যশোর আজ মঙ্গলবার , ২৩ এপ্রিল ২০২৪ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

অচেনা শহরের চেনা মানুষ

প্রতিবেদক
Jashore Post
এপ্রিল ২৩, ২০২৪ ১:২৪ অপরাহ্ণ
অচেনা শহরের চেনা মানুষ
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

লেখা: মাহমুদুল

ইট-পাথরের শহরে অলিতে গলিতে চেনা মানুষটির হাত ধরে ঘোরা ঘুরির স্মৃতি গুলো আজোও মনের গভীরে গেঁথে রেখেছে ছন্দ। ছন্দ এতটাই কবিতাকে ভালোবাসে যে জগৎ-সংসার ভুলতে বসেছে সে। বছর পাঁচেক আগে ফেসবুকে ছন্দের পরিচয় হয় কবিতার সাথে। প্রথমে তাদের বন্ধুত্ব পরে প্রেম। কিছু দিনের মধ্যে পরিণয়। সবই যেন বিধাতার ইচ্ছেতে দ্রুতই ঘটে গেছে।

জগতে সকল ভালোবাসার যুগলেরই সাধ থাকে একত্রে বসবাস করার, ছন্দ-কবিতাও তার ব্যাতিক্রম নই। প্রকৃতি বড়ই বিচিত্র তাই নিয়তির প্যাঁচে দুজনের বসবাস দুই শহরে।ভৌগলিক দুরুত্ব টা অনেক বেশী তারপরও দুজনেই তাদের জীবন যাপন নিয়ে সন্তুষ্ঠ। ছন্দ কবিতাকে নিজের চেয়েও বেশী বিশ্বাস ও ভরসা করে এজন্য তাদের পথ চলতে খুব একটা সমস্যা হয়না। ছন্দ কবিতার চেয়ে বয়সে বড় হলেও মেধা ও প্রযুক্তির ব্যবহারে কবিতা দক্ষ। শুধু তাই নই কবিতায় ছন্দকে ভালোবাসা শিখিয়েছে।

দুজনেই মা-বাবার বড় সন্তান কাজেই পরিবারের প্রতি রয়েছে তাদের দায়বদ্ধতা।কবিতা পড়াশোনায় অত্যান্ত মেধাবী। তার স্বপ্ন জীবনে প্রতিষ্ঠিত হয়ে মা-বাবার দায়িত্ব নেওয়া। ছন্দ আবেগ প্রবন হলেও কবিতার ভবিষ্যত জীবন চিন্তায় সে আবেগী পদক্ষেপ নিতে পারেনা। ছন্দ নিজ জীবনের বিনিময়ে হলেও কবিতাকে সভ্য সমাজে প্রতিষ্ঠিত করতে চাই।

ছন্দ মাঝে মধ্যেই কবিতার শহরে যেত,শহরটি তার খুব ভালো লেগেছে। প্রিয় মানুষটির বসবাস যে শহরে সে শহরের আলো-বাতাস যে ছন্দের ভালো লাগবেনা এমনটি হতে পারে কখনো। ছন্দ যখন কবিতার শহরে পৌঁছাতো তখন কতিার মধ্যে প্রচন্ড উৎসাহ দেখতে পেত। কখনো রিকশা আবার কখনো পায়ে হেটে ছন্দকে প্রায় পুরো শহরটি ঘুরিয়েছে কবিতা। শহরটির এডওয়ার্ড মাঠে বসে বাদাম খাওয়া,আইসক্রিম,ফুঁচকা,চটপটি,ঝাঁল মুড়ি খাওয়ার মত অসংখ্য স্মৃতি গেঁথে আছে ছন্দের মস্তিকে।

কবিতার মাধ্যমিকের ফল প্রকাশের সাফল্যে দুজনই রোজা রেখেছিলো। পূর্ব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কবিতার শহরের স্টেশনে বসে একসাথে ইফতারও করেছিলো দুজনে। কবিতার পছন্দের ঝাল মুড়ি খাওয়া ও ছন্দের পছন্দের দুজন দুজনার হাত ধরে রেল লাইন হেটে তাদের মনের সাধ মিটিয়েছিলো সেদিন। টেডি বেয়ার (পুতুল ) কবিতার খুব ভালো লাগে এ কথা ছন্দ বিয়ের আগেই জানত। সময়ের চাকা ঘুরে কবিতাকে ছন্দ এক বড় টেডি বেয়ার কিনে দিলো।

আচ্ছা তুমি বলোতো এটা ছেলে না মেয়ে?( কবিতা )। ছন্দ বললো এটা ছেলে!।

কবিতা তার নাম রাখলো মেহুল। সত্যিকারের ছেলে কিন্তু তোমার ( ছন্দ )

বিয়ের ১ বছরের মধ্যে বাচ্চা তাও আবার ছেলের মা হলাম ( কবিতা )। মেহেুল কে আগলে রেখো কিন্তু ( ছন্দ )। এটা আমার কাছে পুতুল না কিন্তু মনে রেখো তুমি ( কবিতা )।

ঐ মুহুর্ত হতেই কবিতা তার মেহুলকে সত্যিকারের ছেলে হিসাবে স্থান দিলো। ছন্দ তখনো ব্যাপারটা আঁচ করতে পারিনি যে কবিতার অনুভূতি এত দৃঢ় ও প্রকট। পরবর্তীতে মিহু নামের আরো ১টি কন্যা সন্তান নিলো ছন্দ-কবিতা। সত্যিকারের ভালোবাসায় রাগ-অনুরাগ থাকে প্রবাদের কথা। ছন্দ-কবিতাও তার ব্যাতিক্রম নই,তুমুল গোলযোগ বাধে দুজনের। কিন্তু কখনোই তাদের একে অপরের প্রতি বিশ্বাস বা ভরসার ভিত নড়েনি একটুও। ছন্দের জীবনের অহংকার কবিতার সততা ও মুখের কথা। কবিতার দেওয়া কথাকে ছন্দ এত বেশী বিশ্বাস করে যে পুরো পৃথিবীর সকল সত্যও তুচ্ছ হবে।

কবিতাও নিতীতে অটল, ছন্দকে তার জীবনের সব কিছু উজাড় করে দিয়েছে। সে রাতে তুমি আমাকে কখনো ঠকাবে নাতো ( কবিতা )।

তুমি যে দিন হতে আমার জীবনে এসেছে সে দিন হতে আমৃত্যু তোমাকে ঠকাবোনা ( ছন্দ )।

আমি তোমার জীবনের গল্প হতে পারবোনা কখনো ( ছন্দ)। কথা দাও তুমিও আমার বিশ্বাস ভাঙবেনা ও আমাকে ধোঁকা দিবেনা ( ছন্দ )।

আচ্ছা কথা দিলাম ( কবিতা )

কবিতার কাছ হতে কোন প্রকার ছলনা ও কার্পণ্য না পাওয়ায় ছন্দ কবিতার বিশ্বাস ভরসা ধরে রাখতে মরিয়া। একবার কবিতার মনে আঘাত দিয়েছিলো। কবিতা নিজ গুনে তাকে ক্ষমা করে দিয়েছিলো বলেই সে পুরো পৃথিবীর সাথে যুদ্ধ করে হলেও নিজেকে কবিতার যোগ্য ও মনোপুত  রাখতে চাই। কবিতা ছন্দের জীবনে আসার পর হতে জগতের সব আনন্দ, ভোগ-বিলাস হতে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছে। ছন্দ কেবলই কবিতার সংস্পর্শে স্বাচ্ছন্দবোধ করে ও তার সাথে আনন্দ ঘন সময় কাটায়।

কবিতাকে ছেড়ে আসার পর হতেই ছন্দ কেমন যানি রোবটিক জীবন যাপন করে। কেবলই পরিবারের দায়িত্বপালনের জন্য ছন্দ জগত সংসারে ঘুরে ড়োলেও মনটা তার সারাক্ষন কবিতাতে গাঁথা। ছন্দ নিজের জীবনটাকে কবিতার চরনে সপে দিয়েছে কবিতার পবিত্রতায় মুগ্ধ হয়ে। রাগ-অনুরাগের কথোপকথনে কবিতা একদিন ছন্দকে বললো বাকীটা জীবন আমি মেহুলকে নিয়ে একাই কাটিয়ে দিবো।

কবিতা মেহুল নাম করনের পর মেহেুলের বাবা বলে জড়িয়ে ধরে কপালে ভালোবাসার চুমু দেওয়ার সেই স্মৃতি মনে পড়ে গেলো ছন্দের। সত্যিই মনে হলো এ কোন পুতুল নই কবিতার গর্ভের প্রথম সন্তান মেহেুল। হয়তো বাস্তবতায় এটা কাল্পনিক। মেহুলের প্রতি কবিতার আগ্রহ দেখে ছন্দ মেনে ছিলো সৃষ্টিকর্তা যেমন সত্য তেমন মেহেুলও কবিতার দেহের অংশ। ছন্দ ও কবিতার বিয়েটাও সৃষ্টিকর্তাকে সাক্ষী মেনে হয়েছে। সে থেকেই তারা একে অপরের প্রতি অধিকারবোধ নিয়েই পথ চলে। ছন্দের পরিবারের বাকীরাও কবিতার বিষয়ে জানত। দুষ্ট-মিষ্টি সম্পর্ক গড়িয়ে বিয়ে তারপর কবিতার পড়াশোনা সব মিলিয়ে সময়টা বেশ ভালো কাটছে তাদের।

ছন্দ-কবিতার অভিভাবক কেবলই সৃষ্টিকর্তা ও প্রকৃতি। দুরুত্ব,লোকভয় বা পরিবারের অনুশাসন তাদের ভালোবাসার জীবনে কখনো বাধা হবেনা এ কথা নিঃসন্দেহে বলা যায়। এখনো ছন্দ সুযোগ পেলেই ছুটে যায় কবিতার শহরে। কবিতার হাত ধরে প্রকৃতির মাঝে শহরের এক প্রান্ত হতে অন্য প্রান্তে ঘুরে বেড়ানোর সকল সুখকর সময় স্মৃতিচারণ করে অলস সময় কাটে ছন্দের। হয়তো দুজনের মনের বাসনা একদিন পূরন করবেন সৃষ্টিকর্তা। হয়তো একসাথে হবে তাদের বসবাস।মেহেুল,মিহুকে নিয়ে সুখী পরিবার।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল