যশোর আজ মঙ্গলবার , ১ ফেব্রুয়ারি ২০২২ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

বেনাপোল বহুমূখী মাধ্যমিক বিদ্যলয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের চড়ুইভাতি ও কিছু কথা

প্রতিবেদক
Jashore Post
ফেব্রুয়ারি ১, ২০২২ ৫:১১ অপরাহ্ণ
বেনাপোল বহুমূখী মাধ্যমিক বিদ্যলয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের চড়ুইভাতি ও কিছু কথা
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

ভারত সীমান্ত ঘেষা বন্দরনগরী বেনাপোলের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ বেনাপোল বহুমূখী বিদ্যালয়। কালের আবর্তে মূহুমার্ন রুপে এখনো দাড়িয়ে আছে স্বমহীমায়। এ বিদ্যালয় হতেই শিক্ষাগ্রহন করেই ব্যাক্তি জীবনে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে অনেকেই। আবার কেউ কেউ আলো ছড়িয়েছে সমাজে।এককথায় বেনাপোল বহুমূখী মাধ্যমিক বিদ্যালয় বেনাপোলবাসীর কাছে একটি আবেগ।

স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে সমাজ,সাংস্কৃতিক ফোরামে বেনাপোল বহুমূখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়কে রিপ্রেজেন্ট করার তেমন কেউ সুযোগ তৈরী না করলেও তথ্য প্রযুক্তির যুগে বেনাপোল বহুমূখী বিদ্যালয়েরই এক শিক্ষার্থী নিজ উদ্দোগ্যে বেনাপোল বহুমূখী মাধ্যমিক বিদ্যালয় সাবেক ও বর্তমান অনলাইন গ্রুপ নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি প্লাটফর্ম দাড় করায়।এই বিদ্যালয় পড়ুয়া সকলেই এ কাজে অভাবনীয় সাড়া দিলো।

শুরু হলো পথচলা,অবশেষে কোন এক মাহেন্দ্রাক্ষনে ঘটলো বেনাপোল বহুমূখী বিদ্যালয় পড়ুয়া সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের মিলনমেলা। বছর পেরিয়ে আবারো চুড়ুইভাতির আয়োজন,সকলের মাঝে উৎসাহ উদ্দীপণা বিরাজমান।পূর্বন্যায় আবারো সাড়া দিলো শিক্ষার্থীরা,বিত্তবান শিক্ষার্থীরা এগিয়ে এলো এ ভেবেই প্রাণবন্ত অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দেশবাসীর কাছে বেনাপোলকে তুলে ধরা হবে।

তৎক্ষণে ঘুণে ধরেছে প্লাটফর্মটি,লক্ষ্য বিচ্যুতি ঘটেছে যে সংগঠনটির তা বেরিয়ে আসলো মূল আয়োজনে অর্থাৎ চড়ুইভাতির দিন।সে কাজে বাঁধ সাধলো এক অদৃশ্য শক্তি,অরাজনৈতিক সংগঠনটি ব্যাবহার হতে লাগলো ব্যাক্তি তুষ্ঠিকরণ সহ তোষামোদি কাজে। অবলীলায় দর্শনার্থীরা দেখলো তোষামোদির দৃশ্যপট।

অনুষ্ঠান পরবর্তী সময়ে বেরিয়ে আসলো থলের বিড়াল। জানাগেল বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অন্তত ২০টিরও বেশী ব্যাচের শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে চড়ুই ভাতির আয়োজন ও সে লক্ষ্যে আয়োজক কমিটি গঠিত হলেও সিদ্ধান্ত গ্রহনসহ বাস্তবায়নে নেই কমিটির অনেক সদস্যই। শুরুহলো স্বচ্ছতার বীপরীতে গরমিল।বিদ্যালয়টির প্রবীন অনেক শিক্ষার্থী এবং চড়ুইভাতি আয়োজনের বড় অঙ্কের অর্থদাতারা ব্যাপারটা আগ হতে আঁচ করতে পেরেই হয়তো উপস্থিত হয়নি চড়ুইভাতি অনুষ্ঠানে।

প্রথমেই বলে রাখি সমাজের জন্য সকল মহৎ,দৃষ্টান্তমূলক ও মঙ্গলকর কাজকেই বিনম্র চিত্তে শ্রদ্ধা জানাই। তবে যদি হয় কোন দূরভীসন্ধি ও জনসাধারনের জন্য প্রতারণামূলক কাজ তবে নিজ সাধ্য অনুযায়ী স্বচেষ্ট থাকি গোমর ফাঁস করতে। সকল কাজেরই সমালোচনা থাকে,ভালো কাজ গুলিই সকল সমালোচনার উর্দ্ধে ওঠে কেবলই প্রতিষ্ঠিত হয় জনমনে। আজও আশা করি তার ব্যাতিক্রম ঘটবেনা।পাঠকেরাই বিবেচনা ও নির্ধারন করবে সমালোচনার প্রেক্ষাপট।

ভৌগলিক সীমারেখায় বাংলাদেশের বৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোলে অবস্থিত হওয়ায় এটি একটি বানিজ্যিক শহর। ইট পাথরের এ শহরে সকলে প্রায়ই কর্মব্যাস্ত।তাই সামাজিক কর্মকান্ডে নিজ উপস্থিতি নিশ্চিতের মাধ্যমে কার্যসম্পাদন করা দূরহ বলেই অনেকেই অর্থনৈতিক সহযোগীতার মাধ্যমে কোন কোন উদ্যেক্তাদের অন্ধেরমত সমর্থন করে থাকে।আমার দৃষ্টিতে ঠিক এমনি এক পরিবেশেই সৃষ্টি হয় বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের চড়ুই ভাতির আয়োজন।যার বাস্তবায়নে রয়েছে বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় সাবেক ও বর্তমান অনলাইন গ্রুপ।

আয়োজক কমিটি কর্তৃক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রকাশিত হিসাব অনুযায়ী চড়ুইভাতি অনুষ্ঠানের ব্যায় ১০ লাখ ২৭ হাজার ৩৩৩টাকা। বনভোজন স্থান বেনাপোলের পাশ্ববর্তী ইউনিয়ন বাহাদুরপুর ইউনিয়নের সজন সাহেবের ঘের,যাহার দুরুত্ব আনুমানিক বেনাপোল বাজার হতে ৬ কিঃমিঃ যাতায়াত খরচ জনপ্রতি ৫০টাকার উর্দ্ধে নই।

অংশগ্রহনকারীদের নিজ খরচে বনভোজনে যোগ দিতে হয়েছে এমনকি অংশগ্রহন নিশ্চিতে জনপ্রতি ৩৫০টাকা মূল্যের কুফন ক্রয় করতে হয়েছে। একাধিক ব্যাক্তিগত মানুষ প্রবেশ করানোর ক্ষেত্রেও জনপ্রতি বাড়তি ৩৫০টাকা গুনতে হয়েছে আয়োজক কমিটিকে। ১৯৭৬ সন হতে ২০২১ইং সন পর্যন্ত বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের মধ্যে ১৪২১জন চড়ুইভাতি- ২০২২অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছে। বাবুর্চিসহ অন্যান্য অতিরিক্ত লোকবল গননায় ধরা যাক ১৬৫০জন অংশ নিয়েছে চড়ুইভাতি অনুষ্টানে। তাহলে জনপ্রতি চড়ুইভাতি অনুষ্টান ব্যায় দাড়ালো প্রায় ৬২২টাকার কাছেই।

ব্যাপারটা অনেকটা এলাহী ব্যাপার তাইনা,আমিও প্রথমে এমনটি ভেবেছিলাম। কিন্তু পরবর্তী সময়ে তিক্ত অভিঙ্গতায় আমাকেই সমালোচক হতে হলো। চড়ুইভাতি পূর্ববর্তী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আয়োজক কমিটির প্রচার-প্রচারণার রং ঢং দেখে ভেবেছিলাম সত্যিকার অর্থে গত ২২ জানুয়ারী বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এক ঐতিহাসিক চড়ুইভাতি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় পড়ুয়া এক ছাত্র হিসাবে নির্ধারিত মূল্যে কুফন ক্রয় করে আমিও অংশগ্রহণ করি চড়ুইভাতি অনুষ্ঠানে।সেদিনকার কিছু তিক্ত মনের কথাই পাঠক কলামে তুলে ধরলাম।

হয়তো আমার মতই বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় পড়ুয়া অনেক প্রবীন ও নবীন শিক্ষার্থীও ব্যাথিত আয়োজক কমিটির অনিয়মের যাতাকলে। ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লেখা লেখীর মাধ্যমে অনেকেই আয়োজক কমিটির প্রতি বিষাদগার করেছে। আবার কেউ কেউ প্রসংশায় পঞ্চমুখ হয়ে উপহারও দিয়েছে আয়োজকদের।

তাতে ফল কি হয়েছে? কতিপয় স্বার্থন্বেষী ব্যাক্তির নীরব সমর্থনে চড়ুইভাতি-২০২২ এর আয়োজক কমিটির স্বেচ্ছাচারিতায় বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় পড়ুয়া শত শত শীক্ষার্থীর আবেগ,উৎকন্ঠাকে ধুলিস্যাৎ করে তাদেরকে অসন্মান করা হয়েছে। ভদ্রতার নিরিখে কিংবা বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় নামটির সন্মানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রতিবাদের ঝড় ওঠেনী তবে আমি নিশ্চিত ভবিষ্যত প্রতিদান ঠিকিই ফিরে পাবেন তারা।

এত ব্যায়বহুল আয়োজনের সার সংক্ষেপ হিসাবে খাবারের ম্যানু তুলে ধরলাম পাঠক কলামে। সাদা ভাত,রোস্ট,গরু/ খাসি,ডালের ছক্কা সাথে ক্লেমন। যতদুর জানি আয়োজক কমিটি টিস্যু,পানি,কোমলপানীয় সবই স্পন্সর পেয়েছে আয়োজক কমিটি। যা হোক একটি দামী হোটেলের বাজার মূল্য হিসাবে খাবার ম্যনুর মূল্য ২৯০টাকার বেশী হবেনা যেখানে আয়োজক কমিটির জনপ্রতি ব্যায় হয়েছে ৬২২টাকা।

বনভোজন বলে কথা সকলের প্রত্যাশা একটু বেশীই ছিলো,কেননা আয়োজকদের ফেসবুক ওয়ালে চড়ুইভাতিতে সহযোগীকারীদের সহযোগীতার ফিরিস্তি দেখলে সবারই চোখ ছানাবড়া হবে। তাদেরকে ধন্যবাদ জানাতেই হবে অকৃপন সহযোগীতার জন্য তবে “ অতি সন্ন্যাসীতে যে গাজন নষ্ঠ হয় ”হয়তো সেটা তাদের স্মরণে ছিলোনা।

বিনোদন হিসাবে বৈরী আবহাওয়াতে আধ্যত্তিক গানের আসর ঘন্টা খানিকের জন্য ব্যায় ধরেছে ৩৯হাজার৭শত টাকা। এর জন্য আবার সাউন্স সিস্টেম খরচ ৩০ হাজার ৪১৭টাকা। মোট মিলিয়ে ৭০হাজারের বেশী টাকা খরচে অংশগ্রহণকারীরা বিনোদন পেলো। যদিও আমার মত বেশীরভাগই বলবে বিনোদন নিয়েও স্বেচ্ছাচারিতা হয়েছে,কেননা আগত শিল্পি ওয়াজকুরনী ফকির সাহেব স্টেজের চাইতে ২ দিন ধরেই হোটেলের রুমে বসে গান গেয়েছেন বেশী যা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই দেখেছে। অথচো টাকাটা কিন্তু সাধারণ শিক্ষার্থীদের গুনতে হয়েছে।

এক কথায় স্বেচ্ছাচারিতা ও অব্যবস্থপনা ছিলো চড়ুইভাতির পরতে পরতে। খাবার সময় মাইকে ঘোষণা হলো হিন্দুরা খাবে খাসি আর মুসলমানরা খাবে গরু,মুরগী সবাই পাবে। কেউ একি সাথে গরু খাসি খেতে পারবেনা অথচো পরক্ষনে ঐ আয়োজক কমিটি জনসন্মুখে যারা বেশী টাকা ডোনার করেছে তাদের গুরু খাসি দুটোই খায়িয়ে তুষ্ট করেছে। অনেকেই আবার চাহিদামত খাবার পাইনী অথচো আয়োজক কমিটির অনেক খাদ্য উদৃত্ত ছিলো।

শুনেছি শেষমেষ অনেকের মাঝে বিলি হয়েছে অতিরিক্ত খাদ্য। এখন আমার কৌতুহল তাহলে চড়ুইভাতিতে কেন শ্রেনী বৈষম্য হলো। আয়োজক কমিটিকে যখন,বেশী টাকা না দিলে খাবার ব্যাপস্থপনায় বৈষম্য হয়,তখন নীরহ শিক্ষার্থীদের ( যারা আয়োজক কমিটিকে ৩৫০ টাকার বেশী দিতে পারেনী তাদেরকে ) চুড়ুইভাতিতে অন্তভূক্ত করিয়ে অপমান করার প্রয়োজন ছিলো কি?

বেনাপোল বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যলয়ের নাম ব্যাবহার করে স্বস্তা রাজনিতী করে সুনাম কুড়ানো বন্ধ করুন। নিরীহ শিক্ষার্থীদের ঘাড়ে ভর করে জনপ্রিয়তার চাদর শরীরে মোড়ানো যায়না, এটা সৃষ্টিকর্তাও সইবে না। আপনারা যারা সমাজ গড়নের স্বপ্ন দেখেন নেতৃত্বের স্বর্ন শিখরে চড়তে চান চড়েন না বাধা দিচ্ছে কে। তাই বলে আমাদের মত নীরহ শিক্ষার্থীদের মই বানিয়ে উপরে ওঠতে পারেন না।

চড়ুইভাতির আয়োজক কমিটির সার্বিক কর্মকান্ড ঘীরে যারা সমালোচনা করেও সু-বিচার চেয়েও পেশী শক্তির কাছে তাদের আকুতি নিগৃহীত হয়েছে। তারা একদিন তাদের বিচারের আকুতির মূল্যায়ন ঠিকই পাবে। আর যারা অদৃশ্য শক্তির ইন্ধনে চড়ুইভাতির নামে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে বৈষম্য করে অসন্মানিত করলো তারা একদিন আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবে যা ইতিহাস সাক্ষ্য দিবে।

লেখক- মাহমুদুল হাসান

বিঃদ্রঃ-পাঠক কলামের লেখা সম্পূর্ন লেখকের ব্যাক্তিগত মতামত।লেখার ভূল-ত্রুটির জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ভাবেই দায়ী নই।

সর্বশেষ - সারাদেশ