যশোর আজ রবিবার , ৩১ অক্টোবর ২০২১ ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

কেশবপুরের রাসেল হত্যা রহস্য উদঘাটন করলো ডিবি পুলিশ

প্রতিবেদক
Jashore Post
অক্টোবর ৩১, ২০২১ ৫:০৪ অপরাহ্ণ
কেশবপুরের রাসেল হত্যা রহস্য উদঘাটন করলো ডিবি পুলিশ
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

যশোর প্রতিনিধি :: যশোরের কেশবপুর উপজেলার ডিগ্রি কলেজের ছাত্র ও মটর সাইকেল চালক রাসেল হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে যশোরজেলা গোয়েন্দা শাখা ( ডিবি ) পুলিশ।

চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকান্ডে জড়িত যশোরের কেশবপুর থানাধীন হাসানপুর গ্রামের আব্দুর রহমান সর্দ্দারের ছেলে মোঃ মাসুদ হোসেন( ১৯) ও বিষ্ণপুর গ্রামের আব্দুর রউফ মোড়লের ছেলে মোঃ অহিদ হাসান কে ( ১৯ ) গ্রেফতার করছে ডিবি পুলিশ সদস্যরা। এ সময় তাদের কাছ হতে হত্যাকান্ডে ব্যাবহৃত ১টি চাকু ও নিহতের মোবাইল ফোন উদ্ধার হয়।

যশোর জেলা পুলিশের দেওয়া এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি হতে জানা যায়, গত ১৭ ই আগস্ট ২১ ইং তারিখ সকালে কেশবপুর থানাধীন সাগড়দাড়ি চিংড়া পূর্বপাড়া গ্রামস্থ চিংড়া হতে শ্রীপুরগামী কাঁচা রাস্তার পাশে জৈনক আয়সা বেগমের ধানক্ষেত থেকে কেশবপুর উপজেলাধীন সাবদিয়া গ্রামের মজিদ মোড়লের ছেলে রাসেলের (২৬) লাশ উদ্ধার করে কেশবপুর থানা পুলিশ।

সে পড়াশোনার পাশাপাশি মোটর সাইকেল ভাড়ায় চালাত। এই সংক্রান্তে রাসেলের পিতা বাদী হয়ে কেশবপুর থানায় মামলা দ্বায়ের করেন। যাহার মামলা নং-৩ ও তারিখ ১৭-৮-২০২১ ইং।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়,গত ১৬ ই আগস্ট বিকালে রাসেল বাসা হতে ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালানোর জন্য বের হয়। রাত বেশী হওয়ায় পরিবারের সদস্যরা তার মোবাইলে কল দিলে ফোন বন্ধ পাই এবং বিভিন্ন জাইগাই তার খোঁজ চালানোর এক পর্যায়ে ১৭ ই আগস্ট রাত আনুমানিক ২.৩০ মিনিটে উপজেলার ঘোপসানা রোড হতে রাসেলের মোটরসাইকেল উদ্ধার হলেও সে নিখোঁজ থাকে। ভোর সকালে পরিবারের সদস্যরা লোকমারফত খবরপেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে রাসেলের মরাদেহ সনাক্ত করে।

ঘটনাটি চাঞ্চল্যকর ও ক্লুলেস হওয়ায় যশোরের পুলিশ সুপার মামলার তদন্তভার জেলা গোয়েন্দা শাখার উপর ন্যাস্ত করে। ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রুপন কুমার সরকার মামলাটির তদন্তভার ডিবি পুলিশের এস আই শামীমের ওপর প্রদান করেন।

এরই ধারাবাহিকতায় গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ৩০ অক্টোবর পুলিশ পরিদর্শক শাহীনুর রহমানকে নিয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই শামীম ও এস আই মফিজুল ইসলাম এর নেতৃত্বে ডিবি পুলিশের একটি চৌকস দল কেশবপুর উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে রাসেল হত্যাকান্ডে জড়িত সন্দেহে দুই যুবককে গ্রেফতার করেন।ডিবি পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধৃতরা আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার আসায় মটরসাইকেল ছিনতাই করার পরিকল্পনার কথা স্বীকার করেন।

হত্যাকান্ডের রহস্য তুলে ধরে জেলা গোয়েন্দা শাখা জানাই, ১৬ আগস্ট পূর্ব পরিকল্পনা মোতাবেক গ্রেফতারকৃতরা চাকু নিয়ে ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে কেশবপুর দিয়ে খুলনায় যায়। সেখানে ছিনতাই করতে না পারায়ট্রাক যোগে রাত আনুমানিক ১১ টায় চুকনগর ফিরে আসে।

তারপর মটরসাইকেল চালক রাসলেকে ৩০০টাকা ভাড়া চুক্তিতে সাগড়দাড়ির উদ্দেশ্যে নিয়ে যায়। পথিমধ্যে চিংড়া টেপার মাঠের মধ্যে জনমানব শূন্য এলাকায় নিয়ে রাসেলকে ছুরির ভয় দেখিয়ে মটরসাইকেল ছিনতাই করতে চায়। রাসেল বাধসাধলে তাদের কাছে থাকা ছুরি দ্বারা তার পেটে আঘাত করে।

হত্যাকান্ডের স্বীকার রাসেল তার মোবাইলে থাকা বাচ্চার ছবি দেখিয়ে জীবন ভিক্ষা চাইলেও ঘাতক মাসুদ ও ওহিদ না শুনে তাকে উপর্যুপুরি ছুরিকাঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করে মটর সাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায়।

পরবর্তী সময়ে ঘাতকরা হত্যা করার কথা চিন্তা করে মটরসাইকেলটি ঘটনাস্থল হতে ৫/৬ কিলোমিটার দূরে ঘোপসানা রোডে ফেলে দিয়ে আত্নগোপনে যায়। হত্যাকান্ডের ১০/ ১৫ দিন পর নিহত রাসেলের মোবাইল ফোনটি হাসানপুর বাজারে এক মুদি দোকানী শহিদুলের নিকট ৩ হাজার টাকায় বিক্রি করে বলে জানা যায়।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল