যশোর আজ সোমবার , ১ নভেম্বর ২০২১ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

চৌগাছায় প্রধান শিক্ষকের দুর্নীতি ও নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

প্রতিবেদক
Jashore Post
নভেম্বর ১, ২০২১ ৫:৩২ অপরাহ্ণ
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

যশোর প্রতিনিধি :: যশোরের চৌগাছার মাকাপুর-বল্লভপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূর ইসলামের বিরুদ্ধে জাল- জালিয়াতি মাধ্যমে চারজন শিক্ষক নিয়োগের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সাবেক সভাপতি।

রবিবার ( ৩১ অক্টোবর ) বেলা ১১টায় চৌগাছা প্রেসক্লাবে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বিদ্যালয়টির ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল।

তিনি বলেন,আমি ২০১৪ সাল থেকে ২০১৫ সালের ২৮ জুন পর্যন্ত বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছি। আমার মেয়াদে বিদ্যালয়ে কোনো সহকারী শিক্ষক নিয়োগ হয়নি। অথচ সেই সময়ে তিনজন শিক্ষক নিয়োগ দেখানো হয়েছে। অন্য এক শিক্ষককে ২০০৫ সালে নিয়োগ দেখানো হয়েছে। এই চার শিক্ষক নিয়োগে প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম অন্তত ৫০-৬০ লাখ টাকার নিয়োগ বাণিজ্য করেছেন। সর্বশেষ চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে ওই প্রধান শিক্ষক উপর মহলকে ম্যানেজ করে ওই চারজন শিক্ষকের এমপিভুক্ত করিয়েছেন।

অবৈধভাবে নিয়োগ ও এমপিওভুক্ত হওয়া ওই চার সহকারী শিক্ষক হলেন-দেলোয়ার হোসেন ( ইনডেক্স নম্বর এন-৫৬৮০৮৩০৪ ), লিপিয়ারা খাতুন ( ইনডেক্স নম্বর এন-৫৬৮০৮৩০৩),আনন্দ কুমার বিশ্বাস ( ইনডেক্স নম্বর এন-৫৬৮০৮৩০৬) ও মমতাজ খাতুন (৫৬৮০৮৩০৫)। এর মধ্যে ২০০৫ সালের পহেলা জানুয়ারি মমতাজ খাতুনকে সহকারী শিক্ষক ( বাংলা ) পদে নিয়োগ দেখানো হয়েছে।

আর ২০১৫ সালের ৭ জুন তারিখে দেলোয়ার হোসেনকে সহকারী শিক্ষক ( সমাজ বিজ্ঞান ),লিপিয়ারা খাতুনকে সহকারী শিক্ষক (সমাজবিজ্ঞান ) ও আনন্দ কুমার বিশ্বাসকে সহকারী শিক্ষক ( ব্যবসায় শিক্ষা ) পদে নিয়োগ দেখানো হয়েছে। অথচ তারা কোনো দিন বিদ্যালয়ে আসেননি। সেপ্টেম্বর-২০২১ মাসের এমপিও শিটে স্বাক্ষর করতে গিয়ে শিক্ষক কর্মচারীরা প্রধান শিক্ষকের কাছে এ বিষয়ে জানতে চেয়ে ধমক খেয়েছেন বলে আরো জানান।

তিনি আরো বলেন,প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলামের অনিয়ম দুর্নীতি সীমাহীন পর্যায়ে পৌঁছেছে।তার হয়রানির ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পান না শিক্ষক-কর্মচারীরা। জালিয়াতির মাধ্যমে নিজের স্ত্রীকে সহকারী শিক্ষক ( লাইব্রেরিয়ান ),ভাতিজাকে নৈশপ্রহরী পদে নিয়োগ দিয়েছেন। এখন ছেলেকে বিদ্যালয়ে নিয়োগের চেষ্টা চলাচ্ছেন।

বিদ্যালয়টির প্রতিষ্ঠাকাল ১৯৯৭ সাল দেখানো হলেও অবকাঠামোগত কার্যক্রম শুরু হয় ২০০০ সালে। প্রতিষ্ঠাকাল থেকে তিনি ব্যক্তি স্বার্থ চরিতার্থ করতে তৎপর। যাকে নিজের লোক মনে করেন তাকে সভাপতি বানান ঐ অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক। তার অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়ে প্রতিবাদ করলে কৌশলে সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে দেন। তিনি বিদ্যালয়ের বিভিন্ন ফান্ডের টাকার হিসাব কাউকে দেন না। বিভিন্ন অনুদান, বরাদ্দ ও শিক্ষার্থীদের বেতন,সেশন চার্জ,পরীক্ষা ফি বাবদ উত্তোলিত টাকা নিজে পকেটস্থ করেন।

এ বিষয়ে মাকাপুর-বল্লভপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূর ইসলামের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও সাক্ষাৎ না মেলায় তার বক্তব্য জানা যাইনী।

সর্বশেষ - সারাদেশ