যশোর আজ রবিবার , ১০ মার্চ ২০২৪ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

কেশবপুরে ভুয়া কবিরাজের বিরুদ্ধে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

প্রতিবেদক
Jashore Post
মার্চ ১০, ২০২৪ ৫:১৮ অপরাহ্ণ
কেশবপুরে ভুয়া কবিরাজের বিরুদ্ধে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

কেশবপুর প্রতিনিধি :: যশোরের কেশবপুরে মহিবুর রহমান নামে এক ভুয়া কবিরাজের বিরুদ্ধে জ্বীনের বাদশা সেজে জটিল-কঠিন রোগ নিরাময়ের কথা বলে অসংখ্য রোগীর কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মনজুরা খাতুন নামে এক ভুক্তভোগী ওই ভুয়া কবিরাজের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার কড়িয়াখালি (বেগমপুর ) গ্রামের মৃত এরশাদ আলী গাইনের ছেলে মহিবুর রহমান দীর্ঘদিন ধরে জ্বীনের বাদশা সেজে জটিল-কঠিন রোগের চিকিৎসা দিয়ে আসছে।

উক্ত ভুয়া কবিরাজের শ্বশুরবাড়ি একই উপজেলার ভালুকঘর গ্রামে। তার শ্বশুরের নাম এমামউদ্দীন দপ্তরী। ভালুকঘর গ্রামের আকছেদ গাজীর মেয়ে মনজুরা খাতুন দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন অসুস্থতায় ভুগছিলেন।

গ্রামের মেয়ে জামাই হওয়ার সুবাদে পরিচয় হয় মনজুরার। এক পর্যায়ে শারিরীকভাবে বিভিন্ন অসুস্থতার কারণে ভুয়া কবিরাজ মহিবুর রহমানের কাছে গেলে তিনি তাকে বলেন,এই ধরনের অনেক রোগী আমি ঠিক করে দিয়েছি,জীনের মধ্যমে আপনার সব ধরনের রোগ ঠিক করে দেব।

এরপর তিনি ঐ কবিরাজের শ্বশুর এমামুদ্দীনের কাছে তার জামাইয়ের বিষয় জানতে চাইলে সে তাকে বলে আমার জামাই মহিবুর জ্বীনের মাধ্যমে মানুষের বড় বড় রোগ ভালো করেছে। তোমারও ভালো করে দেবে।

শ্বশুরের কথায় বিশ্বস করে তিনি তার জামাই কবিরাজ মহিবুরের কাছে চিকিৎসা নেওয়ার তার দরবারে গেলে সে প্রথমে বিভিন্ন জিনিস লাগবে বলে তার কাছ থেকে দুই তিন বারে ২২ হাজার টাকা নেয়। টাকা দিয়েও দীর্ঘ ৬ মাসে তার শরীরের কোন উপকার না হওয়ায় এক পর্যায় বাধ্য হয়ে তার কাছে ( ভুয়া কবিরাজ ) টাকা ফেরত চাইলে উক্ত টাকা না দিয়ে উল্টো সে ও তার শশুরবাড়ির লোকজন তাকে বিভিন্নভাবে হুমকি-ধমকি দিতে থাকে বলে জানা গেছে।

এই ভুয়া কবিরাজ জ্বীনের বাদশা সেজে শুধু তার কাছ থেকে নয় তার গ্রামের আতিয়ার সানার কাছ থেকে ২০ হাজার,রজব গাজীর কাছ খেকে ২হাজার, মাহবুর মোড়লের কাছ থেকে আড়াই হাজার টাকাসহবিভিন্ন এলাকা থেকে আসা রোগীদের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে।

জ্বীনের বাদশা খ্যাত ঐ ভুয়া কবিরাজের কাছ থেকে টাকা আদায়সহ তাকে গ্রেপ্তার পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে তিনি তার বিরুদ্ধে গত ৭ ফেব্রুয়ারি কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

এব্যাপারে কবিরাজ মহিবুরের সাথে কথা হলে তিনি জ্বীনভরণ ও টাকা নেওয়ার কথা শিকার করে বলেন,আগামী কয়েক দিনের মধ্যে টাকা ফিরিয়ে দিবো।

এব্যাপারে কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার তুহিন হোসেন বলেন,ভুয়া কবিরাজের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল