যশোর আজ শনিবার , ২০ এপ্রিল ২০২৪ ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

অচেনা ভালোবাসা পর্ব-২

প্রতিবেদক
Jashore Post
এপ্রিল ২০, ২০২৪ ৯:৩৭ অপরাহ্ণ
অচেনা ভালোবাসা পর্ব-৪
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

মাহমুদুল

বাবুই পাখির মতই জগতে সুন্দর,নান্দনিক বাসা তৈরির কারিগর যেমন বিরল তেমনি দুটি আত্না ও মনের মিলন ঘটানোর কারিগরও বিরল। অনেকদিনপর মুঠোফোনে সেই মন শীতল করা কন্ঠ শুনে আমি উচ্ছ্বাসিত। তখনো আমার কপালে ভালোবাসার ফুল ফোটেনি,স্বাভাবিক কথায় চলছে।হঠাৎ দুজনের কথা বন্ধের কারনটাও জানতে চাওয়া হয়নি। আগেই বলে রাখা ভালো আমাদের স্যোশাল প্লাটফর্মে পরিচয় হয়েছিলো ফেসবুকের ফেক আইডির মাধ্যমে।

শুরুটা এমন ছিলো-হাই,পাখি জানালো হ্যালো। কেমন আছেন? পাখি রিপ্লে দিলো ভালো। আপনার বাসা কোথায়? পাখি শহরের নাম জানালো। ছবি দেখতে পারি কি? এ প্রশ্ন জিজ্ঞাসাতে পাখি রেগে গেলো। আগেই বলেছি ও স্পষ্টভাষী ও বাস্তববাদী। পাখি টেকস্ট করলো সকলে একি কথা বলে কেন।এগুলো ছাড়া বা না দেখে কি ভালো সম্পর্ক তৈরী হয়না।

তার বাস্তববাদী চিন্তা ও প্রশ্নে জর্জরিত হয়ে নিজেকে সংযত করে কথোপকথন শেষ হলো।ঐ দিনই আমি বুঝে ছিলাম ছোট মরিচের তেজ বেশী। বয়স কম হলেও বুদ্ধিমত্তা ও লজিক্যাল কথায় সে বড় বড় পন্ডিতদের সাথে ট্টেকা দিতে পারবে।আমি অনুধাবন করেছিলাম কেবল সাদা মনের মানুষ ও সত্যবাদী মানুষই বুক ফুলিয়ে উচ্চস্বরে কথা বলতে পারে। যা হোক খুব দ্রুততম সময়ে অর্থাৎ দুই তিন দিনের মধ্যে দুজনা ফেসবুকের রিয়েল আইডিতে যুক্ত হলাম।এটাও আমার কাছে ছিলো আশ্চর্য প্রদীপ পাওয়ার মতই।

তার ওয়াল ঘেটে আমি মুগ্ধ,বিলের শাপলা ফুল তার প্রিয়। হাঁটু পানিতে বুকে জড়ানো একগুচ্ছো শাপলা ফুলের ছবি আমার স্মৃতি পটে বাধিঁয়ে রেখেছি।পরিবারের সাথে ট্যুরের নানা ছবি দেখে পরিবারের সদস্যদের সম্পর্কে জানার সুযোগ হলো। যদিও রাত্রিকালীন গল্পে আগেই সে তার পিতাকে সোলজার হিসাবে পরিচয় করিয়েছিলো।এরপর পরিবারের সদস্য নিয়ে জানতে চাইলে সে অকপটে পরিচয় জানাতো। আমিও তার কাছে ব্যাক্তিগত জীবন নিয়ে কিছু গোপন করিনি।

আমার একটা অতিত দূর্ঘটনা, বর্তমানসহ সবকিছুই জানিয়েছিলাম। আমরা মুখফুটে বন্ধুত্বের কথা না বললেও দুজনের ক্যামিস্ট্রি জমতো। গল্প গান ও অন্যান্য কথা শুনে দুজনের আলাপচারিতা শেষ হতো। এর ভিতর একটা ঈদও পার হলো,ঈদের দিন ভিডিও কলে তার মেহেদি পরা হাত দেখে আমি হতবাক। জিজ্ঞেস করতে আমাকে জানালো সে নিজেই ডিজাইন করেছে। ততটা পেশাদারিত্ব কাজ না পারলেও নিজের হাতে বানানো ওয়ালমেট,শোপিচ দেখে অন্তত অদক্ষ বলা যাবেনা তাকে। সে আর পাঁচটা মানুষের থেকে একটু ভিন্ন,নিজেকে কোলাহল মুক্ত রাখতে পছন্দ করে।

সবকিছু স্বাভাবিক নিয়মে চলছিলো,আকস্মিক এক ফোন কলে যেন আমার কপাল খুললো। বিধাতার কাছে আমার প্রার্থনা যেন অনেকটাই কবুল হতে লাগলো। সে আমাকে কেমন আছি জানতে চাইলো,উত্তরে আমি জানালাম ভালো।পাখি বললো একটা কথা জিজ্ঞেস করবো বলবেন? উত্তরে বললাম অবশ্যই। পাখি বললো আপনি কি আমাকে পছন্দ করেন?কানে কথাটি শোনার সজ্ঞে সজ্ঞে আমার শরীর শিহরিত হলো। আমি বললাম এ কথা মুখে বলতে হয় তুমি বোঝনা।তোমাকে পছন্দ করবেনা এমন মানুষের সংখ্যা কম।

সত্যি বলতে পাখি ছিলো আমার সাধনা যা পরে তাকে আমি বলেছি। প্রথম ভিডিও কলে দেখার পর হতেই আমার ওর প্রতি আকৃষ্ট। আমি সৃষ্টিকর্তাকে প্রচন্ড বিশ্বাস করি,অনেকটা তার ইশারা বুঝে পথ চলার চেষ্ঠা করি।পাখিও সৃষ্টিকর্তার কাছে চাইতো তার কথাও সৃষ্টিকর্তা শুনতেন। পরবর্তীতে আমরা মিলও পেয়েছি,ইদানিং সৃষ্টিকর্তার সাথে তার আড়ি চলছে। হয়তো তারই কর্মফলে রুষ্ঠ হয়ে উচ্চশিক্ষা অর্জনের প্রথম ধাপের ফলাফলে বিঘ্ন ঘটেছে।

পাখি বললো সামনে আমার জন্মদিন আপনাকে দাওয়াত দিলাম,অবশ্যই আসবেন। পাখির কথা শুনে বুকে কিছুটা আশার সঞ্চার হলো-তাকে জিজ্ঞেস করলাম আমি এবার ছুঁটে যাবো অন্য মনে। আমার বয়স,চেহারা বিবেচনায় তোমাকে অপ্রিতিকর অবস্থায় পড়তে হবেনা তো। কষ্ট সহ্য করতে পারিনা তাই ভাঙ্গা মন নিয়ে ফিরে আসার ক্ষমতা আমার নেই।সে সাবলীল ভাবেই আমাকে জানালো আপনি আসেন তো ওতো চিন্তা করতে হবেনা।

অনেক দৃঢ় চিত্তের মানুষ পাখি,সুন্দর মনের পূজারী সে। আনুগত্য,কমেন্টমেন্ট, সততা,কেয়ারনেস এ সমস্ত বিশেষণগুলোর প্রতি পাখি বরাবরই দুর্বল। অল্পবয়সে জীবনে এত অভিজ্ঞতা আহরোন করেছিলো যে,সিন্ধান্ত নিতে পাখি সিদ্ধ হস্ত। প্রচন্ড বদরাগী,জেদী মনের বীপরীতে রয়েছে তার এক স্বচ্ছ কোমল হৃদয়। মানুষকে সরল মনে এত বিশ্বাস করে যে,পরিচয় হলেই তার ভিতরের সমস্ত কথা উজাড় করে জানাই তাকে।

যা হোক তার জন্মদিন আসতে একমাস দেরী হলেও সেদিনের পর হতে পাখির প্রতি আমার অধিকার বোধ জন্মেছিলো।আমার ভালোলাগার কথা প্রকাশ করতে পেরে নিজেকে হালকা লাগছিলো। পাখিও কিছু বলতে চাই,সে চাই তার পুরানো অতীত আমাকে জানাতে। মুঠো ফোনে কলের মাত্রা বেড়ে গেলো দুজনের কখনো ঘন্টা পেরিয়ে ৩ আবার কখনো ১ঘন্টায় কথা শেষ হতো।

সেই রাত্রির আনুমানিক ১৪ মাস পর আমাকে পাখি তার পুরানো প্রেমের কথা বললো। রাতুল নামের মানুষকে সে অসম্ভব ভালোবাসতো। এতটাই ভালোবাসতো যে কাছ হতে না দেখলে আমি বুঝতাম না। আজও তার চোখে অশ্রু ঝরে প্রথম ভালোবাসার জন্য।বীপরীতে পাখির চোখে ঘৃণার ক্রোধ ও দেখেছি। অনেকগুলি রাতের হাজারো সেকেন্ড,মিনিট ও ঘন্টারা সাক্ষী হয়ে আছে পাখির ভালোবাসার। তখনো কিন্তু আমার ভালোবাসার গভীরতা বোঝা হয়নি,নিছকই মুখে ভালোবাসার কথা বলতে হয় তাই বলা।

মাধ্যমিক শিক্ষা জীবন ও মিতব্যায়ী স্বাভাবের হওয়ায় পাখি পরিবারের কাছে তেমন টাকা চাইতো না। তাপরও পাখির ভালোবাসার মানুষটি মাতৃহারা ও সমাজসেবা মূলক কাজ করে বেড়ানোর তাগিদে ৪ হাজার টাকা ধার দেই। আজোও ধারের টাকা পুরোটা ফেরত পাইনি পাখি। শুধুমাত্র মুঠো ফোনে কথা হতো এতেই ভালোবাসা এতগভীরে পৌঁছেছে পাখির,তার জন্য একটা ওরেঞ্জ কালারের শার্ট ও ১টা বিশেষ উপহার কিনে বসে আছে।সে দিনক্ষনও জানিয়েছিলো পাখির শহরে এসে দেখা করবে তাই পাখি প্রথম মুখোমুখি হয়ে ভালোবাসার মানুষটিকে উপহার সামগ্রী হাতে তুলে দিবে।

সে সৌভাগ্য তার হয়ে ওঠেনি,ভুলবুঝে অভিমানের চাদরে মুখ লুকিয়ে পালিয়েছে পাখির জীবন হতে। পাখি মুঠোফোনে ভুল ভাঙ্গানোর অনেক চেষ্টা করেছে ,ভালোবাসার ভিক্ষা চেয়েছে তবুও সে ফেরেনি। আমি অনেকবার বার পাখিকে বলেছি একতরফা ভালোবেসেছো তুমি তবে পাখি তা মানতে নারাজ। আজও তার বিশ্বাস তার মুখ দিয়ে শুনে কেউ একটিবার বলুক পাখিকে সে মন থেকে ভালোবাসিনি।পাখি বলে- আমি তাকে অভিশাপ দিবোনা,সে তার পছন্দের মানুষকে নিয়ে সুখে থাক।

আমিও নাছোড় বান্দা ভালোবাসার মানুষটির মনোআক্ষেপ লাঘবে সর্বোচ্চ চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছি ও তার মুখোমুখি হওয়ার ইচ্ছেও রয়েছে। পাখির প্রথম ভালোবাসার গল্প শুনে অনেক জেলাস হয় এ ভেবে ভালোবাসার জন্য কতটা দরদ না থাকলে একজন মানুষের চোখ জ্বলে ভিঁজেে। এমন ভালোবাসা আমি পাইনি কেন?। মন ভাঙ্গার গভীর কষ্ট অল্পবয়সে পেল পাখি, শোকাহত হৃদয়ে আশার প্রদীপ নিভো নিভো প্রায়। মানুষের প্রতি বিশ্বাস ভাঙার বিষাদগার অভিজ্ঞতা বয়ে নিয়ে একাই পথ চলছিলো সে।

সৃষ্টিকর্তার রহস্যময়ী সৃষ্টি সম্পর্কে একমাত্র তিনিই জ্ঞাত,পাপ-পূণ্যের বিচারে সাজা দেওয়ার মালিক ও তিনি। জগতে মানবজাতি দ্বারা সৃষ্ট খারাপ ও ভালো কাজের একমাত্র নিতী নির্ধারকও সেই মহান স্রষ্টা। জানিনা,কেন পাখিকে দুঃখ পেতে হলো। তার ফ্রেন্ড সার্কেলের কিছু বিশ্বস্ত মানুষের সাথে ঘটনাটি শেয়ার করেছিলো পাখি। তারাও পাখিকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে নতুন সম্পর্ক জুড়ার প্রস্তাব দিচ্ছিলো। কিন্তু পাখি কোন ভাবেই সেটাকে সমর্থন করছিলো না,কেননা কাউকে সে আর বিশ্বাস করতে ভয় পাচ্ছিলো।

নিয়তির চাকা ঘুরে অনেকটাই দেবদূতের মত আর্বিভাব ঘটলো দুই ( আমার মমি ও আপির )মানুষের। আজো জানিনা তারা পাখিকে সঠিক পরামর্শ দিয়েছিলো কিনা,তবে আমি বলবো পাখিকে দূর্বিসহ যন্ত্রণা ও চাপা কষ্টের বোঝা ফেলে জীবন পথে এগিয়ে যেতে সাহায্য করেছে। বিধাতা প্রত্যেকের ভাগ্য লিখনে যা লিপিবদ্ধ করে রেখেছে তা পরিবর্তন করার সাধ্যি কারো নেই,তবে অনেক সময় অনেক সুন্দর সম্পর্ক অযত্নে নষ্ঠ হয়।

ঐ দুই মানুষ আমার জীবনে পাখিকে জুড়তে ভূমিকা রাখায় আমি কৃতঙ্গ। মানুষ দুটির সাথে আমার পরিচয় ঘটলো পাখির জন্মদিনের অনুষ্ঠানে। এর আগে তাদের কথা মুঠো ফোনে শুনেছি আমি। আপি আসছে তার বয়ফ্রেন্ড নিয়ে পাখির শহরে জন্মদিনের অনুষ্ঠানে আর মমি তার শহরেরই বাসিন্দা। রক্তের সম্পর্কের বাহিরেও জগতে আপনজন ভাবা যায় তা নতুন করে শিখলাম।

আমি বরাবরই অভিমানি ও একগুঁয়ে স্বভাবের। আপির ভুলে আমার জীবন পাতার লেখা গল্প থেকে তার নামটি মুঁছতে বসেছে প্রায়। তবে মমিকে আমার মায়ের পরের স্থানে বসিয়েছি। শ্রদ্ধা ও সন্মান সে ততদিন পাবে যতদিন আমার আপির মত করে আমার হৃদয়ে ক্ষত সৃষ্টি না করবে। সরলমনা হলেও আমি নিতীতে অনড়,আমার জীবনের চেয়েও জবানের দাম বেশী তাই চেষ্ঠা করি সম্পর্কগুলো যত্ন করে টিকিয়ে রাখার।কোথাও আঘাত নিয়ে মুখ ফিরিয়ে নিলে সেদিকে আর ফিরে তাকানো হয়নি কারণ একদিন মরতেই হবে। ক্ষনিকের জীবনে যে সৃষ্টিকর্তা আমাকে পৃথিবীতে পাঠিয়েছে তার ঠাঁই ছাড়া তো মানুষের কোন উপায় নাই।সৃষ্টিকর্তা হয়তো চাইনি বলে আঘাত পেয়েছি তাই তার হুকুমকে অগ্রাহ্য করে মরিচিকার পিছে ছুঁটতে চাইনা।

এর ভিতর দিন পনের পার হয়ে গেলো আর পাখির সাথে দুজনার জীবনের গল্পের বহর আরো দীর্ঘ হতে লাগলো।ডিসেম্বর মাস আসন্ন শীতের সময় চলছে এর সাথে চলছে পাখির জন্মদিন পালনের প্রস্তুতি। কিভাবে ও কোথায় আয়োজন হবে?কি ম্যানু হবে এসব বিষয়ে কথোপকথন চলছে আমাদের।

আমি মুখ ফুটে না বললেও প্রস্তুতি নিয়েছি ভালোলাগার মানুষটার জন্মদিন অনুষ্ঠানে প্রথম উপস্থিত থাকবো আর ট্রিটটাও আমি দিবো। ঐযে বিধির বিধান না যায় খন্ডন। আমাদের প্রেম রসায়নের শুরুতেই এক খল নায়কের আভির্ভাব ঘটলো তবে তা সাময়িক ছিলো।পাখির বিচক্ষনতা ও দৃঢ়তার কারনেই অল্পসময়ে কালো মেঘের মতই ভেসে গেলো সে।

আগেই বলেছি পাখি সরলমানা তাই সবার সঙ্গে প্রান খুলে কথা বলে। সৌজন্যের খাতিরে অনেক কিছু আঁচ করতে পারলেও সে কাউকে বুঝতে না দিয়েই ব্যালেন্স করে চলার চেষ্ঠা করে। পাখি আপিকে বেষ্টি বলে ডাকতো তার বয় ফ্রেন্ড সাইকো পাখিকে পছন্দ করতো। জন্মদিন অনুষ্ঠানে আসার আগে পাখি আঁচ করতে পেরেছিলো কিনা আজও শুনিনি তবে তার অনুষ্ঠানে কে কে থাকবে সব বলতো আমাকে।দেখতে দেখতে জন্মদিন নিকটে চলে এলো। একদিন ভোর বেলা পাখির ভিডিও কল সে রাস্তায় দাড়িয়ে আছে তার বেস্টিকে রিসিভি করবে বলে। ( ধারাবাহিক )

বিঃদ্রঃ লেখাটি সম্পূর্ন লেখকের নিজিস্ব চিন্তা বা মতামত। কোন প্রকার ভূল ত্রুটির জন্য প্রকাশক দায়ী নহে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল