যশোর আজ সোমবার , ২২ এপ্রিল ২০২৪ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

অচেনা ভালোবাসা পর্ব-৩

প্রতিবেদক
Jashore Post
এপ্রিল ২২, ২০২৪ ৭:৪৯ অপরাহ্ণ
অচেনা ভালোবাসা পর্ব-৪
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

মাহমুদুল

কয়েক মিনিট পার হতেই আবারো মুঠো ফোন বেজে ওঠলো। কল ধরতেই সেই মধুর কন্ঠস্বর হ্যালো কি করেন?। এইতো শুয়ে আছি। বেস্টিরা এসে গেছে। কৌতুহল বসত ভিডিও কল করলাম। সেদিন ই প্রথম আপিকে দেখলাম,হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানালাম। আপির বন্ধু সাইকোকে তখনো দেখিনি। যথারিতী তারা ভ্যান যোগে পাখির বাসায় গিয়ে ওঠলো।অনেকদূরের পথ পাড়ি দিয়ে এসেছে তাই বিশ্রাম করবে ভেবে আমিও আর কথা বাড়ালাম না।

বেশ কয়েক ঘন্টা পার হলো পাখিও কল দিচ্ছে না। আসলে তখনো আমি ভালোবাসার মানুষের প্রতি যে গভীর টান হয়, চোখে হারানো যায়না তেমনটা উপলব্ধি করিনি। দুপুর গড়িয়ে বিকালের দিকে পাখির সাথে একটু কথা হলো। স্বাভাবিক ভাবেই পাখি অতিথি পরায়ন তাই তাদেরকে সময় দিতে ব্যস্ত।পরদিন আবার পাখির জন্মদিন অনুষ্ঠান সেটা নিয়েও ভাবছে সে। তার বেস্টির বয়ফ্রেন্ড অনেক উপহার এনেছে জানালো। একবার আমাকে জিজ্ঞেস করলো আপনি আসছেন তো?।আমি মৃদু স্বরে বললাম যাবো।

আমাকে রিসিভ করবে বলেও জানালো। আচমকাই পরিস্থিতি পাল্টে গেলো। বিশ্রাম শেষে সাইকো তার অঙ্গ-ভঙ্গি দিয়ে পাখিকে বোঝাতে লাগলো পাখিকে তার চাই ।বেস্টির বয় ফ্রেন্ড ও মেহমান ভেবে পাখি তাকে কিছু বলতেও পারছেনা।ফোনে একবার আমাকে জানিয়েছে তার অসহ্য লাগছে বাড়ির পরিবেশ। বরাবরই পাখি বিছানায় একা থাকতে পছন্দ করে। মাঝে মধ্যেই আমি তাকে বলতাম তোমার বিছনাটিকে ফুলের বিছানার মতই লাগে।

ঘরের জানালা খুলে,বিছানায় শুয়ে জানালার গ্রীলে পা রেখে ফোনে কথা বলার নয়নাভিরাম দৃশ্য আজও চোখের সামনে ভাসে।পরদিন সকালে পাখির জন্য উপহার স্বরুপ কালো রঙ এর একটা পোশাক নিয়ে ছুটলাম জন্মদিন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে। আমার কাছে অনুষ্ঠানের চেয়েও প্রাধান্য ছিলো জীবনের ঠিকানা। সারা পথ বুকটা কাঁপছে,প্রথম দেখাতেও এত সংসয় ছিলোনা আমার মনে। নতুন ভাবে পাখিকে পাওয়া,তার বন্ধু সার্কেলের সামনে উপস্থিত হওয়া নানা চিন্তা মাথায় জেকে বসেছে আমার। যেতে যেতে দু একবার পাখির সাথে ফোনে কথা হচ্ছে তবে আমার আত্তা তৃপ্ত হচ্ছেনা।

ওদিকে সাইকো পাখিকে তার পরিকল্পনা অনুযায়ী চলতে বাঁধা দেওয়ায় আমাকে আর রিসিভ করতে পারলো না পাখি।ফোনে আমাকে জানালো সে তার বেষ্টিদের নিয়ে জন্মদিনের কেক সংগ্রহ করতে বের হয়েছে। খবরটা শুনে মনটা খারাপ হলো আমার।দূরের পথ সময় তো আমার জন্য থেমে থাকবেনা ভেবে মনকে শান্তনা দিলাম। দুপুর হয়ে গেলো পাখির শহরে পৌঁছে নিজেকে খুব একা লাগছে।পাখিকে কল দিয়ে বললাম তোমার শহরে আমি। জানিনা,সে সময় তার অনুভুতি কেমন ছিলো। দূরের পথ বাড়ি ফিরতে পারবোনা। রাতে থাকার ব্যবস্থাও করতে হবে।

অচেনা শহর,ফোনে পাখি আমাকে তার শহরের রাস্তা চিনিয়ে দিচ্ছে। আমাকে যেখানে সে অবস্তান করছে জানালো সেখানে গিয়ে দেখি সে চলে গেছে। মনটা তখন খারাপ হয়ে গেলো একে তো মাথায় একরাশ চিন্তা। নিরুপায় হয়ে হোটেলে একাই থাকার বন্দোবস্ত করে পাখিকে আবার কল দিলাম। কর ধরে পাখি আমাকে ইজিবাইকে ওঠে মেনটালের মাঠে যেতে বললো। অগত্য উপহারটা হাতে নিয়ে মন খারাপ করেই পৌছালাম মাঠে। দূর হতে তাকিয়ে দেখলাম পাখি তার বেস্টি ও মমিকে নিয়ে ঘুরছে।

আমি যেতেই পাখি চলে আসলো। প্রায় ২বছর পর আবারো দেখা আমাদের।সেই প্রথম দেখার পাখিকে খুঁজে পেলামনা।রোগা হয়ে গেছে,চোখের নিচে বলিরেখা। কারনটা তখন বুঝতে না পারলেও পাখির উপর দিয়ে শোকের সুনামি বয়ে গেছে পরে জানলাম। আমার হাত হতে উপহারটা নিয়ে তার ব্যাগে রাখলো। তারপর মমির সাথে পরিচয় করিয়ে দিলো।পাখি আমাকে তখন জার্নালিষ্ট বলে ডাকতো। মমির সাথে পরিচয় হওয়ার কিছু সময় পর আপি ও সাইকোর সাথেও পরিচিত হলাম। আপি আমাকে দেখে স্বাভাবিক থাকলেও সাইকোর মধ্যে উগ্রতা অনুভব করলাম। যা হোক পাখি ছবি তুলতে পছন্দ করে। মমি অনেকগুলো ছবি তুলে দিলো পাখির।সেখান থেকে সিএনজি চেপে সকলে পৌঁছালাম রেসুরেন্টে।

পাখি আপেল পছন্দ করে শুনেছি তাই সিএনজি হতে নেমে কিছু আপেল কিনে নিয়ে অনুষ্ঠান স্থানে পৌঁছাতেই সাইকো রুম হতে বেরিয়ে পড়লো। আমি বুঝতে পারিনি তখনো যে,সাইকো আমাকে  মানতে পারছেনা। বাকীরা আমাকে সাদরে গ্রহণ করলো। সবার সাথে কথোপকথন হচ্ছে আমার সাথে চলছে কেক কাটার প্রস্তুতি ও সাজস্বজ্জা। পাখি কিছুটা আনমনা তবে মাঝে মধ্যে বাকী বন্ধুদের সাথ দিচ্ছে। মিউজিকের সাথে বার্থডে পার্টির ড্যান্স উপভোগ করতে লাগলাম। পাখি সাইকোকে কিছু বোঝানোর চেষ্ঠা করছে। সবকিছু দেখে বুঝে মনটা আরো খারাপ হয়ে গেলো। আল্লাহর উপর ভরসা করে বসে আছি।

হঠাৎ সাইকোর হাত ধরে পাখির ছবি তোলার দৃশ্য চোখে আসলো।পাখি আমাকে যে অবহেলা করছে তেমনটিও না। কেক কাটা হলো সাইকোর হাত ধরেই কেননা সাজ স্বজ্জা তারই ছিলো।পাখি একবার এসে আমাকে খাবারের ম্যানু পছন্দ করতে বললো। আমার মনটা এতটাই খারাপ ছিলো যে,বললাম তুমি পছন্দ করে অর্ডার দাও।কেক বন্ঠন শেষে খাবারের প্রস্তুতি চলছে ফ্রেড রাইচ ও চিকেন। আবারো চোখ আটকালে সাইকোর মুখে পাখির খাবার তুলে দেওয়ার দৃশ্যে।একটু পর ওমন সৌভাগ্য আমারও ঘটলো।

যদিও পাখি আমাকে পরে বলেছে আমাকে খাওয়াবে বলে সে সাইকোর মুখে খাবার তুলে দিয়েছে। আর এটাই প্রকৃত সত্য কেননা পাখি চাইলে সাইকো তার জীবনে এন্ট্রি করতে পারতো। আগেই বলেছি পাখি আর পাঁচজনের থেকে ভিন্ন। পাখি চাই একক বিশ্বস্ত ভালোবাসা। খাওয়ার পর্ব শেষের দিকে পাখি আমার টেবিলে বসে আছে। হঠাৎ তার বেস্টি এসে জানাচ্ছে রেস্টুরেন্ট এর বিল যেন কেউ পরিশোধ না করে। শুনে আমার মনটা ভেঙ্গে গেল।পাখিও আচমকা ওঠে অপ্রস্তুত হয়ে পড়লো। পরে পাখি বন্ধুদের কাছ হতে টাকা ধার করে বিল পে করলেও সাইকোকে বিল পরিশোধ করতে দেইনি।

শীতের রাত যে যার মত বাড়ি চলে যাচ্ছে। পাখির ইচ্ছে থাকলেও সাইকোর কারনে বাসায় ফিরতে হচ্ছে তাকে। আমার কাছে গিয়ে বললো একটা রাততো কয়েক ঘন্টার ব্যাপার একটু একা কাটান।ভোরে দেখা হবে আমাদের। চলেন আপনাকে বাসে তুলে দিই। মাথা নিচু করে দোতালার সিঁড়ি বেয়ে নিচে নামছি আর মনে করছি লম্বা রাত টা কখন পার হবে।বাসে তুলে দেওয়ার সময়ও পাখির বেস্টির ডাক শুনলাম সাইকো তাকে তাড়া দিচ্ছে পাখিকে চলে যেতে বলছে।বাস যথারিতী ছেড়ে দিলো ৪০মিনিট পর হোটেলে পৌঁছালাম একটি বারও কল এলোনা।

নিজেকে প্রশ্ন করছি আমি কি ভুল করলাম?। পাখিকে তো বলেছি ভাঙ্গা মন নিয়ে ফিরতে পারবো না।হোটেল থেকে বের হলাম পানি কিনতে। কিছুই ভালো লাগছে না। অচেনা শহরের বাতাস আমার শরীরে গরম লাগছে। রুমে ওঠে কল দিলাম পাখিকে। সে ফোনটাও ধরলো না। মনটা আরো খারাপ হলো ভাবলাম সকাল হলেই বাড়ি রওনা দিবো। অভিমানি মন আমার তাই দ্বিতীয় বার আর কল দেইনি ঐ রাতে। আল্লাহকে স্মরন করে মনে মনে বলছি তোমার ইশারা পেয়ে তো আমি এ পথে পা বাড়িয়েছি তবে কি?এবার বুঝতে ভুল হলো আমার। নির্ঘুম রাত পার করলাম। সকাল হলো তখনো পাখি কল দেইনি।

মনে মনে সিদ্ধান্ত নিলাম চলে যাওয়ার আগে তো বলে যেতে হয় তাই একটিবার কল দিয়ে দেখি। কল দিতেই পাখি কল ধরলো ও বললো কোথায় আপনি?। বললাম রুমে বললো বাস স্ট্যান্ডে এসে দাড়ান আমরা বের হবো এখনি। শীতের সকাল ঘড়ির কাটা ৯টা ছুঁই ছুঁই তবুও খোঁজ নেই তার। বাসস্ট্যান্ডে ১ঘন্টা অপেক্ষা করার পর দূর হতে দেখলাম তিন জন হেটে আসছে। সবার সাথে কুশল বিনিময় শেষে আবারো সিএনজি যোগে ঘুরতে বের হলাম চারজন।এখানেও বিপত্তি বাধলো,পাখি আমার পাশে বসতে পারলো না।

সাইকো তাকে এমন চাপে রেখেছে আমি পাখির সাথে কথা বলার সুযোগ পাচ্ছিনা। কয়েক কিলোমিটার যাওয়ার পর সাইকো চালকের পাশে বসায় পাখি,আমি ও আপি একসাথে বসার সুযোগ পেলাম। ব্রীজসংলগ্ন নদীর পাড়ের চরে পৌঁছে একটা ক্যাফেতে বসলাম আমরা। আমি কফির অডার করলাম। সাইকো না খেয়েই পোশাক চেঞ্জ করতে ওয়াশ রুমে গেলো। এতক্ষনে সুযোগ মিললো পাখির সাথে কথা বলার। পাখির হাতটা ধরলাম। কাপ হাতে পাখি আমার পাশের চেয়ারে বসে সাইকোর ব্যাপারে জানালো। পাখিকে রাতে কল করতে না দেওয়া এমনকি সকালে বাড়ি হতে বের হতে চাইনি সাইকো।

পাখি অনেকটাই মেজাজ হারিয়ে ওদের বাসা হতে বের করে এনেছে। সাইকো আমাকে একপ্রকার সহ্য করতে পারছিলোনা যে কারনে আমার কেনা কফিও খেলোনা। সাইকোর মধ্যে একটা আভিজাত্য ও অহমিকা কাজ করছিলো। বাস্তবতায় আমি সাইকোর অর্থবিত্তের তুলনায় কম মাপের মানুষই হবো। পাখির বেষ্টিও ১ রাতেই তার অবস্থান পাল্টে পাখিকে সাইকোর সাথে সম্পর্ক জুড়তে বলেছে। আপি হয়তো তার ভালোবাসার মানুষটিকে ধরে রাখতে পাখিকে দুজনে মিলে সাইকোর হয়ে থাকার প্রস্তাব দিয়েছে। একথা শুনে আমি হতবাক।রেললাইনে পাখির হাত ধরেই কিছুটা পথ হাটলাম।তারপর প্লান হলো পাখির এলাকার পাশের শহর ঘুরবো।

এতক্ষন সাইকো চুপচাপ আছে। দুপুর গড়িয়ে বিকাল হলো একটা রেষ্টুরেন্টে বসে আমরা খাবার খাচ্ছি ৪জন।হঠাৎ সাইকো অসুস্থ হয়ে পড়লো মনোকষ্ঠে। খাবার খাওয়া শেষে সে বাড়ি ফেরার জন্য চাপ দেওয়া শুরু করলো পাখিকে। আপিও সাইকোর সাথে একই মত পোষণ করছে তবে পাখি তার সিদ্ধান্তে অটল। আমাকে জানালো সে বাসা হতে বলে এসছে রাতে আত্নীয় বাসায় থাকবে। আমিও ব্যাপারটা সাইকোকে শেয়ার করলাম। তারপর সাইকো একটু স্বাভাবিক হলে ঘুরতে বের হলাম আমরা। নদীর পাড় ও দর্শনীয় স্থান দেখছি,পাখি তার বেষ্টিকে নিয়ে ছবি ওঠাতে ব্যাস্ত। ঘোরাঘোরি শেষে সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলো। রাতে আমরা থাকার বন্দোবস্ত করলেও বাধ সাধলো সাইকো।

পরিস্থিতি না মেনে সাইকো একাই ঢাকা ব্যাক করার সিদ্ধান্ত নিলো। পাখি সিনক্রিয়েট করলে সাইকো একটু শান্ত থেকে আমাদের সাথে রুমে গেলো। এতক্ষনে ঘোরার আনন্দ মলিন। পাখির কপালে চিন্তার ভাঁজ।ভেবেছিলাম রাতে উজাড় করে মনের কথা জানাবো পাখিকে কিন্তু সাইকো সে সুযোগ দিলোনা। ছাদের উপর ডেকে নিয়ে পাখিকে ব্লাকমেলিং  করলো সাইকো। আমি ও সাইকো একসাথে থাকবো এ  সিদ্ধান্ত পাখি মেনে নিলো।পাখির কাছে ৫ মিনিট সময় চাইলাম।

সে সুযোগ করে ৫ মিনিট সময় বের করে আমাকে বুঝিয়ে দিলো তার জীবনে আমি স্থান পেয়েছি। ঐ ৫মিনিট আমার জীবনের স্মরনীয় মুহুর্ত। সকল মনোকষ্ট ও সকল কল্পনার  অবসান ঘটলো। ঐ সময়ই আমি ও পাখি সাজেক ট্যুরের সিদ্ধান্ত নিলাম। আগে আমি ও পাখি যখন ফোনে কথা বলতাম হঠাৎই একদিন পাখি তার শহরের একটা লোকেশানের কথা জানিয়েছিলো যাকে সে সাজেকের মত লাগে বলেছিলো।সে সময় আমি তাকে সাজেক ভ্রমণের প্রস্তাব দিই। মা-বাবাকে ম্যানেজ করে ওতো দূরের পথ পাড়ি দেওয়াও পাখির জন্য কষ্টসাধ্য ছিলো।

যা হোক রাত পেরিয়ে ভোর হতেই আমি বাসায় ফিরলাম।পাখিরাও ফিরলো তাদের বাসায়। সাইকো ও আপি পাখির বাসায় আরো ৩ দিন থাকলো। বাসায় ফেরার পর পাখি সুযোগ পেলে কল দিয়ে সাইকোর বেয়াদবির কথা বলতো।সে একদিন পাখিকে বাজে ভাবে স্পর্শ করেছে সেটাও জানিয়েছে আমাকে। সেদিন হতে পাখির প্রতি আমার বিশ্বাস ও শ্রদ্ধা এত দৃঢ় হলো যে,আল্লাহর পর পৃথিবীতে আমি তাকেই একমাত্র ভরসা করি। আজও আমার হৃদয়ে সে পবিত্রতার দেবী হয়েই বসত করে।

আপি ও সাইকো পাখির বাসা হতে বিদায় নিলে পাখি তখন আগের মত প্রান খুলে কথা বলা শুরু করলো। সামনে তার পরীক্ষা আসন্ন। এদিকে দুজনেরই চলছে সাজেক ভ্রমণের প্রস্তুতি। তার চুল আমার প্রিয় তাই রিবন্ডিং করবে বলে ক্রিম কিনতে টাকা পাঠিয়েদিলাম। পাখি আমার জন্য উপহার (ওয়ালেট,কলম,ব্যাসলেট ও চকলেট ) দিবে বলে গোপনে শপিং শুরু করলো। আমিও তার জন্য পোশাক নিয়েছি।

খুব শিঘ্রই বের হবো দুজনে সাজেকের উদ্দেশ্যে যা ছিলো পাখির জীবনে প্রথম লং ট্যুর।পাখি জার্নি করতে অভ্যস্ত নই শুনেছি তাই আমিও তাকে মানসিক ভাবে সাহস যোগাচ্ছি। সময়ের সাথে পাখি আমাকে তার নিজ পরিবারের চেয়েও বেশী ভরসা করে তা আমি ভালো করেই বুঝতে পারছি। আমিও জীবন দিয়ে তার আস্থা ও ভরসার মর্যদা রাখবো বলে মনে মনে সংকল্প করেছি।

আমাদের দুজনের গল্পের মধ্যে নানা বিষয় ওঠে আসতো। দুজনের পছন্দ ও অপছন্দের বিষয়গুলো আলোচনা হতো। পাখি ছিলো কঠিন হৃদয়ের অধিকারী। এর ভিতর আমাদের কথা বন্ধের কারন নিয়েও বিষদ গল্প হয়েছে। তার প্রথম ভালোবাসা হারানোর কারনটাও আমাকে জানিয়েছে।এখন পাখির জীবনে কেবলই আমি। পাখিকে জিজ্ঞেস করেছি কোন ভাবে তার প্রাক্তন যদি ফিরে আসে। ( ধারাবাহিক )

বিঃদ্রঃ- লেখাটি সম্পূর্ন লেখকের নিজিস্ব চিন্তা বা মতামত। কোন প্রকার ভুল-ত্রুটির জন্য প্রকাশক দায়ী নহে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল