যশোর আজ শনিবার , ৪ নভেম্বর ২০২৩ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

বেনাপোলে অবাধ ভারতীয় চোরাই মোবাইল ক্রয়-বিক্রয়ে ঝুঁকিতে ক্রেতা!রাজস্ব বঞ্চিত সরকার

প্রতিবেদক
Jashore Post
নভেম্বর ৪, ২০২৩ ১২:৩৬ অপরাহ্ণ
বেনাপোলে অবাধ ভারতীয় চোরাই মোবাইল ক্রয়-বিক্রয়ে ঝুঁকিতে ক্রেতা!রাজস্ব বঞ্চিত সরকার
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

স্টাফ রিপোর্টার :: যশোরের বন্দরনগরী বেনাপোলে কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ীর অবাধ ভারতীয় চোরাই মোবাইল ক্রয়-বিক্রয়ে প্রতারিত হচ্ছে ক্রেতা সাধারন!সাথে সরকার হারাচ্ছে বিপুল অঙ্কের রাজস্ব। প্রশাসনিক তৎপরতা না থাকায় অবৈধ্য ব্যবসা পরিচালনায় গড়ে তুলেছে শক্তিশালী সিন্ডিকেট। সরকার বিপুল অঙ্কের রাজস্ব হারালেও টনক নড়ছেনা সংশ্লিষ্টদের।

ভারত সীমান্তঘেষা জনপদ বেনাপোল হওয়ায় ভারতীয় চোরাই মোবাইলের বড় বড় চালান স্থল পথে অবৈধ্য পন্থায় বাংলাদেশে এনে তা দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে বাজারজাত করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন একটি চক্র। এ সমস্ত অবৈধ্য ও অনঅনুমোদিত হ্যান্ডসেট ক্রয় করে ক্রেতারা বিবিধ জটিলতায় অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হলেও ক্রয়কালীন সময়ে বৈধ্য ক্যাশ মেমো না থাকায় প্রশাসনিক সহায়তা পাচ্ছে না বলে জানা গেছে।

বেনাপোল বাজারস্থ রহমান চেম্বারের দ্বিতীয়তলা, নূর শপিং কমপ্লেক্স, হাইস্কুল মার্কেট ভবন ও স্টেশনরোড সংলগ্ন মোবাইল ফোনের দোকান গুলোতে বসছে ওয়ান প্লাস, অপপো, বিভো,স্যামসাং,অ্যাপলসহ মূল্যবান নানা ব্রান্ডের ভারতীয় চোরাই হ্যান্ডসেটের হাট বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করে। সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম,অসাধু ব্যবসায়ীদের নিজিস্ব ওয়েবসাইট বা পেজে আকর্ষনীয় মূল্য ছাড়ের মোবাইল সেটের বিজ্ঞাপন দেখে বিভিন্ন জেলা শহর হতে এসে ক্রেতারা ভিড় জমাচ্ছে বেনাপোলের চোরাই ফোন বিক্রয়ের দোকান গুলোতে।

সত্যতা যাচায়ে সরেজমিনে বেনাপোলের রহমান চেম্বারের দ্বিতীয়তলায় গিয়ে দেখা মেলে চোরাই মোবাইল হাটের।সেখানে নান্দনিক ডেকারেশনে দোকান সু-স্বজ্বিত করে মোবাইল এসোসিরিজ বিক্রয়ের নামে চালাচ্ছে অবৈধ্য ভারতীয় চোরাই মোবাইল বিক্রয়ের কর্মযজ্ঞ। গ্লাসের তাকে সারিবদ্ধ রেখেই অবাধে প্রদর্শনী করছে সেকেন্ডহ্যান্ড ভারতীয় হ্যান্ডসেট।

অনুসন্ধানী সংবাদ সংগ্রহে রহমান চেম্বারের গেজেট মেট প্রতিষ্ঠানের প্রোপাইটার সাগর এবং গেজেট ভ্যালির প্রোপাইটার টিটোর সাথে ক্রেতা সেজে কথা বললে তারা জানাই,যে কোন ব্রান্ডের দামী বা কম মূল্যের ফোন অর্ডার করলে ১ সপ্তাহের মধ্যে চাহিদা ও পরিমানমত হ্যান্ডসেট সরবারহ করা যাবে। ফোনের কোয়ালিটির উপর ভিত্তি করে সর্বনিন্ম ৭ হাজার হতে লাখ টাকার উপরে দাম নিয়ে তা ১০দিনের গ্যারান্টি দিয়ে তারা ফোন বিক্রয় করে থাকে।

বিটিআরসি ঘোষিত অবৈধ্য মোবাইল হ্যান্ডসেট শনাক্ত বা অবৈধ্যভাবে প্রবেশকরা মোবাইল পরবর্তী সময়ে বিচ্ছিন্ন করার কথা জানতে চাইলে ভারতীয় চোরাই ফোন বিক্রেতারা জানাই তাদের কাছ হতে ক্রয়কৃত ফোন কখনো বন্ধ হবেনা।এলাকাটির একাধিক সুত্র জানায়,রহমান চেম্বার ছাড়াও নিত্যহাট মনির টেলিকম,মোবাইল কর্ণারসহ একাধিক দোকানে ভারতীয় সেকেন্ড হ্যান্ড মোবাইল সেট বিক্রয় হয়।

ভোক্তা অধিকার বিষয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর,যশোর জেলার সহকারী পরিচালক সৈয়দা তামান্না তাসনীম এর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন পণ্য ক্রয়ের সময় অবশ্যই ক্রেতাকে ক্যাশ মেমো বুঝে নিতে হবে। না দিলে বুঝতে হবে পণ্যতে ত্রুটি রয়েছে,সর্বপ্রথম ক্রেতাকে সচেতন হতে হবে।অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল