যশোর আজ শুক্রবার , ২১ জুন ২০২৪ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

ডিমের বিকল্পে যে পাঁচ খাবারে মিলবে প্রোটিন

প্রতিবেদক
Jashore Post
জুন ২১, ২০২৪ ৮:০৪ অপরাহ্ণ
ডিমের বিকল্পে যে পাঁচ খাবারে মিলবে প্রোটিন
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

পুষ্টির ভাণ্ডার ডিম। বাচ্চার জন্য কম খরচে এমন পুষ্টিকর খাবার আর কিছু হতেই পারে না। সেজন্যই মধ্যবিত্তের সুপারফুড বলা হয়ে থাকে ডিমকে। এতে ভরে ভরে রয়েছে প্রোটিন। যা পেশি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এদিকে এতে সন্ধান মেলে ভিটামিন এ, বি১, বি৯, বি১২, ডি এবং ই-র।

এছাড়াও ডিমে রয়েছে আয়োডিন, সেলেনিয়াম ও ফসফরাসের মতো খনিজও।এসব উপাদানের গুণেই বাচ্চার স্বাস্থ্য ঠিক থাকে। তাদের মানসিক ও শারীরিক বিকাশও হয় দ্রুত গতিতে।সেক্ষেত্রে বিকল্প পথ বের করতে হবে।

তবে অনেক বাচ্চারই ডিমে অ্যালার্জি থাকে। ডিম খেলেই গায়ে চাক চাক দাগ বেরিয়ে যায়। এমনকী চুলকানিও হয় সঙ্গী। অনেকের আবার ডিম খেলেই দেখা দেয় পেটের সমস্যা।

ডিমের পরিবর্তে কোন কোন খাবার দিয়ে বাচ্চার শরীরে পুষ্টির ঘাটতি মেটানো যায়। আজ সেসব খাবারের সন্ধান মিলবে এই প্রতিবেদনে।

রান্না করা ১ কাপ কুইনোয়াতে থাকে ৮ গ্রাম প্রোটিন। যেখানে একটি ডিম থেকে মাত্র ৬ গ্রাম প্রোটিন পাওয়া যায়। অর্থাৎ একটি ডিমের তুলনায় ১ কাপ কুইনোয়াতে অনেক বেশি পরিমাণে প্রোটিন পাওয়া যাবে। তাই সন্তানের ডিমে অ্যালার্জি থাকলে কুইনোয়া দিয়েই প্রোটিনের ঘাটতি পূরণ করতে পারেন মায়েরাই। অন্যদিকে ফাইবার সমৃদ্ধ কুইনোয়া খেলে বাচ্চার কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্য়াও ঘুচবে।

আমন্ডও খাওয়াতে পারেন। সন্তানকে রোজ সকালে ৪-৫ টি খোসাসমেত ভেজানো আমন্ড খাওয়াতে পারেন নিয়মিত। এই ড্রাই ফ্রুটে প্রোটিনের পাশাপাশি ভরে ভরে হয়েছে হেলদি ফ্য়াটও। তাই সন্তানের ডায়েটে নিয়মিত আমন্ড থাকলে প্রোটিনের চাহিদা পূরণ তো হবেই। পাশাপাশি বাচ্চার মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতাও বাড়বে।

পনির খেতে হবে। ডিমে অ্যালার্জি থাকলেও বাচ্চার ল্যাকটোজ সহ্য হয় তো? তাহলে তাদের ডিমের পরিবর্তে পনির খাওয়াতে পারেন। প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন রয়েছে দুগ্ধজাত এই খাবারেও। তাই বাচ্চার শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি মেটান এই খাবার দিয়ে। তাতেই পেশির শক্তি বাড়বে। এমনকী জিঙ্ক সমৃদ্ধ এই খাবার সন্তানকে খাওয়ালে তার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়বে। ফলে ছোট বড় নানা সংক্রমণ এড়িয়ে চলতে পারবে তারা।

ডিমের বিকল্প সয়াবিন। ডিম মুখেই তুলতে পারে না সন্তান? তাহলে ডিমের বিকল্প হিসেবে সয়াবিনের তরকারিই খাওয়ান তাকে। ১০০ গ্রাম সয়াবিনে ৩৬ গ্রাম প্রোটিন থাকে। তাই ডিম সহ্য না হলেও সয়াবিন খেয়ে প্রোটিনের চাহিদা ঠিক পূরণ হবে।

এছাড়াও এই খাবারে রয়েছে ভিটামিন সি, বি৬ এবং কে। আর রয়েছে ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম এবং আয়রনের মতো খনিজও। এসব গুণেই আপনার সন্তানের হাড় হবে মজবুত এবং সামগ্রিক স্বাস্থ্যও থাকবে ভালো।

নিয়মিত খেতে হবে মাছ। ডিমের মতোই প্রোটিনের বড় উৎস হল মাছ। তাই সন্তানের ডায়েট থেকে ডিম বাদ দিলে অবশ্যই রাখুন মাছ। এর থেকে প্রোটিনের পাশাপাশি ভিটামিন ডি, ক্যালশিয়াম এবং ফসফরাসের মতো পুষ্টিও পাবে সন্তান। মাছ থেকে মিলবে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডও। যার গুণে বাচ্চার ব্রেনও চলবে দ্রুত গতিতে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল