যশোর আজ মঙ্গলবার , ৫ অক্টোবর ২০২১ ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

কেশবপুড় জুড়ে অবৈধ্য বালু উত্তোলনের হিড়িক পড়েছে!

প্রতিবেদক
Jashore Post
অক্টোবর ৫, ২০২১ ১২:৫০ অপরাহ্ণ
কেশবপুড় জুড়ে অবৈধ্য বালু উত্তোলনের হিড়িক পড়েছে!
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

যশোর প্রতিনিধি :: যশোরের কেশবপুর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামাঞ্চলে কৃষি জমি,নদী, খাল, জলাশয়ের ভূ-গর্ভস্থ তলদেশে পাইপ বসিয়ে শ্যালো ইঞ্জিন দিয়ে বালু উত্তোলনের হিড়িকে এলাকার জন দূর্ভোগ বৃদ্ধি সহ ভূমিধসের আশঙ্কা সৃষ্টি হচ্ছে।

ভূ-গর্ভ থেকে বালু উত্তোলন করায় কৃষি জমির পানির অভাব পড়ছে। তাছাড়া জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কের ওপর দিয়ে কয়েক কিলোমিটার পাইপ টেনে বালু নিয়ে যাওয়ায় যানবাহন চলাচলও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। উপজেলা গৌরিঘোনা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় এ চিত্র বেশি দেখা যায়।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নির্দেশনায় সরকার স্বীকৃত বালুমহাল ছাড়া অন্য যে কোনো স্থান থেকে বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার কথা থাকলেও কেশবপুরে এ বিষয়ে নেই তেমন কর্তৃপক্ষের তদারকি।

জনদূর্ভোগের স্বীকার এলাকাবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিনে গেলে অবৈধ্য পক্রিয়ায় বালু উত্তলোনের স্বচিত্র দেখা যায়। উপজেলার এমন অসংখ্য স্থান থেকে শ্যালো মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে।

উপজেলার বানিজ্যিক এলাকা চুকনগর সংলগ্ন হওয়ায় এখানে শিল্প কলকারখানা ও আবাসন এলাকা গড়ে উঠেছে, তাই নিচু জমিতে বালু ভরাট কাজে ব্যাস্ত ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান। আর এ সুযোগে কতিপয় অসাধু বালু বিক্রেতা বেআইনী ভাবে যত্রতত্র হতে গায়ের জোরে বালু তুলে ঠিকাদারদের চাহিদা পূরন করছেন।

গৌরিঘোনা ইউনিয়নের কাশিমপুর খেয়াঘাট হইতে গৌরিঘোনা ইদগাহ পর্যন্ত ২ কোটি ১ লাখ ৬ হাজার ৯০৫ টাকা ব্যায়ে ২৪৫০ মিটার কার্পেটিং রোড নির্মান কাজ চলমান রয়েছে। ওই রাস্তা নির্মাণে কাশিমপুর এলাকার বিভিন্ন পুকুরের ভূ-গর্ভস্থ থেকে বালি উত্তোলন করায় সেখানে ভূমিধসের সম্ভাবনা দেখা দিচ্ছে।

কাশিমপুর মাঝেরপাড়া গ্রামের বাসিন্দা আলমগীর হোসেন ও আয়শা বেগম বলেন, ‘আমাদের এলাকাসহ আশপাশের অনেক এলাকায় বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। ফলে প্রাায়ই ভূমিধসে আশপাশের অনেক জমি ভেঙে পড়ছে।

এ বিবিষয়ে গৌরিঘোনা ইউপি চেয়ারম্যান এস এম হাবিবুর রহমান হাবিব সাংবাদিকদের জানান,সরকারী নির্দেশনা উপেক্ষা করে নদী, খাল থেকে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে।বিষয়টি উপজেলাপ্রশাসনকে অবহিত করা হবে।

কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম এম আরাফাত হোসেন বলেন, কেশবপুরে সরকার স্বীকৃত কোনো বালুমহাল নেই। স্বীকৃত বালুমহাল ছাড়া অন্য যে কোনো স্থান থেকে বালু উত্তোলন বেআইনি।

বেআইনিভাবে বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। কশিমপুর এলাকায় বালি উত্তোলনের খবর পেয়েই সেটি বন্ধ করা হয়েছে বলে তিনি আরো জানান।

সর্বশেষ - সারাদেশ