যশোর আজ সোমবার , ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২২ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

মাইক শেরিফ আবারও বাংলায় বই লিখেছেন

প্রতিবেদক
Jashore Post
ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২২ ৪:৩৮ অপরাহ্ণ
মাইক শেরিফ আবারও বাংলায় বই লিখেছেন
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

ভারতীয় উপমহাদেশের মানুষেরা ব্রিটিশ শাসনকালীন শাসকদের সম্পর্কে জানলেও সেসময়কার সাধারণ ব্রিটিশ নাগরিকদের জীবনযাত্রা সম্পর্কে খুব কমই জানে।এজন্য সেসময়কার ব্রিটিশ নাগরিকদের জীবনধারা তুলে ধরে মাইক শেরিফ আবারও বাংলায় বই লিখেছেন।

রোববার ( ২০ ফেব্রুয়ারি ) বিকেলে এই প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপে এমনটাই জানান মাইক শেরিফ। মাইক শেরিফের লেখা ‘এইমস শেরিফের জীবন’বইটি ঢাকার একুশে বইমেলায় নাগরী প্রকাশনীর ৪৮০ ও ৪৮১ স্টলে পাওয়া যাচ্ছে।

১৯৮৭ সালে উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার হয়ে শিশুদের নিয়ে কাজ করতে প্রথম বাংলাদেশে আসেন মাইক। বাংলাদেশে তার প্রথম ঠিকানা হয় কুড়িগ্রাম। সেই থেকে তিনি বাংলাদেশে আসা-যাওয়ার মধ্যে আছেন। শিশুদের নিয়ে কাজ করতে গিয়ে তার প্রধান সমস্যা হয়ে দাঁড়ায় ভাষা। এছাড়া এ দেশে থাকতে থাকতে এখানকার ভাষার প্রতিও ভালবাসা জন্মে যায় তার। ২০০৬ সাল থেকে বাংলা শিখতে শুরু করেন তিনি।

এর আগেও বাংলা ভাষায় বই লিখেছেন মাইক। ২০১৮ সালে একুশে বইমেলায় মাইকের প্রথম বাংলা বই ‘আমার জীবন এবং বাংলাদেশ’ প্রকাশ হয়। শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অসিম চৌধুরীর সহযোগিতায় তিনি বাংলা শিখেন। এরপর ২০১০ ও ২০১৩ সালে তিনি বাংলা ভাষায় মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের পড়াশোনা সম্পন্ন করেন। এরপর বাংলায় একটি বই লেখার আগ্রহ জাগে তার।

মাইক বলেন,তার এবারের বইটি ব্রিটিশ সাম্রাজ্য সম্পর্কে। তার প্রপিতামহের চাচাতো ভাই এইমস শেরিফের জীবন এবং ভারতের সরাসরি ব্রিটিশ শাসন প্রায় একই সময়ে ছিল।সে যুগের ব্রিটিশ সাধারণ মানুষের অবস্থা নিয়ে বাংলায় এখনো খুব বেশি লেখা হয়নি।

এইমস শেরিফ সম্পর্কে মাইক শেরিফ বলেন, বাইশ বছর পর্যন্ত এইমস শেরিফ পড়ালেখা করেননি। তিনি স্কুলে যেতেন না। তার পরিবারের দারিদ্র্যের কারণে তিনি খোলা ইটভাটায় কাজ করতেন। লেখাপড়া শুরু করেছিলেন খ্রিস্টান মিশনারির মাধ্যমে। পরে তিনি একজন সমাজতন্ত্রী ও শ্রমিকনেতা হয়েছিলেন। বেকার মানুষের আন্দোলনের নেতা ছিলেন তিনি। বিশেষ করে মানুষের ভোটাধিকারের ব্যাপারে গুরুত্ব দিয়েছিলেন।

আন্দোলনে নেতৃত্ব এবং স্থানীয় সরকার কাউন্সিলে কাজ করার কারণে এইমস শেরিফের জীবন সম্পর্কে নথিপত্র ও ছবি খুঁজে পাওয়া যায়। তাই অন্যসব সাধারণ মানুষের চেয়ে তার জীবনের বেশি তথ্য আছে। বই লেখার জন্য মাইক এসব তথ্য ব্যবহার করেছেন।

সর্বশেষ - সারাদেশ