যশোর আজ বৃহস্পতিবার , ১০ আগস্ট ২০২৩ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

খেজুরের গুড়ের জন্য বিখ্যাত যশোর

প্রতিবেদক
Jashore Post
আগস্ট ১০, ২০২৩ ১২:৪৩ অপরাহ্ণ
খেজুরের গুড়ের জন্য বিখ্যাত যশোর
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

যশোরের ঐতিহ্যের সাথে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে আছে অঞ্চলটির উৎপাদিত খেুজুরগুড়। এ গুড় প্রাচীনকাল হতে আজও সমানভাবে দেশে-বিদেশে সমাদৃত। প্রাচীনকাল থেকেই এ এলাকার গাছিরা সচেষ্ট রয়েছে ভেজাল মুক্ত গুড় উৎপাদনে।এ কারনেই যশোরে উৎপাদিত খেুজুরগুড় বিখ্যাত। জেনে নিই অঞ্চলটির উৎপাদিত খেজুরগুড়ের পূর্ব ইতিহাস।


শীত এলেই গাছিরা ব্যস্ত হয়ে পড়েন রস সংগ্রহ কাজে।পড়ে যায় খেজুর গাছ কাটার ধুম।চিরাচরিত সনাতন নিয়মেই রাতভর মাটির তৈরী ভাড়ে রস সংগ্রহ করেন। ভোরের আলো ফোটার আগেই গাছিরা গাছে ওঠে ভাড় থেকে রস সংগ্রহ করে বাসায় আনেন। তারপর শুরু হয় সেই রস জ্বালিয়ে গুড় তৈরীর কার্যক্রম।বিশেষ কৌশলে প্রকার ভেদে তৈরী করা হয় গুড়,পাটালি ও নলেন গুড়। যশোরের খাজুরা, চৌগাছা ও ছাতিয়ানতলায় সবচেয়ে বেশি খেজুরগুড় উৎপাদন হয়।

বর্তমানে যশোরে উৎপাদিত গুড়ের পরিমান প্রায় ৩৭,০০,২০০কেজি। ২০২২ ইং সালের কৃষি বিভাগের এক সমীক্ষা অনুযায়ী যশোর জেলার খেজুরগুড় বিক্রি করে ১৩ হাজার গাছি লাভবান হয়েছে। এ জেলার রস ও গুড়ের ঐতিহ্য ধরে রাখতে নানা উদ্যেগ গ্রহণ করা হয় বলে কৃষি কর্মকর্তার।

যশোর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক জানান,বিশুদ্ধ খেজুর রস-গুড় উৎপাদনে জেলার ৬০ গাছিকে কৃষি বিভাগের পক্ষ হতে বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।বৃহত্তর যশোর জেলার জীব বৈচিত্র সংরক্ষন ও প্রাকৃতিক পরিবেশ উন্নয়ণ প্রকল্পের আওতায় এ অঞ্চলে কযেক লাখ খেুজুর গাছের চারা রোপন করা হয়েছে।

যশোরের ঐতিহ্যবাহী গুড়-পাটালীর ইতিহাস অনেক প্রাচীন। ব্রিটিশ আমলে খেজুড় গুড় থেকে চিনি তৈরী হতো। বিলেত থেকে সাহেবেরা দলে দলে যশোর অঞ্চলে এসে চিনির কারখানা স্থাপন করে চিনির ব্যবসা করতো। চিনির কারখানা গুলো জেলার চৌগাছা ও কোটচাঁদপুর শহরের আশে পাশে কেন্দ্রীভূত ছিলো বলে জানা গেছে।

যশোরের ইতিহাস হতে জানা যায়,সে সময় প্রায় ৫শোর অধিক চিনি কারখানা গড়ে ওঠেছিলো।তখন কলকাতা বন্দর দিয়ে যশোরের উৎপাদিত চিনি বিদেশে রপতানি করা হতো। এরপর আখ হতে সাদা চিনি উৎপাদন শুরু হলে খেুজুর গুড় হতে চিনি উৎপাদনে ধস পড়ে যায়।বনবিভাগ জানিয়েছে যশোর অঞ্চলে খেুজুর গাছের সংখ্যা কমে যাওয়ায় এতিহ্য ধরে রাখতে সরকারের বনভিভাগের উদ্যেগে খেুজুর গাছ রোপনের কাজ শুরু হয়েছে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল