যশোর আজ সোমবার , ১ নভেম্বর ২০২১ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

শার্শায় নৌকা প্রতীকের বীপরীতে একাধিক হেভিওয়েট প্রার্থী

প্রতিবেদক
Jashore Post
নভেম্বর ১, ২০২১ ৮:২৯ অপরাহ্ণ
শার্শায় নৌকা প্রতীকের বীপরীতে একাধিক হেভিওয়েট প্রার্থী
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

মাহমুদুল হাসান :: আগামী ২৮ নভেম্বরের নির্বাচনকে ঘীরে যশোরের শার্শা উপজেলার ১০ইউনিয়নে বইছে নির্বাচনী উত্তাপ। নির্বাচনী উৎসব আমেজের বিপরীতে দল পাগল নেতা-কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ ও শঙ্কা বিরাজমান।

তৃণমূলের চাহিদামত সোনার হরিণ নামক দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় বিদ্রোহী সুর বাজছে সরকার দলীয় আওয়ামীলীগ শিবিরে।ভোটের মাঠে দেখা নেই বি এনপি, জাতীয়পার্টি সহ অন্যন্য রাজনৈতিক দলের অথচ আওয়ামীলীগেই রয়েছে চরম বিভাজন।

আগামী ২ নভেম্বর মনোনয়ন জমা দানের শেষ দিন হওয়ায় শেষ সময়ে নাটকীয় মোড় নিয়েছে শার্শার আওয়ামীলীগের রাজনিতী। দলের পক্ষে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে দর্শকের ভূমিকায় আছেন স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রথম সারির নেতৃবৃন্দ। তবুও থেমে নেই তৃণমূলের নেতৃবৃন্দসহ সমর্থক।

নির্বাচন ইচ্ছুক প্রার্থীরা নিজ নিজ এলাকায় বড় আকারে নির্বাচনী শো-ডাউন দিয়ে জানান দিচ্ছে জনপ্রিয়তার। এবারের নির্বাচনে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি,সাধারণ সম্পাদক পদস্থ একাধিক ব্যাক্তি দলীয় মনোনয়ন চেয়ে ব্যার্থ হয়ে নিজেরাই সতন্ত্র পার্থী হিসাবে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন। ইতিমধ্যে তারা নিজ নিজ এলাকাজুড়ে সভা-সমাবেশ সহ নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে ভোট প্রার্থণা করছেন।

কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মেনে দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষায় জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপ না থাকলে শেষ মেষ উপজেলাটির ১০টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদের জন্য লড়বেন কমপক্ষে ২০জন প্রার্থী। অর্থাৎ নৌকা প্রতীকের ১০ প্রার্থীর বিপরীতে আরো ১০ বিদ্রোহী প্রার্থী। এখনও পর্যন্ত ইউপি সদস্য পদের প্রার্থীতা নিয়ে তোড়জোড় নেই আওয়ামীলীগের তবে এক ওয়ার্ডে দলীয় একাধিক প্রার্থীর প্রতিদন্দীতার আভাস মিলছে।

উপজেলা জুড়ে বিদ্রেহী প্রার্থীর কারণ খুঁজতে একাধিক আওয়ামীলীগের প্রবীন রাজনিতীবীদের সাথে আলাপচারিতায় জানা যায়,এবারের শার্শা উপজেলায় দলীয় মনোনয়ন বন্ঠনে অনেক যোগ্য প্রার্থীকেই বাদ দেওয়া হয়েছে,যাদের নিজ এলাকায় ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে।

উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে সাধারণ ভোটাদের সাথে কথা বলে জানা যায়,দলমত নির্বিশেষে যারা চেয়ারম্যান হওয়ার যোগ্য তাহারা অনেকেই নৌকা প্রতীক পাননি। আবার কারো কারো মতে স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে এবারের দলীয় মনোনয়ন বন্ঠন সুষ্ঠ ও মাইল ফলক। সব মিলিয়ে শার্শার রাজনৈতিক সমীকরনে যে একটি ডামাডোল ঘটতে চলছে তা অনেকখানি স্পষ্ঠ।

সাধারণ ভোটার জরিপে শার্শা সদর আসনে চেয়ারম্যান সোহারাব হোসেন,উলাশী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান আয়নাল হক ও ডিহি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান হোসেন আলী আসন্ন নির্বাচনে হেবীওয়েট প্রার্থী। যদিও তারা এবারের নির্বাচনে অংশ নিতে দলের মনোনয়ন চেয়েও দলীয় প্রতীক পাননী।

অপরদিকে নৌকা প্রতীকে বাঁগ আচড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ইলিয়াস কবির বকুল, কায়বা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমেদ টিংকু, গোগা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ,পুটখালী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল গফ্ফার, বাহাদুরপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, লক্ষনপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান মোছাঃ আনোয়ারা খাতুন এবারের নির্বাচনে হেবীওয়েট প্রার্থী।

উপজেলা জুড়ে এখনো পর্যন্ত ছোট খাট দুই একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া বড়ধরনের কোন নির্বাচনী সহিংসতা ঘটেনী। এলাকার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে জানিয়ে নাভারন সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জুয়েল ইমরান বলেন,শার্শা উপজেলায় নির্বাচনকে ঘীরে পুলিশ প্রশাসন কঠোর অবস্থানে রয়েছে। কোন প্রকার গোলযোগ ও বে-আইনীকর্মকান্ডের ব্যাপারে পুলিশ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিবে।

বিদ্রোহী প্রার্থীর ব্যাপারে জেলা কমিটির ভূমিকা প্রশ্নে যশোর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মীর জহুরুল ইসলাম জানান,আমরা সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করছি। জেলা কমিটির মিটিংপরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে। শার্শার নির্বাচনী উত্তাপের শেষ ফলাফল জানতে আরো অপেক্ষা করতে হবে ২৭দিন।

সর্বশেষ - সারাদেশ