি খুলে উল্লাস করেছেন তিনি। যদিও এজন্য হলুদ কার্ড হজম করতে হয়েছে তাকে।

শেষের বাঁশি বাজার আগমুহূর্তে এমফন সানডে উদোহার নিচু ক্রসে বদলি খেলোয়াড় সাজ্জাদ হোসেন প্লেসিং করে গোল পেয়ে ম্যাচ টাইব্রেকারে নিয়ে যান।দ্বিতীয়ার্ধে নিয়মিত রেফারি সাইমন সানি শেষ পর্যন্ত ম্যাচ চালাতে পারেননি। তার বদলি হিসেবে নামেন মাহমুদ জামাল নাহিদ।

নির্ধারিত সময়ের প্রথমার্ধে বড় অংশ জুড়ে আবাহনীর আধিপত্য ছিল। রাফায়েল অগাস্তো-দানিয়েল কলিনদ্রেস-নাবীব নেওয়াজ জীবন প্রতিপক্ষের আক্রমণভাগে ভীতি ছড়িয়েছেন। তবে এক গোলের বেশি আসেনি। বিশেষ করে ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার দোরিয়েন্তনের অভাব বেশ অনুভূত হয়েছে। চোটের কারণে ৩১ বছর বয়সী স্ট্রাইকার ছিলেন বাইরে।

বরং ম্যাচের শুরুতে সাইফ স্পোর্টিং এগিয়ে যেতে পারতো। ৪ মিনিটে মাঝ মাঠের একটু ওপর থেকে সাদ্দাম হোসেনের লং পাস ধরে বাঁ-দিক দিয়ে কিছুটা এগিয়ে বক্সে ঢুকে এমফন সানডে উদোহের কোনাকুনি শট ক্রসবার কাঁপিয়ে ফিরে আসে।

যদিও আবাহনী ৮ মিনিটে প্রথম লক্ষ্যভেদ করে সমর্থকদের মুখে হাসি ফোটায়। রাকিব হোসেনকে বক্সে সাইফের ডিফেন্ডার মঞ্জুরুর রহমান মানিক ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজিয়েছিলেন রেফারি। ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার রাফায়েল অগাস্তো স্পট কিক থেকে গোলকিপার পাপ্পু হোসেনের বিপরীত দিক দিয়ে জাল কাঁপান।

আবাহনীর পায়ে গোল ব্যবধান বাড়িয়ে নেওয়ার সুযোগ কম আসেনি। ১১ মিনিটে কলিনদ্রেসের আড়াআড়ি ক্রসে রাকিবের ভলি গোললাইন থেকে ফিরিয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ হতে দেননি এমেরি বেইসেঙ্গে। এর ছয় মিনিট পর আরেকটি দারুণ সুযোগ নষ্ট হয় আবাহনীর।রাফায়েলের নিখুঁত থ্রু অফসাইডের ফাঁদ ভেঙে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বক্সে ঢুকে পড়েন রাকিব। কিন্তু গোলকিপারের পাশ দিয়ে লক্ষ্যভেদের চেষ্টা সফল হয়নি। সেটি ঝাঁপিয়ে পড়ে আটকে দেন পাপ্পু।

ফাঁকে ফাঁকে আক্রমণে ওঠার চেষ্টা করেছে সাইফ। ২০ মিনিটে সমতায় ফেরে গত প্রতিযোগিতার রানার্সআপরা। ডান দিকের বাইলাইনের একটু ওপর থেকে নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড এমেকা ওগবাগের কাট ব্যাকে উজবেকিস্তানের মিডফিল্ডার আসরোর গফুরভের শট শহীদুল ইসলাম সোহেল ফিস্ট করে ফেরানোর পর উদোহের ফিরতি শট জাল খুঁজে নেয়।

২৭ মিনিটে পাপ্পুর দৃঢ়তায় আবাহনী ব্যবধান বাড়াতে পারেনি। ফ্লিকে কলিনদ্রেসকে বল দিয়ে বক্সের দিকে এগিয়ে যান জীবন। ফিরতি পাস পেয়ে আগুয়ান গোলকিপারের মাথার ওপর দিয়ে চিপে লক্ষ্যভেদের চেষ্টা করেছিলেন তিনি। কিন্তু পাপ্পু অনেকটা লাফিয়ে দলকে বিপদমুক্ত করেন। একটু পর বক্সের ডান দিকে বল পেয়ে দুর্বল শটে গোলকিপারের হাতে বল তুলে দিয়ে সমর্থকদের হতাশ করেন রাকিব।

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে গোলকিপার শহিদুলের উদ্দেশে টুটুল হোসেন বাদশার ব্যাক পাস ছুটে গিয়ে নিয়ন্ত্রণে নেন উদোহ। কিন্তু গোলকিপারের গায়ে মেরে তিনি নষ্ট করেন দারুণ সুযোগ।

বিরতির পর খেলা আরও জমে ওঠে। আক্রমণ-প্রতি আক্রমণ নির্ভর খেলা হয়েছে।দুটি পেনাল্টির সঙ্গে গোলও দেখেছে দর্শকরা। ৫১ মিনিটে রাকিবের ক্রসে জীবন কিংবা ইমন কেউই বলে পা ছোঁয়াতে পারেননি। ৭২ মিনিটে আবাহনীর জন্য দুর্ভাগ্য। মনির আলম বাধা দেন সাদ্দাম হোসেনকে। পেনাল্টির বাঁশি বেজে ওঠে। এমেকা ওগভাগ গোলকিপারকে বিপরীত দিক দিয়ে ছিটকে দিয়ে জাল কাঁপান।

তবে দুর্ভাগ্য পিছু ছাড়েনি আবাহনীর। ৭৮ মিনিটে কৌশলী মিডফিল্ডার রাফায়েল অগাস্তো চোট পেয়ে মাঠের বাইরে চলে যান। জুয়েল রানা মাঠে নামেন। এর চার মিনিট পর আবারও আবাহনীর বিপক্ষে পেনাল্টির বাঁশি বেজে ওঠে। কারণ এমফন উদোহকে ফেলে দেন জুয়েল রানা। স্পট কিক মারতে এসে এমেরি বেইসেঙ্গের প্রথম শট নেওয়ার আগেই খেলোয়াড়রা বক্সে ঢুকে পড়লে আবারও শট নিতে হয়।

তবে এই দফায় বলের কাছাকাছি এসে গোলকিপারকে ডজ দেওয়ার চেষ্টা করেন বেইসেঙ্গে। তাতেই রেফারি পেনাল্টি বাতিল করে দিয়ে আবাহনীর অনুকূলে ইনডিরেক্ট ফ্রি-কিক দেন।

আবাহনী তখনও হতোদ্যম হয়নি। শেষ দিকে নুরুল নাইম ফয়সালের শট গোলকিপার পাপ্পু ফিরিয়ে দিয়ে দলকে ম্যাচে রাখেন।তবে যোগ করা সময়ে জুয়েল রানার পাসে কলিনদ্রেস জোরালো শটে ২-২ করে ম্যাচ নিয়ে যান অতিরিক্ত সময়ে। টাইব্রেকারের রোমাঞ্চ শেষে জয় হয়েছে আবাহনীরই।

সর্বশেষ - সারাদেশ