যশোর আজ বুধবার , ৩ জানুয়ারি ২০২৪ ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

বাচ্চারা যে ৫ খাবারে দ্রুত বেড়ে উঠবে

প্রতিবেদক
Jashore Post
জানুয়ারি ৩, ২০২৪ ৬:৪৯ অপরাহ্ণ
বাচ্চারা যে ৫ খাবারে দ্রুত বেড়ে উঠবে
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

একটি শিশুর জন্ম হলে ওই পরিবারের সামগ্রিক জীবনধারাতেই আসে নানা অদলবদল। ধাপে ধাপে বড় হয় শিশু। শিশুর বৃদ্ধি কতটা হবে, অনেকগুলো বিষয়ের ওপর তা নির্ভর করে। আমিষ, ভিটামিন ও জিংকের মতো পুষ্টি উপাদান যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি দরকারি শরীরচর্চা।

পরিবারের অন্যদের উচ্চতা কম হলে শিশুর উচ্চতাও কম হতে পারে। হরমোনজনিত সমস্যা থাকলে বা শিশু কোনো দীর্ঘমেয়াদি রোগে ভুগলে, তার প্রভাবও উচ্চতায় পড়ে। তবে ঋতুমতী হয়ে যাওয়ার পর মেয়েদের উচ্চতা আর খুব একটা বাড়ে না। ছেলেদের উচ্চতা অবশ্য ১৮ পর্যন্ত বাড়ার সুযোগ থাকে। বৃদ্ধি ও বিকাশ নিয়ে কোনো দ্বিধা হলে শিশুবিশেষজ্ঞের পরামর্শে থাকা ভালো।

বাচ্চাদের টিফিনে জুড়ে দিন এই ৫ খাবার, তাহলেই রোগব্যাধিকে ‘ডজ’ করে দ্রুত বেড়ে উঠবে সন্তান!
দিনের একটা বড় সময় বাচ্চারা স্কুলেই কাটায়। সে থাকবে সুস্থ-সবল। এমনকী তার ব্রেনও দ্রুত কাজ করবে। এখন মনে প্রশ্ন আসছে নিশ্চয়ই, সন্তানের টিফিনে ঠিক কোন কোন খাবারগুলিকে জায়গা করে দেওয়া প্রয়োজন? আসুন জেনে নিই।

ডিম

ডিম হল মাস্ট ​একটা ডিমে রয়েছে প্রায় ৬ গ্রাম প্রোটিন। তাই নিয়মিত ডিম খাওয়ালেই বাচ্চাদের দেহে এই ম্যাক্রোনিউট্রিয়েন্টের ঘাটতি মিটিয়ে ফেলতে পারবেন। শুধু তাই নয়, এতে রয়েছে ক্যালশিয়াম, ভিটামিন ডি, জিঙ্ক, সেলেনিয়াম থেকে শুরু একাধিক জরুরি ভিটামিন ও খনিজ। তাই বাচ্চাকে জীবনের দৌড়ে এগিয়ে দিতে চাইলে রোজের ডায়েটে ডিমকে জায়গা করে দিতে ভুলবেন না যেন!

ডালিয়া বা ওটসের হাত ধরুন​

এই দুই খাবারই হল হোল গ্রেইন ফুড। তাই নিয়মিত ডালিয়া এবং ওটস খেলে যে সন্তানের দেহে ফাইবারের ঘাটতি পুষিয়ে যাবে, তা তো বলাই বাহুল্য! এমনকী এই দুই দানাশস্যের গুণে তার পেট পরিষ্কার হতেও সময় লাগবে না। তার সুস্থ থাকার পথ প্রশস্থ হবে। এমনকী তার সার্বিক বিকাশেও আর কোনও বাধা থাকবে না।

​ মাংস

বাচ্চারা মাংস খেতে খুবই পছন্দ করে। আর তাদের এই পছন্দকেই আপনাকে কাজে লাগাতে হবে। তাই এবার থেকে সুযোগ পেলেই সন্তানকে চিকেন খাওয়ান। এতেই তার শরীরে একাধিক ভিটামিন এবং খনিজের চাহিদা মিটে যাবে। এমনকী পুষিয়ে যাবে তার প্রোটিনের ঘাটতি।

ব্রকোলির জুড়ি মেলা ভার​

সারা পৃথিবীর বিশিষ্ট পুষ্টিবিজ্ঞানীরা ব্রকোলির প্রশংসায় পঞ্চমুখ। তাঁদের কথায়, ব্রকোলি হল ফাইবারের ভাণ্ডার। তাই নিয়মিত এই সবজির পদ খেলেই পেটের সমস্যা নিপাত যাবে। এমনকী ব্রকোলির গুণে ছোট্ট সোনার কোষের হাল-হকিকতও ফিরিয়ে দিতে পারবেন। তাই ছোটদের রোজের টিফিনে ব্রকোলির পদ রাখাটাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।

​ ফল খাওয়াতে ভুলবেন না​

আপেল, পেয়ারা, বেদানা, কলা সহ যে কোনও ফলেই রয়েছে পুষ্টির ভাণ্ডার। এমনকী নিয়মিত ফল খেলে বাড়ে ইমিউনিটি। এমনকী ব্রেনের কার্যকারিতা বাড়ানোর কাজেও কিছুটা হলেও সাহায্য করে পরিচিত সব ফল। তাই ছোটদের টিফিনে রোজ একটা গোটা ফল রাখুন। আর সে ফল না খেতে চাইলে তাকে ফলের রস করে খাওয়ান।

বৃদ্ধি ও বিকাশ—দুটির জন্যই পুষ্টি চাই ঠিকঠাক। বিশেষত ৩-৬ বছর বয়সী শিশুর নিজের প্রতি কেজি ওজনের জন্য দেড় গ্রাম করে আমিষ খেতেই হবে রোজ। অর্থাৎ ১৪ কেজি ওজনের এই বয়সী শিশুর চাই ২১ গ্রাম আমিষ।

সর্বশেষ - সারাদেশ

আপনার জন্য নির্বাচিত