যশোর আজ রবিবার , ৩০ জানুয়ারি ২০২২ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

হেলপার সেজে হত্যা মামলার আসামী গ্রেফতার করলো পুলিশ

প্রতিবেদক
Jashore Post
জানুয়ারি ৩০, ২০২২ ৪:২০ অপরাহ্ণ
হেলপার সেজে হত্যা মামলার আসামী গ্রেফতার করলো পুলিশ
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

সিনিয়র রিপোর্টার:: মাছ ব্যবসায়ী মহির হত্যাকান্ডে জড়িতদের গ্রেফতার করতে লেগুনার হেলপার সেজে খুনীদের গ্রেফতার করলো এস আই আল আজাদ।লেগুনার খোঁজ করতে শেষপর্যন্ত হেলপারের ( চালকের সহকারী ) কাজ নেন যাত্রাবাড়ী থানার উপ-পরিদর্শক বিলাল আল আজাদ।

রাজধানীর মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারে গত ২২ জানুয়ারি অজ্ঞাত নাম-পরিচয়ের এক ব্যক্তির লাশ পড়ে ছিল। পরে জানা যায়, তার নাম মহির উদ্দিন। তিনি পেশায় মাছ ব্যবসায়ী ছিলেন। ওই ঘটনায় পাওয়া সিসি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায়, চলন্ত লেগুনা থেকে কেউ তাকে ফেলে দিয়েছেন। কিন্তু ফুটেজে সেই লেগুনার রেজিস্ট্রেশন নম্বর প্লেট দেখা যাচ্ছিল না।

রোববার ( ৩০ জানুয়ারি ) বিলাল আল আজাদ বলেন, টানা চার দিন যাত্রাবাড়ী ও এর আশপাশের এলাকার প্রায় ৩০০টি লেগুনার মধ্য থেকে সেই লাল পাদানিওয়ালা লেগুনার সন্ধান পাই। সেই সূত্র ধরে মহির উদ্দিনের হত্যাকাণ্ডে জড়িত চারজনকে গ্রেফতার করা হয়। তারা হলেন- মঞ্জুর, আবদুর রহমান, রিপন ও রুবেল।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় আমাদের কাছে মাত্র একটি ক্লু ছিল, তা হলো লাল পাদানিওয়ালা লেগুনা। সেই ক্লু ধরে তদন্ত নামি। তদন্তের স্বার্থে পূর্ব পরিচিত লেগুনাস্ট্যান্ডের এক লাইনম্যানের মাধ্যমে সাইনবোর্ডে গিয়ে নিজের পরিচয় গোপন করে লেগুনার হেলপারের চাকরি নিই।

গত ২৩ থেকে ২৮ জানুয়ারি পর্যন্ত হেলপারের চাকরি করি। দৈনিক ৩০০ টাকা মজুরিতে হেলপারের চাকরি করতাম। এভাবে প্রায় ৩০০ লেগুনা চেক করি। অনেক খোঁজাখুঁজির পর কদমতলীর একটি গ্যারেজে নষ্ট অবস্থায় সেই লাল পাদানিওয়ালা লেগুনার সন্ধান পাই। তবে সেখানেও ঘটে আরেক বিপত্তি। লেগুনার চালক অসুস্থতার কারণে গত ২১ জানুয়ারি মালিকের কাছে জমা দিয়ে নিজের গ্রামের বাড়ি মাদারীপুর চলে যান।

বিলাল আল আজাদ বলেন, পরে কদমতলীর সেই গ্যারেজের সূত্রে জানতে পারি, ২২ জানুয়ারি রাতে ওই লেগুনার চালক ছিলেন মঞ্জুর নামে একজন ও তার হেলপার ছিলেন আবদুর রহমান। দুজনের নাম-পরিচয় জানা গেলেও তাদের ঠিকানা ও মোবাইল নম্বর পাওয়া যাচ্ছিল না। অনেক খোঁজাখুঁজির পর জানা গেল, আবদুর রহমান বাসের হেলপারি করছেন। পরে আবদুর রহমানকে যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

আবদুর রহমানের দেওয়া তথ্যে বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সাইনবোর্ড থেকে মঞ্জুরকে গ্রেফতার করা হয়। পরে রুবেল ও রিপনকে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা আমাদের কাছে মহিরকে চলন্ত লেগুনা থেকে ফেলে দেওয়ার কথা স্বীকার করেন।

এ বিষয়ে যাত্রাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ( ওসি ) মাজহারুল ইসলাম বলেন, গ্রেফতার ব্যক্তিরা মূলত সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারী চক্রের সদস্য। ঘটনার দিন রাতে তারা লেগুনা নিয়ে ছিনতাই করতে বের হয়েছিল। ওইদিন যাত্রাবাড়ীর সাদ্দাম মার্কেট এলাকা থেকে লেগুনায় উঠেছিলেন মহির উদ্দিন। তার কাছ থেকে ৫ হাজার ৯০০ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে তাকে ফ্লাইওভারের ওপর থেকে ফেলে দেয় আসামিরা। এতে ঘটনাস্থলেই মহিরের মৃত্যু হয়।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল