যশোর আজ সোমবার , ৮ নভেম্বর ২০২১ ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

বেনাপোল কাস্টমস ও বন্দরের ৩২ কর্মকর্তার নামে মামলা

প্রতিবেদক
Jashore Post
নভেম্বর ৮, ২০২১ ৫:৪৭ অপরাহ্ণ
বেনাপোল কাস্টমস ও বন্দরের ৩২ কর্মকর্তার নামে মামলা
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

নিজিস্ব প্রতিবেদক:: দূর্নীতি-অনিয়মের অভিযোগে বেনাপোল কাস্টমস হাইসের সাবেক ও বর্তমান কমিশনারসহ ৩২ জন কর্মকর্তার নামে যশোর আদালতে মামলা হয়েছে।

রবিবার সিএন্ড এফ এজেন্ট ব্যবসায়ী মেসার্স সাগর এন্টার প্রাইজ এর সত্তাধিকারী মোঃ আকবর আলী বাদী হয়ে সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতে এ মামলা দ্বায়ের করেছেন।

মামলার আসামিরা হলেন, বেনাপোল কাস্টমস হাউসের বর্তমান কমিশনার মোঃ আজিজুর রহমান, সাবেক কমিশনার বেলাল হোসাইন চৌধুরী অতিরিক্ত কমিশনার ডঃনেয়ামুল ইসলাম,বর্তমান উপ কমিশনার এস এম শামীমুর রহমান, বিল্লাল হোসেন,পারভেজ রেজা চৌধুরী,অনুপম চাকমা,সহকারী উত্তম চাকমা, দিপারানী হালদার,মুর্শিদা খাতুন।

এইচ এম আহসানুল কবীর,সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা ( কার্গো শাখা ) শামিম হুসাইন,কামাল হোসেন,নূরে আলম,জিএম আশরাফুল আলম ,বিকাশচন্দ্র মন্ডল, সাজেদুর রহমান,সাখাওওয়াত হোসাইন, এস এম মেজবা উদ্দিন, রাজস্ব কর্মকর্তা নূর মোহাম্মদ,মৃণাল কান্তি সরকার,স্বপন কুমার দাস,এস এম আজিজুর রহমান।

এস এম বদিউজ্জামান, বেনাপোল বন্দরের উপপরিচালক ( ট্রাফিক ) আব্দুল জলিল,মামুন তরফদার,সহকারী পরিচালক আতিকুর রহমান,লাকি বেগম, উপসহকারী পরিচালক ( যান্ত্রিক ) শিমরান হোসেন.ও্যয়ার হাউসের সুপারেন্টেড আবু রাসেল ও কমপিউটার অপারেটর রনি কুমার বসাক।

সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক মোঃ ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিক অভিযোগের তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার দূর্নীতি দমন কমিশনকে নির্দেশ দিয়েছেন বলে আদালত সূত্রে জানা যায়।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, ঢাকার মিরপুরের সোজেল এন্টার প্রাইজ নামের আমদানী কারক প্রতিষ্ঠান ২০১৯ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর ১৩৮ প্যাকেজ গার্মেন্টস পণ্য সহ অন্যান্য পন্য আমদানি করে। পন্য চালানটি ভারতীয় কাস্টমস ৩ হাজার ২শ ৭৯দশমিক ৪০ কেজি ওজন ঘোষণা দিয়ে এ দেশে পাঠায়। পন্য চালানটি বেনাপোল বন্দরের ১ নং শেডে রাখা হয়।

মামলার ৭ নং আসামী সহকারী কমিশনার দিপা রানী হালদারের নেতৃত্বে একটি টিম শেডে গিয়ে পণ্য চালানটির কায়িক পরীক্ষা করেন। সেখানে অতিরিক্ত কোন পন্য পাওয়া যায়নী। ওই বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর কাস্টমস কর্মকর্তা পন্য বেশী থাকার কারন দর্শানোর নোটিশ দেন। নোটিশের জবাব দেওয়ার পরও ৩ হাজার৬শ ৭২ কেজি পণ্য দেখিয়ে একটি প্রতিবেদন দিয়ে শুল্কায়নের প্রস্তাব করেন।

এ ঘটনায় বেনাপোল কাস্টমস হাইসের তৎকালীন কমিশনার বেলাল হোসাইন আমদানিকারককে ৪ লাখ টাকা জরিমানা করেন। এরপরও আমদানি কারকের পক্ষে সি এন্ড এফ এজেন্ট চলতি বছরের ৫ আগস্ট পণ্য খালাস নেওয়ার জন্য আবেদন করেও পন্য নিতে পারেনী। সাথে সাথে আমদানি কারক প্রতিনিধি মেসার্স সাগর এন্টার প্রাইজের লাইসেন্স বাতিল ঘোষণা করেন।

এর আগে ৩ নং আসামী নেয়ামুল ইসলাম পণ্য খালাস দেওয়ার কথা বলে প্রতিনিধির কাছ থেকে ৩ লাখ টাকা গ্রহণ করেন ও লাইসেন্স অবমুক্ত করার জন্য আরো ২ লাখ টাকা ঘুস দাবি করেন। মামলার আসামীরা দুর্নীতির মাধ্যমে লাভবান হতে পন্য খালাসে বাঁধা ও লাইসেন্স বাতিল করে বাদীর আর্থিক ক্ষতি করেছেন। এ বিষয়ে দুদুকে অভিযোগ জানিয়ে প্রতিকার না পাওয়ায় ন্যায় বিচারের স্বার্থে বাদী আদালতে মামলা করেছেন।

মামলা দ্বায়েরের বিষয়ে জানতে বেনাপোল কাস্টমস কমিশনারের সাক্ষাৎ না পাওয়ায় বিবৃতি জানা সম্ভব হয়নী। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক সি এন্ড এফ এজেন্ট ব্যবসায়ী জানান, বেনাপোল কাসস্টমস কর্মকর্তাদের ঘুস বানিজ্য বহু দিনের। তাদের চাহিদা মত ঘুস দিতে না পারলে পন্য ছাড় করাতে নানা ভাবে হয়রানী পেতে হয়।

প্রতিবাদ জানালে লাইসেন্স বাতিল সহ লক করে ঘুস প্রদানে বাধ্য করে সি এন্ড এফ এজেন্ট ব্যবসায়ীদের। এনবিআর,দুদক সহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরের হস্তক্ষেপ চেয়ে অচিরেই বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষের এই জিম্মি দশার আবসান চান ভূক্তভোগীরা।

সর্বশেষ - সারাদেশ

আপনার জন্য নির্বাচিত