যশোর আজ বুধবার , ৯ মার্চ ২০২২ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ ও বন্দর ব্যবহারকারী সংগঠন

প্রতিবেদক
Jashore Post
মার্চ ৯, ২০২২ ৫:২৪ অপরাহ্ণ
বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ ও বন্দর ব্যবহারকারী সংগঠন
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

ভৌগলিক সীমারেখায় ভারত সীমান্ত ঘেষা জনপদেই অবস্থিত বাংলাদেশের বৃহৎ স্থল বন্দর বেনাপোল বন্দর। ভারত- বাংলাদেশের মধ্যে সিংহ ভাগ পন্যই আমদানী হয় এই বন্দর দিয়ে। এ বন্দরে আগত আমদানী পন্যের শুল্ক নির্ধারনের জন্য রয়েছে বাংলাদেশ কাস্টমস হাউসের অন্যতম শাখা বেনাপোল কাস্টমস হাউস। সরকারী

রাজস্ব আহরোন গতি বৃদ্ধিতে আমদানি কাজে সহায়তা প্রদানের ক্ষেত্রে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সরকারী বিধি মোতাবেক সি এন্ড এফ লাইসেন্স প্রদান করে থাকে। যা নিয়েও বাধে তুঘলকী কান্ড। অর্থবানিজ্যের হিড়িকে মেতে ওঠে কাস্টমস কর্তারা।

এ দৌড়ে যাহারা সোনার হরিন নামক এই লাইসেন্সটি পেয়েছেন তারাই হলো কাস্টমস কার্যক্রমে সহযোগীতা করার বৈধ্য সদস্য।সরকারী রাজস্ব আহরোনের ক্ষেত্রে এরাও বড় ভূমিকা পালন করে থাকেন। তবে শুরু হতেই তাদের কাস্টমস কর্তৃপক্ষের অনুকুলে থাকতে হয় তাই তাদের স্বাধীন ব্যবসা পরিচালনা করতে গিয়েও অনেকাংশে পরাধীনতার বেড়ি পড়ে থাকতে হয়।

কালের আবর্তে আধুনিকায়নের যুগে ব্যবসা পরিচালনা কাজে কাস্টমস কর্তৃপক্ষের নানা অনিয়ম ও নিষ্পেষণ রুখতে একত্রিত হয়ে দেশ ব্যাপী স্ব স্ব অঞ্চল ভেদে ভিন্ন ভিন্ন নামে ব্যবসায়িক সংগঠন গড়ে তুলেছেন। এবার আসি বন্দর ব্যবহার কারী সংগঠন গুলোর কথায়।

একজন আমদানী কারককে যেমন ভারত হতে পণ্য আমদানী করতে কাস্টমস কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সরকারী রাজস্ব প্রদান করতে হয় তেমনী ভাবে ঐ প্রক্রিয়াগুলো দ্রুত গতিতে সম্পন্ন কাজে সহায়তা নিতে সরকারী লাইসেন্স প্রাপ্ত সি এন্ড এফ এজেন্ট ব্যবসায়ীদের শরনাপন্ন হতে হয়।

সি এন্ড এফ এজেন্ট মালিক তার কাজের সুবিধার্তে লোকবল বাড়াতে তার প্রতিষ্ঠানে বিধি অনুযায়ী কর্মচারী নিয়োগ দেন।আর যাহারা সি এন্ড এফ এর প্রতিনিধি হিসাবে কাস্টমস হাউসে কাজ করার আবেদন জানান,যাচাই বাছাই শেষে তাদের বৈধতা প্রদান করেন কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। এসমস্ত কর্মচারীরা মালিক কর্তৃক ন্যায্য পাওনা আদায়ের লক্ষ্যে একত্রিত হয়ে গড়ে তুলেছেন সংগঠন,যা সি এন্ড এফ এজেন্ট কর্মচারী সংগঠন নামে পরিচিত।

পাঠক সুবির্ধাতে বলে রাখি পন্য আমদানী প্রক্রিয়া কয়েকটি ধাপে সম্পন্ন হয়।যেমন ধরেন ভারত হতে একটি পন্য ট্রাকে করে বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করে। সেখান হতে পন্য গুলো লোকবল দ্বারা ( ম্যানুয়াল/ ইকুইপমেন্ট ) খালাস করা হয়। আবারো কাস্টমস অনুমোদন ও বন্দর ছাড়পত্র প্রদান সাপেক্ষ্যে ঐ সমস্ত পন্য বাংলাদেশী যানবাহনে বোঝাই হয়ে দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে পৌঁছায়।

এ সমস্ত কাজগুলো যারা সম্পাদন করে তাদের কে শ্রমিক বলা হয়। তাহলে আমরা দুটি শ্রেনীতে তাদের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে সংগঠিত হলে আরো দুটি সংগঠনের দেখা পেলাম।একটি হলো বন্দর ব্যাবহার কারী শ্রমিক সংগঠন,অন্যটি যানবাহ মালিক সংগঠন।

দেশেরে বিভিন্ন প্রান্ত হতে আসা এই যানবাহন গুলোতে নিরাপদে ও চুক্তিতে আমদানী পন্য পৌঁছানো কাজে আরো একটি প্রতিষ্ঠান কাজ করে যাদের কে আমরা ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি হিসাবে চিনি ও যাহারা সরকারী ভাবে বৈধ্য ও লাইসেন্স প্রাপ্ত। এ সমস্ত এজেন্সিগুলো তাদের ব্যবসায়িক সুবির্ধাতে একত্রিত হয়েই গড়ে তুলেছে সংগঠন। যাদেরকে আমরা ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতি হিসাবে জানি।

তাহলে আরো একটি বন্দর ব্যবহার কারী সংগঠনের দেখা মিললো। এবার বলি যানবাহন মালিকদের মত চালকদের ও একটি সংগঠন রয়েছে,যা ট্রাক চালক শ্রমিক সংগঠন হিসাবে পরিচিত। এমনি কয়েকটি স্তরে বেনাপোল স্থল বন্দর এলাকায় বন্দর ব্যবহারকারী কয়েকটি সংগঠন রয়েছে যাহারা সরকারী রাজস্ব আহরনে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখে।

পাঠক সুর্ধিাতে ধরা যাক সমস্ত প্রক্রিয়াটি যদি আমি একটি মোবাইল ফোনের সাথে তুলনা করি তাহলে বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ হলো একটি মাদার বোর্ড আরা অন্যান্য বৈধ্য লাইসেন্স প্রাপ্তরা হলো ডিস্পেলে,ক্যাচিং ও ব্যাটারীর মতই।

একজন আমদানী কারকের বাইরে হতে পণ্য আমদানী কাজে সকলকেই প্রাধান্য দিতে হয়। কেননা এখানে সকলের কার্যক্রমই গুরুত্ব পূর্ণ। সকলেই সকলের পরিপূরক। কাউকে অগ্রাহ্য করেই একজন আমদানী কারক পণ্য নির্দিষ্টি স্থানে একক ক্ষমতা বলে নিতে পারবেনা তবে ব্যাতিক্রম থাকতে পারে সরকারী কাজে। সুতারাং সকল প্রতিবন্ধকতা এড়াতে একজন আমদানী কারক সি এন্ড এফ এজেন্ট ব্যবসায়ীর উপরই নির্ভর করে।

এই ব্যবসায়ী তার কাজের সুবির্ধাতে বাকী সকল শাখা বা সংগঠনকে নিয়ন্ত্রণ করে থাকে।বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ ও বন্দরব্যবহারকারী সংগঠনগুলোর মধ্যে সৃষ্ট বিবাদমান সমস্যা বহু পুরানো। সাম্প্রতিক সময়ে বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষের হঠকারী সিন্ধান্তে বন্দর ব্যবহারকারী সংগঠনগুলোর তীব্র আন্দোলনের মুখে বেনাপোল বন্দরে বন্ধ হয়ে পড়ে আমদানী-রপ্তানী কার্যক্রম।

বিভিন্ন গনমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের তথ্য অনুযায়ী বেনাপোল বন্দর ব্যবহারকারী সংগঠনগুলোর কর্মবিরতির মুখে প্রায় ১০০ কোটি টাকা সরকার রাজস্ব হারিয়েছে। কেনই বা দন্দ? কেন আন্দোলন? এ দ্বায় কার-

মাহমুদুল হাসান
লেখক ও সাংবাদিক

বিঃদ্রঃ পাঠক কলামের লেখা সম্পূর্ন লেখকের নিজিস্ব মতামত।এর জন্য প্রকাশক বা কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল