যশোর আজ বুধবার , ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

দিনাজপুরে মন্দিরের কালি মূর্তি ভাংচুরের অভিযোগ

প্রতিবেদক
Jashore Post
ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২৪ ৭:৫৪ অপরাহ্ণ
দিনাজপুরে মন্দিরের কালি মূর্তি ভাংচূড়ের অভিযোগ
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

চন্দন মিত্র,দিনাজপুর প্রতিনিধি :: দিনাজপুরে আবারও আদিপুরুষ শ্মশান মন্দিরের কালি মূর্তি ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে।এ ঘটনায় বনতারা বালুপাড়া শ্মশান ঘাটের সাধারন সম্পাদক শিব প্রসাদ বাদি হয়ে দিনাজপুর কোতোয়ালি থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

বুধবার ( ১৩ফেব্রুয়ারি )রাতে দিনাজপুর সদরের ৮নং শংকরপুর ইউনিয়নের জিরো পয়েন্ট বনতারা বালুপাড়া আদিপুরুষ শ্মশান ঘাট কালি মন্দিরে এ ঘটনাটি ঘটেছে।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন দিনাজপুর কোতোয়ালি পুলিশ ও বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ ও হিন্দু,বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক উওম কুমার রায় ও রতন সিং।

বুধবার ( ১৪ফেব্রুয়ারি ) সকালে বনতারা বালুপাড়া আদিপুরুষ শ্মশান ঘাট মন্দির প্রাঙ্গণে গেলে শ্মশানঘাট কালি মন্দিরের সেবায়েত শুপতু বর্মন বলেন সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার জন্য কতিপয় দুষ্কৃতীকারি উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে আমাদের শ্মশানঘাট কালি মন্দিরের কালি মূর্তি ভাংচুর করেছে।

বনতারা বালুপাড়া শ্মশান ঘাটের  সভাপতি উপেন্দ্র চন্দ্র বলেন,এই শ্মশানঘাট কালি মন্দিরের জায়গাটি স্থানীয় চেয়ারম্যান আতাউর রহমান সরকারি খাস জমি দখলে রেখে আবাদ করা ব্যক্তিদের কাছ থেকে মন্দির করার জন্য ১০শতক জমি নিয়ে দিয়েছে । আর সেখানেই মন্দির গড়ে কালি মূর্তি প্রতিষ্ঠা করে পুজো করে আসছিলাম। হঠাৎ গতকাল রাতে কে বা কাহারা আমাদের মন্দিরের কালি মূর্তিটি ভেঙ্গেচুরে বাইরে ফেলে রেখে দিয়েছে।

শ্মশান ঘাটের সাধারন সম্পাদক শিব প্রসাদ বলেন আমাদের যতটুকু মাটি দিয়েছে সেখানেই মন্দির করে কালি পূজা করে আসছিলাম। অথচ যারা এই মূর্তি ভেঙ্গে দিয়েছে তারা মোটেও ভাল কাজ করেনি। এই জায়গাটি আমাদের আদি পুরুষদের শ্মশানঘাট ছিলএখন এগুলো আবাদ ভুমীতে পরিণত হয়েছে ।

৮নং শংকরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘটনার প্রকৃত কারন খতিয়ে দেখছি।এই মন্দিরের জন্য জায়গাটি আমি খাস আবাদি জমির মালিকদের কাছ থেকেই নিয়ে দিয়েছিলাম।যে যার ধর্ম সে সে করবে কারো ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করা কারো উচিত নয় । তবে ঘটনাটি কে ঘটিয়েছে আর কেনই বা করেছে সেটা তিনি স্পষ্ট করে কিছুই বলতে পারেনি।

দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ফরিদ হোসেনের সাথে মুঠোফোনে কথা বললে তিনি জানান, ঘটনাটি শুনার পরপরই ঘটনাস্থলে থানা থেকে পুলিশ সদস্যদের পাঠিয়েছি। তদন্ত চলমান রয়েছে। তদন্ত শেষেই বিস্তারিত জানা যাবে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সর্বশেষ - সারাদেশ