যশোর আজ রবিবার , ৩০ জানুয়ারি ২০২২ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

র‌্যাবের তৎপরতায় মস্তকহীন মরদেহের রহস্য উদঘাটন

প্রতিবেদক
Jashore Post
জানুয়ারি ৩০, ২০২২ ১২:৪০ অপরাহ্ণ
র‌্যাবের তৎপরতায় মস্তকহীন মরদেহের রহস্য উদঘাটন
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

স্টাফ রিপোর্টার :: খুলনায় মুসলিমা খাতুন ( ২০) নামে এক শ্রমিকের মস্তকহীন বিবস্ত্র মরদেহ উদ্ধারের তিন দিন পর ২ জন গ্রেপ্তার হয়েছে। তারা হলো- রিয়াজ ও সোহেল। শুক্রবার ( ২৮ জানুয়ারি ) রাতে ফরিদপুর থেকে রিয়াজকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এরপর সোহেলকে গ্রেপ্তার করা হয়। র‌্যাবের তৎপরতায় মস্তকহীন মরদেহের রহস্য উদঘাটন

শনিবার ( ২৯ জানুয়ারি ) দুপুরে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে র‌্যাব-৬ এর পরিচালক লেফট্যানেন্ট কর্নেল মোহাম্মদ মোস্তাক আহমেদ এ তথ্য জানান।

গ্রেপ্তার দুই জনের স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে লেফট্যানেন্ট কর্নেল মোস্তাক আহমেদ জানান, হত্যার তিন দিন আগে মুসলিমার সঙ্গে রিয়াজের পরিচয় হয়। এরপর বিয়ের কথা বলে ২৫ জানুয়ারি রাতে মোবাইল ফোনে মুসলিমাকে ফুলতলার উত্তরডিহি গ্রামে ডেকে আনে। এরপর যুগ্নিপাশার মুনসুরের একটি ঘরে নিয়ে এনে দুই জন মিলে ধর্ষণ করে ।গাড়িতে তোলার কথা বলে সেখান থেকে বিল এলাকায় নিয়ে যায়। সেখানে গলায় ওড়না দিয়ে পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে। এরপর মরদেহ ধান ক্ষেতে ফেলে দেয়। রিয়াজের বাড়ি থেকে বটি নিয়ে এনে মাথা বিচ্ছিন্ন করে। সেটা নির্মাণাধীন একটি ভবনের মেঝেতে পুঁতে রাখে। সেখানে মাথার সঙ্গে জামা কাপড় ও স্যান্ডেল রাখা হয়।

এর আগে বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সকালে খুলনার ফুলতলার উত্তরডিহি গ্রামের ধান ক্ষেত থেকে মুসলিমা খাতুনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তার বাড়ি দামোদর গ্রামে।তিনি আইয়ান জুট নামে একটি মিলে কাজ করতেন।

২৬ জানুয়ারি লাশ উদ্ধারের সময়ও রিয়াজ সেখানে উপস্থিত ছিল। পরে বিভিন্নভাবে তার নাম ওঠার পর পালিয়ে যায়। গোয়েন্দা নজরদারির মাধ্যমে শুক্রবার রাতে ফরিদপুর থেকে রিয়াজকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর ফুলতলা থেকে সোহেলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের পর প্রাপ্ত তথ্য অনুয়ায়ী অভিযান চালিয়ে মরদেহ উদ্ধার ও ঘটনার রহস্য উদঘাটন করা হয়।

মুসলিমার বোন আকলিমা খাতুন জানান, ২৫ জানুয়ারি রাত ৯টার দিকে মোবাইল ফোনে কল পান মুসলিমা। এরপর কাউকে কিছু না জানিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। রাতে আর ফেরেননি। পরদিন সকালে উত্তরডিহির ধান ক্ষেতে অজ্ঞাত মরদেহ উদ্ধারের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান স্বজনরা। এরপর মুসলিমাকে শনাক্ত করেন।

তিনি বলেন, দুই বছর আগে যশোরের প্রেমবাগ এলাকায় সাগর নামে একজনের সঙ্গে মুসলিমার বিয়ে হয়। পরে তাদের ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। তখন থেকে আইয়ান জুট মিলে কাজ শুরু করেন মুসলিমা।

ফুলতলা থানার অফিসার ইনচার্জ মো: ইলিয়াজ তালুদার বলেন, মুসলিমা ফুলতলা উপজেলার দামোদার গ্রামের মাহবুব মাষ্টারের বাড়ির ভাড়াটিয়া ছিলেন।পূর্বে তার একটি বিবাহ ছিল। সে সংসার চার মাসের বেশী স্থায়ী হয়নি। হত্যাকান্ডের তিনদিন আগে মোবাইল ফোনে মুসলিমার সাথে যুগ্নিপাশা উত্তরডিহির মোশারেশ খন্দাকারের ছেলে রিয়াজ খন্দকারের পরিচয় হয়। এরপর তাদের মধ্যে প্রেম নিবেদন হয়। রিয়াজও বিবাহিত তার ঘরে সন্তান আছে।

সর্বশেষ - সারাদেশ