যশোর আজ বৃহস্পতিবার , ৪ জুলাই ২০২৪ ২রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

মহালছড়ি-গুইমারা সড়ক দেবে যাওয়ায় ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ

প্রতিবেদক
Jashore Post
জুলাই ৪, ২০২৪ ১০:২৪ পূর্বাহ্ণ
মহালছড়ি-গুইমারা সড়ক দেবে যাওয়ায় ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

খোকন বিকাশ ত্রিপুরা জ্যাক ( খাগড়াছড়ি ) জেলা প্রতিনিধি :: খাগড়াছড়ির খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:টানা বর্ষনে খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলা ও জালিয়াপাড়ার আঞ্চলিক সংযোগ সড়কে কিছু অংশ ফাটল ধরে ডেবে গেছে। মোটরসাইকেল, সিএনজি ও মাহিন্দ্র যানবাহন ছাড়া ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

সড়কের কাটাটিলা নামক এলাকায় সড়কটি দেবে যায়। মূলত টানা বৃষ্টির পানিতে নিচের মাটি সরে যাওয়ায় সড়কটি ডেবে যায় বলে জানা গেছে।

এই সড়ক দিয়ে বর্তমানে  মোটরসাইকেল,সিএনজি,মাহিন্দ্র গাড়ী ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছে। তবে সীমিত সংখ্যাক পণ্যবাহী পিকআপ গাড়ী ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,মঙ্গলবার বিকেল থেকে সড়ক ও জনপথ বিভাগ সড়কটির সংস্কার কাজ শুরু করেছে। মঙ্গলবার দুপুর থেকে সড়কটিতে ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

পণ্যবাহী পিকআপ চালক মো. আল আমিন বলেন,টানা ভারী বর্ষণে মহালছড়ি-জালিয়াপড়া সড়কের বেশ কয়েকটা জায়গায় ফাটল দেখা দিয়েছে। মাটি সরে গিয়ে রাস্তা ডেবে গেছে। এই সড়কটি দ্রুত সংস্কার করলে আমাদের পণ্য পরিবহন ও যাতায়াতের জন্য সুবিধা হবে।

সিএনজি চালক রনি দাশ বলেন,আমরা মহালছড়ি-জালিয়াপাড়ার যাত্রী নিয়ে এই রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন যাত্রী সেবা দিয়ে থাকি। গতকাল( মঙ্গলবার ) দুপুরের পর থেকে এই সড়কটি ডেবে যাওয়ায় বর্তমান অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। দ্রুত সড়কটি সংস্কার করলে স্থানীয় ও পর্যটকদের জন্য সুবিধা হবে। আমরাও নিশ্চিন্তে যাত্রীসেবা দিতে পারবো।

মোটর সাইকেল চালক মোঃ আব্দুর রহিম জানান,প্রতিদিন এই সড়ক দিয়ে স্থানীয়রা চলাচল করে থাকে। বিশেষ করে মহালছড়ি-সিন্দুকছড়ি ও জালিয়া পাড়ার অধিকাংশ লোকজন এই সড়ক দিয়ে যাতায়াত করে থাকে। আমরাও মোটর সাইকেলে করে তাদের নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছে দিয়ে থাকি।

টানা বৃষ্টিতে রাস্তাটি ডেবে যাওয়ায় আমরা আতংকে থাকি। ডেবে যাওয়া এই জায়গাটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। কখন বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে, সেটা বলা যাচ্ছেনা। বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আগে সড়কটি দ্রুত সংস্কার করার জন্য সংশ্লিষ্টদের সু-দৃষ্টি কামনা করছি।

মহালছড়ির উপজেলা নির্বাহী অফিসার পারভিন খানম বলেন, প্রবল বর্ষণের কারণে মহালছড়ি-গুইমারা সড়কটি দেবে গিয়ে ফাটল ধরেছে। সড়ক ও জনপদ সড়কটি মেরামতের কাজ করছে। আশাকরি দ্রুত যান চলাচল স্বাভাবিক করা যাবে। সড়কটি মূলত মহালছড়ি উপজেলার সাথে গুইমারা উপজেলার অভ্যন্তরীন যোগাযোগে ব্যবহৃত হচ্ছে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল