যশোর আজ মঙ্গলবার , ৯ নভেম্বর ২০২১ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

জার্মানিতে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধিতে রেকর্ড মাত্রায় পৌঁছেছে

প্রতিবেদক
Jashore Post
নভেম্বর ৯, ২০২১ ৫:১৮ পূর্বাহ্ণ
জার্মানিতে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধিতে রেকর্ড মাত্রায় পৌঁছেছে
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

জার্মানিতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রেকর্ড মাত্রায় পৌঁছেছে। প্রতি এক লাখ মানুষের মধ্যে দৈনিক আক্রান্তের সাপ্তাহিক গড় হার সোমবার ২০০ পেরিয়ে গেছে।

গত বৃহস্পতিবারও এই হার ছিল প্রায় ১৫৫। এমন প্রবণতা চালু থাকলে ভয়াবহ পরিস্থিতির অশনি সংকেত দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

এমন প্রেক্ষাপটে রাজ্য সরকারগুলো প্রমাদ গুনছে। ফেডারেল সরকারের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে তারা জরুরিভিত্তিতে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে চায়। অথচ এমন উদ্যোগের আইনি ভিত্তির মেয়াদ শেষ হচ্ছে ২৫ নভেম্বর।

তারপরও যাতে রাজ্য সরকারগুলো প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে পারে, সেই লক্ষ্যে জার্মানির সম্ভাব্য ভবিষ্যৎ সরকারের তিন শরিক দল সোমবারই নতুন আইনের খসড়া পার্লামেন্টে পেশ করছে। তিন দিন ধরে বিতর্কের পর বৃহস্পতিবারই সেটি অনুমোদন করা হতে পারে।

করোনা মহামারির শুরু থেকে জার্মানিতে এমন পরিস্থিতি আর দেখা যায়নি। উদ্ভূত নতুন পরিস্থিতিতে বিশেষ করে হাসপাতালগুলোর ওপর বেড়ে চলা চাপ গোটা স্বাস্থ্য পরিষেবা বিপর্যস্ত করে তুলতে পারে বলে আশঙ্কা বাড়ছে। জরুরি পরিস্থিতিতে সরকার গড়ার আগেই আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নিতে কার্যত বাধ্য হচ্ছে এসপিডি, এফডিপি ও সবুজ দলের ট্রাফিক লাইট জোট।

চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের নেতৃত্বে বিদায়ী সরকার শেষ মুহূর্তে বড় কোনও নীতিগত সিদ্ধান্ত নিতে চায় না বলে এই তিন দলকে কোয়ালিশন গড়ার লক্ষ্যে আলোচনার মধ্যেই সক্রিয় হতে হচ্ছে।

করোনা সংকট মোকাবিলার প্রশ্নে জার্মানির সম্ভাব্য সরকারের শরিকদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। বিশেষ করে উদারপন্থী এফডিপি দল করোনা টিকা বাধ্যতামূলক করার যে কোনও পদক্ষেপের বিরোধী। তাছাড়া গোটা দেশজুড়ে শুধু টিকাপ্রাপ্ত ও করোনাজয়ীদের জন্য অবাধ প্রবেশাধিকারের দাবিও মানতে চায় না এই তিন দল।

তবে সবার জন্য বিনামূল্যে করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা আবার চালু করতে চায় জার্মানির সম্ভাব্য সরকার। বিশেষ করে বৃদ্ধাশ্রমে সবার জন্য প্রতিদিন এমন পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করে বয়স্ক মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার উদ্যোগ চলছে।

উল্লেখ্য, টিকাপ্রাপ্ত মানুষের একটা উল্লেখযোগ্য অংশ করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় এবং তাদের মাধ্যমেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় সবার জন্য আরও বেশি করোনা পরীক্ষার দাবি বাড়ছে।

ক্রমবর্ধমান সংক্রমণের ফলে হাসপাতালগুলোর ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের অবস্থা নিয়ে সবচেয়ে বেশি দুশ্চিন্তা দেখা দিচ্ছে। অনেক অঞ্চলে হাসপাতাল ও আইসিইউ ইতোমধ্যেই করোনায় আক্রান্ত রোগীদের কারণে এতটা ভর্তি হয়ে গেছে যে, অন্যান্য জরুরি চিকিৎসা ও অপারেশন অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে।

ইনসিডেন্সের মাত্রা ৩০০ পেরিয়ে গেলে আইসিইউ-গুলোতে রোগীদের সংখ্যা সাড়ে চার হাজার ছুঁতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে হাসপাতালগুলোর সংগঠন। অনেক রাজ্যে স্কুলে মাস্ক পরার নিয়ম শিথিল করায় সংক্রমণের হার বাড়ার খবর আসছে।

খবর সূত্র- ডিডাব্লিউ।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল