যশোর আজ বৃহস্পতিবার , ২৭ জানুয়ারি ২০২২ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

শার্শার এতিমখানা,কওমী মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা এখনো পাইনি করোনা টিকা

প্রতিবেদক
Jashore Post
জানুয়ারি ২৭, ২০২২ ৫:৩৯ অপরাহ্ণ
শার্শার এতিমখানা,কওমী মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা এখনো পাইনি করোনা টিকা
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

স্টাফ রিপোর্টার :: যশোরের শার্শা উপজেলার সকল সরকারী-বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা টিকা করনের আওতায় এলেও উপজেলাটির এতিমখানা ও কওমী মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা পাইনি টিকা।

ইতিমধ্যেই সকল শিক্ষা প্রতিষ্টানের প্রায় ২৬ হাজার শিক্ষার্থী করোনা ভ্যাকসিন ( ফাইজারের টিকা ) গ্রহণ করলেও উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অবস্থিত আনুমানিক ৩৫০টির বেশী ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ১৫ হাজারের উর্দ্ধে শিক্ষার্থীরা এখনো পাইনী করোনা টিকা।

শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদানের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান,শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ ইউসুফ আলী জানান,উপজেলার সকল প্রতিষ্ঠানের প্রায় ২৬ হাজারের অধিক শিক্ষার্থীকে করোনার ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে।কোন শিক্ষার্থী বাদ পড়ে থাকলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগাযোগ করলে অগ্রাধীকার ভিত্তিতে টিকা দেওয়া হবে।

বৃহষ্পতিবার ( ২৭ জানুয়ারী ) উপজেলাটির বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়,অব্যাবস্থপনা এবং গাফিলতিই করোনা ভ্যাকসিন অপ্রাপ্তির মূল কারন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেনাপোলের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এক পরিচালক জানান,মাদ্রাসা ও এতিমখানার ছাত্ররা বরাবরই অবহেলিত থাকে। কাওমী বোর্ডের নিদের্শনা মোতাবেক আওতাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোর টিকা গ্রহনের ক্ষেত্রে যশোর সদরে যোগাযোগের কথা জানালেও সময় ক্ষেপন ও পরিবহন ব্যায় বিবেচণায় অনেক প্রতিষ্টান অনীহা প্রকাশ করছে।

এমনকি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতেও এমন ধরনের কোন উদ্দ্যেগ গ্রহন না করায় টিকা করনে পিছিয়ে আছে ইসলামিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষার্থীরা।

ওমিক্রন সংক্রামন রোধে সরকার ঘোষিত ১৫দিনের ছুটি ঘোষনার মধ্যেও চলছে এতিম খানা,কওমী মাদ্রাসা ও বেসরকারী আবাসিক ইসলামিক স্কুল। যাদের কেহই এখনো পর্যন্ত করোনা ভ্যাকসিন পাননী। যদিও গত লকডাউনের সময় সারাদেশের ন্যায় শার্শার এতিমখানা ও হেফয বিভাগের শিক্ষার্থীদের ছুটি ঘোষণা করা হয়েছিলো।

যশোর জেলায় করোনার নতুন সনাক্তের হার ৬৬ দশমিক ২৬ শতাংশ অতিক্রম করেছে এমনকি করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে। যশোর জেলার সবকটি উপজেলা জুড়েই চলছে বিধি নিষেধ বাস্তবায়নে প্রসানিক অভিযান। মাস্ক ব্যাবহার না করায় সাধারন জনগনকে অর্থদন্ড প্রদান করা হচ্ছে। জনসচেতনতায় চলছে প্রচার-প্রচারণা। এরই মধ্যেই একটি বড় অংশ অসুরক্ষিত রয়ে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে শার্শা থানার নির্বাহী কর্মকর্তা মীর আলিফ রেজার নিকট মুঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান,চলমান বিধি নিষেধের মধ্যে সাম্প্রতি ঘোষণা অনুযায়ী ১৫ দিনের জন্য সরকারী-বেসরকারী সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। তবে এতিম খানা কওমি মাদ্রাসা এগুলোর ব্যাপারে জেলা প্রশাসনের তেমন কোন নির্দেশনা নেই বলে চলমান।

করোনার টিকা গ্রহনে এতিমখানা মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা পিছিয়ে বা টিকা করনে উপজেলা প্রশাসনের কোন উদ্দ্যেগ আছে কি প্রশ্নে তিনি আরো জানান,পরবর্তী মিটিং এ জেলা প্রশাসককে বিষয়টি অবহিত করে জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা মোতাবেক ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল