যশোর আজ রবিবার , ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

ফাস্ট বেঞ্চের ছেলেটির মোবাইল আসক্তি

প্রতিবেদক
Jashore Post
এপ্রিল ২১, ২০২৪ ৮:৩৬ অপরাহ্ণ
ফাস্ট বেঞ্চের ছেলেটির মোবাইল আসক্তি
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

মাহমুদুল
আজ সবটাই রুপ কথার গল্প হয়ে গেছে।প্রযুক্তির সেরা উপহার অনেকের জীবনে শাপে বর হলেও শিমুলের জীবন টাকে অগোছালো করে দিয়েছে। শুরুটা কৌতুহল বসত হলেও বর্তমানে তার মোবাইল আসক্তি জীবনের গতি বদলে দিয়েছে। এক অনিশ্চিয়তার মধ্য দিয়ে কাটছে তার ভবিষ্যত স্বপ্ন।

সম্ভ্রান্ত মধ্যবিত্ত এক মুসলিম পরিবারে বাবা-মায়ের কোল আলোকিত করে ২০০৬ সালে জন্ম নিলো শিমুল। ছোট্ট শিশুটি যখন গুটি গুটি পায়ে হাটা শিখলো তখন কি কেউ জানতো লেখাপড়ার প্রতি প্রচন্ড আগ্রহ হবে শিশুটির। মা-বাবার একমাত্র সন্তানটি পরিবারের সামর্থ অনুযায়ী স্বাচ্ছন্দেই বেড়ে ওঠেছে। শিশুকালে মায়ের কোলে চেপে কিংবা কখনো হাত ধরে চলে প্রাথমিকের গন্ডি পেরিয়েছে।কোমল মন ও লাজুক স্বভাবের ছেলেটি শিশুকাল হতেই জেদী স্বভাবের থাকলেও এমনটি নই যে সে অবাধ্য। মা-বাবার কড়া শাসনের গন্ডিতেই বেড়ে ওঠেছে শিমুল।

সরকারী চাকুরির ক্ষেত্রে বাবা বাইরে থাকলেও ছোট্টবেলা থেকেই মা তার একমাত্র বন্ধু।প্রাথমিকে অধ্যায়নরত সময়ে সে ছিল প্রচন্ড মেধাবী। বন্ধুদের সাথে হৈ চৈ করে বেড়ানোর বীপরীতে পড়াশোনা ও পরিবারের গন্ডিতে সময় কাটতো তার। ক্লাসের ফাস্ট বেঞ্চে বসে টিচারের লেকচার শোনা,অন্যান্য মেধাবী মিক্ষার্থীদের সাথে পড়াশোনায় প্রতিযোগীতা করা ,পরীক্ষা শেষে ফল প্রকাশের মেধা তালিকায় ১ম বা দ্বিতীয় হওয়া তার চাই চাই। প্রাথমিকের স্কলারশিপ পাওয়া তার কাছে ছিলো অতিসামান্য বিষয়।

সময়ের ধারাবাহিকতায় প্রাথমিকের গন্ডি পেরিয়ে মাধ্যমিকে তখনো সময়টা তার নিয়ম মাফিক চলছিলো।শৈশব পেরিয়ে কেবল কৈশর জীবনে পাঁ,একটু পরিবর্তনতো স্বাভাবিক। এতটাও খারাপ সময় যাচ্ছিলোনা শিমুলের যে মাধ্যমিকের শুরুতে তার পড়ার প্রতি অনিহা বোধ জাগ্রত হবে। শিমুল আর ৫জনের থেকে একটু ভিন্ন।ছোটবেলা হতেই সে নিজিকে কোলাহল মুক্ত রাখতো। পিতা-মাতাও তাকে অগাধ বিশ্বাস করতো। ছোটবেলা থেকেই বাধ্যগত হওয়ায় আত্নীয়-স্বজনের কাছে ছিলো সুনাম।

প্রযুক্তির জয়যাত্রার উল্লেখ্যযোগ্য মাইলফলক মোবাইলের সাথে আকস্মিকই পরিচয় ঘটলো তার। সবে ৭ম শ্রেনীর ছাত্র তখনো মোবাইল তার পড়াশোনার জীবনে বিঘ্ন ঘটায়নি। মায়ের কঠিন শাসনে একটু আধটু অভিমান হওয়া শুরু হয়েছে শিমুলের। জ্ঞান-বুদ্ধি পরিপঙ্কও হলো ম্যধমিক পড়ুয়া জীবনে। মায়ের আঁচল হতে অল্প স্বল্প বের হওয়া শুরু কেননা মাধ্যমিক জীবনে তার সহপাঠীদের সংখ্যা বাড়তে লাগলো। আলাপচারিতায় সহপাঠীদের মধ্যে অনেকে ক্লোজ বন্ধু হতে লাগলো যাদের সাথে শিমুলের ভালো-খারাপ লাগার বিষয়গুলো শেয়ার করতে লাগলো।সে খাতিরে মোবাইল ফোন ব্যবহারের মাত্রা বাড়লো শিমুলের।

সকল মানুষ তো মেধাবী হয়না,ভালো-মন্দ মিলেই মানুষ। ভাগ্যপরিক্রমায় কিছু খারাপ বুদ্ধির মানুষের সজ্ঞে পরিচয় ঘটলো শিমুলের। প্রবাদ আছে গল্পের গরু গাছে ওঠে এমনি ভাবে লেখাপড়ার বাইরে অপ্রাসজ্ঞিক গল্পে মত্ত হওয়া শুরু হলো। কৈশরে মানুষের মধ্যে প্রাকৃতিক নিয়মে পরিবর্তন আসবে শিমুলও তার ব্যাতিক্রম নই। প্রচন্ড ভাবে অজানাকে জানার আগ্রহ বাড়বে,এরই ধারাবাহিকতায় শিমুলের পরিচয় ঘটলো নেটি দুনিয়ার এক ভিন্ন প্লাটফর্মে। ছেলের প্রতি মায়ের অগাধ বিশ্বাস থাকায় একটিবারের জন্যও ছেলের শয়ন কক্ষটিতে উুঁকি মারতনা।এক প্রকার মায়ের অগচরেই রাত জেগে মোবাইল চালাতো শিমুল। তখনতো তার ইচ্ছে শক্তির জোরে পড়াশোনাটাকে ধরে রেখেছিলো শিমুল।

চটপটে উদ্দীপনায় ভরা যুবক,নিজ মেধার উপর রয়েছে তার শতভাগ আস্থা তাই সহজেই ছাত্র জীবনের বৈতরনী পার করবে ভেবেছিলো শিমুল। কিন্তু এ কদিনে তার খুঁটিতে যে ঘুন ধরেছে সে দিকে খেয়াল করেনি সে। নবম শ্রেনীতে অধ্যায়নরত অবস্থায় মোবাইল ফোন ব্যবহারের মাত্রা আরো বাড়লো শিমুলের। রাত জেগে বন্ধুদের সাথে মোবাইল ফোনে গ্রুপ খুলে আড্ডা জমানো শুরু করলো।ধীরে ধীরে পড়াশোনার আগ্রহটাও কমতে শুরু করছে যে তা তখন উপলব্ধি করতে পারিনি শিমুল। কালক্রমে মাধ্যমিকের সমাপনী পরীক্ষা আসলো ও সে অংশ নিলো। ফলাফলও প্রত্যাশা অনুযায়ী পেলো। জিপিএ পেয়ে সফল ভাবে উর্ত্তীন হলো।

শিমুলের কাছে মনে হলো সে সঠিক পথে এগোচ্ছে তাই মোবাইল ফোন ব্যবহারে তার যে ক্ষতি হতে পারে তা মানতে নারাজ। সময়ের সাথে মোবাইল ব্যবহারে আসক্ততা বাড়লো শিমুলের। ঘন্টারপর ঘন্টা অনলাইনে সময় কাটাতে গিয়ে অজান্তেই নিজ মেধা শক্তি খোয়াতে বসেছে শিমুল তখনো সে বুঝে ওঠতে পারিনি সে।ফাস্ট বেঞ্চের মেধাবী ছাত্রটা যখন দেখলো উচ্চতর শিক্ষা গ্রহণ জীবনের প্রথম ধাপ উতরাতে তাকে কঠিন পরিশ্রম করতে হবে তখন অনেক দেরী হয়ে গেছে তার।

এদিকে মোবাইল ফোনের আসক্তি এত তীব্র হয়ে গেছে তার যে,কেউ নিষেধ করলেও তার প্রতি রাগান্বিত হয়ে উচ্চস্বরে কথা বলে। ঐ যে কথায় বলে আত্নবিশ্বাস  থাকা ভালো কিন্তু বেশী ক্ষতিকর।শিমুল মনে করেছিলো খরগোশ ও কচ্ছপের গল্পের মত এক লাফে বৈতরনী পার হবে।কিন্তু তা আর হলোনা সময় ও স্রোত কারো জন্য অপেক্ষা করেনা। সঠিক সময়ে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হলো ফল প্রকাশের পর দেখা গেলো ফাস্ট বেঞ্চের সেই মেধাবী ছেলেটির ফল খুবই হতাশজনক।বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পাওয়ায় কষ্টসাধ্য এমনকি দূরহ হয়ে ওঠেছে।

ভবিষ্যতে তার পড়াশোনা জীবন কেমন হবে? আদৌ সে সফলতার শিখরে পৌঁছাবে কিনা তা অজানা রইলেও মোবাইল যে তার জীবন হতে মেধাবী ও ফাস্ট বেঞ্চের ছাত্রের তকমাটা কেড়ে নিয়েছে তা এক বাক্যে বলা যায়। আজ সে পড়াশোনার প্রতি আগ্রহ হারিয়েছে। উচ্চ শিক্ষিত হয়ে পরিবারের দায়িত্ব নেওয়ার স্বপ্নটাও অধরা হয়েছে।একটি কুঁড়ি পরিপূর্ণভাবে ফোটার আগেই ঝরে গেলো মোবাইল আসক্তির কারনে। এ সমাজে এমন হাজারো শিমুল রয়েছে যাদের মূল্যবান ভবিষ্যৎ ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে প্রযুক্তির সেরা উপহার মোবাইল ফোনের অপব্যাবহারে।

বিঃদ্রঃ- লেখাটি সম্পূর্ন লেখকের নিজিস্ব চিন্তা বা মতামত। কোন প্রকার ভুলত্রুটির জন্য প্রকাশক দায়ী নহে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল