যশোর আজ সোমবার , ১৪ আগস্ট ২০২৩ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

যশোরের বিখ্যাত কপোতাক্ষ নদ ও মধু কবির শৈশব স্মৃতি

প্রতিবেদক
Jashore Post
আগস্ট ১৪, ২০২৩ ১:৩০ অপরাহ্ণ
যশোরের বিখ্যাত কপোতাক্ষ নদ ও মধু কবির শৈশব স্মৃতি
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

কপোতাক্ষ নদ বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিামাঞ্চলের খুলনা বিভাগের অন্যতম বড় নদ। এই নদটির উৎপত্তি চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনার মাথাভাঙ্গা নদী থেকে এবং নদীটি চুয়াডাঙ্গা,ঝিনাইদাহ,যশোর, সাতক্ষীরা ও খুলনা জেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত। যশোরের বিখ্যাত কপোতাক্ষ নদীর তীরের প্রাকৃতিক পরিবেশে বেড়ে ওঠা মহাকবি মধুসূদন দত্তের।

জেনে নিই কপোতাক্ষ নদের নামকরণ ইতিহাস

কপোতাক্ষ নদের দৈর্ঘ্য ২৩৮ কিলোমিটার,গড় প্রস্থ ১৫০ মিটার ও গভীরতা ৩.৫ থেকে ৫মিটার। নদটি ৮০০বর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে অবস্থিত। স্থানীয় মানুষদের নদবিধ্বংসী কর্মকান্ড এবং অসচেতনতায় নদটি মৃতপ্রায়। এটি ভৈরব নদীর একটি শাখা নদী। ইছামতী নদী কুষ্টিয়া জেলার দর্শনার কাছে ২টি শাখায় বিভক্ত হয়ে ১টি দক্ষিণ-পূর্ব দিকে প্রবাহিত হয়েছে যা ভৈরব নামে পরিচিত। কোটচাঁদপুরের দক্ষিনে ভৈরব থেকে ১টি শাখা বের হয়ে দক্ষিনে প্রবাহিত হয়ে খুলনা জেলার পাইকগাছার কাছে শিবসা নদীর সঙ্গে মিলিত হয়েছে। ভৈরববের এ শাখাই কপোতাক্ষ।

নামকরন দ্রাবিড়পূর্ব জনগোষ্ঠির “ কবদাক ” সংস্কৃত ভাষায় “ কপোতাক্ষতে ” রুপান্তরিত হয়েছে। এ নদীর পানি কপোত বা পাখির অক্ষির ( চোখ ) মত স্বচ্ছ ছিলো বলে নদীটির নাম হয় কপোতাক্ষ।

কপোতাক্ষ নদ জোয়ার ভাটা দ্বারা প্রভাবিত। তবে উৎপত্তিস্থল থেকে ঝিকরগাছা পর্যন্ত জোয়ার ভাটার প্রভাব মুক্ত।লবনাক্ত পানি প্রতিরোধের জন্য নদীর তীরবর্তী দীর্ঘ এলাকা বাঁধ দেওয়া হয়েছে। কপোতাক্ষ নদ চৌগাছা, ঝিকরগাছা,চাকলা,ত্রিমোহনী,জীবননগর, কোঁটচাদপুর,সাগড়দাঁড়ি,তালা, কুপিলমনি,বারুলী, চাঁদখালী, বড়দল, আমাদী,বেদকাশী প্রর্ভতি উল্লেখযোগ্য স্থানের উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। কপোতাক্ষের তীরেই মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মস্থান সাগড়দাঁড়ি অবস্থিত।

শিশুকালের অনেক সুখ-স্মৃতি বিজড়িত কপোতাক্ষ নদ । যে নদের বুক চিরে কবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত এপার ওপার যাওয়া আসা করতেন; নদীর পাড়ে বসে পাড়ার ছেলেদের সাথে খেলতেন। সাগড়দাঁড়ি গ্রামেই কবির পৈত্রিক নিবাস।মাত্র ৯বছর বয়স পর্যন্ত তিনি সাগড়দাঁড়ি ছিলেন। এই কপোতাক্ষ নদকে ভালবেসেই ফ্রান্সের ভার্সাই নগরীতে বসে রচনা করেছিলেন-


সতত হে নদ তুমি পড় মোর মনে,

সতত তোমার কথা ভাবি এ বিরলে;
সতত (যেমতি লোক নিশার স্বপনে
শোনে মায়া-মন্ত্র ধ্বনি) তব কলকলে
জুড়াই এ কান আমি ভ্রান্তির ছলনে ।
বহুদেশে দেখিয়াছি বহু নদ-দলে,
কিন্তু এ স্নেহের তৃষ্ণা মিটে কার জলে ?
দুগ্ধ স্রোতারূপী তুমি জন্মভূমি স্তনে ।
আর কি হে হবে দেখা ? যত দিন যাবে,
প্রজারূপে রাজরূপ সাগরেতে দিতে
বারি রূপ কর তুমি; এ মিনতি গাবে

বঙ্গজ জনের কানে,সখে,সখা-রীতে
নাম তার, এ প্রবাসে মজি প্রেম-ভাবে
লইছে যে তব নাম বঙ্গের সঙ্গীতে।

কবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত ১৮২৪ সালের ২৫ জানুয়ারী যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার সাগড়দাঁড়ি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা রাজনারায়ণ দত্ত ছিলেন স্থানীয় জমিদার। ১৮৪৩ সালের ৯ ফেব্রুয়ারী কলকাতার মিশন রোডে “ আর্চ ডি কস ডিয়াল্টির” নিকট খ্রিস্টান ধর্ম গ্রহণ করার অপরাধে তার পিতা একমাত্র পুত্র মাইকেল মধুসূদন দত্তকে ত্যাজ্যপুত্র করেন।

এই অপরাধেই পৈত্রিক বাড়িতে ফিরে আসার সুযোগ হয়নি মধু কবির। ১৮৭৩ সালের ২৯জুন রোজ রবিবার কলকাতাস্থ আলিপুর ইউরোপিও জেনারেল হাসপাতালে তিনি মৃত্যুবরন করেন।

শৈশবে তিনি এই নদের তীরে প্রাকৃতিক পরিবেশে বড় হয়েছেন। যখন তিনি ফ্রান্সে বসবাস করতেন দূরে বসেও তিনি কপোতাক্ষের কল কল ধ্বনি শুনতে পেতেন। অন্যান্য নদ-নদীর জ্বল তার কন্ঠের তৃষ্ণা দূর করতে পারলেও হৃদয়ের তৃষ্ণা একমাত্র কপোতাক্ষের জলই দূর করতে পারতো।কারণ এর সঙ্গে কবির নাড়ির সংযোগ বা মমতার বন্ধন রয়েছে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল