যশোর আজ রবিবার , ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

মোবাইলে গান শোনাকে কেন্দ্র করে স্বামীর হাতে স্ত্রী সন্তান খুন

প্রতিবেদক
Jashore Post
এপ্রিল ২১, ২০২৪ ১১:১১ অপরাহ্ণ
মোবাইলে গান শোনাকে কেন্দ্র করে স্বামীর হাতে স্ত্রী সন্তান খুন
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

চন্দন মিত্র,দিনাজপুর প্রতিনিধি :: সন্তানদের মোবাইলে গান শোনা নিয়ে বিরক্ত হয়ে মা বকাবকি করলে স্বামী ক্ষিপ্ত হয়ে বাঁশের মোড়া দিয়ে স্ত্রী ও সন্তানদের মাথায় সজোরে আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই স্ত্রী মর্জিনা বেগমের মৃত্যু হয়।

ছয় বছরের কন্যা মোছাঃ আফরিন জান্নাতকে উদ্ধার করে দ্রুত রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ সকালে সে মৃত্যু বরন করে। একই সময় আহত পুত্র সন্তান মোঃ আল আমিনের অবস্থাও আশংকাজনক। বর্তমানে সে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ ঘটনায় নিহত মর্জিনার মা গোলাপী বেগম (৫০ )বাদী হয়ে নবাবগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন ।গত রাতেই ( ২০এপ্রিল ) ঘাতক স্বামী শহীদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

সোমবার দুপুর ১টায় দিনাজপুর পুলিশ সুপার কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে সাংবাদিকদের দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ তথ্য নিশ্চিত করেন পুলিশ সুপার শাহ্ ইফতেখার আহমদ ।

এসময় তিনি বলেন ঘাতক শহীদুল ইসলাম ( ৩৭) নবাবগঞ্জ উপজেলার হেয়াতপুর গ্রামের মোঃ সোহরাব আলীর ছেলে।সে একজন কাঠুরিয়া।

শনিবার ( ২০এপ্রিল )সন্ধ্যা ৭টার দিকে বাজারের উদ্দেশ্যে বের হবার প্রাক্কালে তার দুই সন্তান মোছাঃ আফরিন ও ছেলে মোঃ আল আমিনের মোবাইলে গান শোনা নিয়ে বিরক্ত হয়ে ওঠে মা মর্জিনা। সন্তানদের গালিগালাজ করতে থাকলে তার স্বামী শহীদুল বাঁধা নিষেধ করতে করতে এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে রান্না ঘরে থাকা বাঁশের মোড়া দিয়ে পিছন থেকে প্রথমে স্ত্রীর মাথায় আঘাত করে, সে মাটিতে পরে গেলে তার দুই সন্তান এগিয়ে আসলে ঘাতক শহীদুল ইসলাম তাদেরকেও মাথায় সজোরে আঘাত করে গুরুতর রক্তাক্ত জখম করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে দাউদপুর বাজারে চলে যায় ।

ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে সে পুনরায় বাসায় এসে কে বা কাহারা তার স্ত্রী সন্তানকে গুরুতর রক্তাক্ত জখম করেছে মর্মে ডাক চিৎকার করতে থাকে তৎক্ষনাৎ স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে তাদের সহকারে নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত ডাক্তার স্ত্রী মর্জিনা বেগমকে মৃত ঘোষনা করে এবং দুই সন্তানকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়।

সেখানে চিকিৎসারত অবস্থায় কন্যা মোছাঃ আফরিন জান্নাত আজ সকালে মারা যায় এবং ছেলে মোঃ আল আমিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় ।

এই ঘটনার পরপরেই অভিযানে নামে পুলিশ । অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোমিনুল করিম এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল শেখ জিন্নাহ আল মামুনের তত্ত্বাবধানে নবাবগঞ্জ পুলিশ ঘাতক স্বামী মোঃ শহীদুল ইসলামকে গতকাল ( শনিবার ) রাতেই গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধৃত শহীদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন । আসামী শহীদুল ইসলামকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে ।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল