যশোর আজ মঙ্গলবার , ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

বেনাপোলে হুন্ডি ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ব বৃদ্ধিতে প্রতারিত হচ্ছে পাসপোর্ট যাত্রী

প্রতিবেদক
Jashore Post
ফেব্রুয়ারি ৬, ২০২৪ ৩:৪০ অপরাহ্ণ
বেনাপোলে হুন্ডি ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ব বৃদ্ধিতে প্রতারিত হচ্ছে পাসপোর্ট যাত্রী
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

স্টাফ রিপোর্টার :: যশোরের বন্দরনগরী বেনাপোলে হুন্ডি ব্যবসায়ী ও দালাল চক্রের দৌরাত্ব বৃদ্ধিতে ভারত গমনের জন্য দেশের বিভিন্ন জেলা শহর হতে আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনালে আগত পাসপোর্ট যাত্রীদের  হয়রানীসহ বিড়ম্বনা পোহাতে হচ্ছে।

ইমিগ্রেশানটির আশ-পাশে অবস্থিত অবৈধ্য ভূইফোঁড় প্রতিষ্ঠানের আধিক্যে বেনাপোলে আগত পাসপোর্ট যাত্রীরা প্রতিনিয়ত অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ ও প্রতারিত হচ্ছে।এসব প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমে সরকার রাজস্ব বঞ্চিত হলেও নেই কার্যত পদক্ষেপ।

স্টেশনটিতে কর্মরত একাধিক অসাধু প্রশাসনিক কর্মকর্তার অনিয়ম,স্বেচ্ছাচারিতায় যাত্রী সেবামান তলানীতে। বীপরীতে বেড়েছে  দূর্নীতি, ঘুস-বানিজ্য, চাঁদাবাজি,ছিনতাই ও অবৈধ্য পণ্য পারাপার।

স্টেশনটি হতে অনৈতিক সুবিধা পেতে চেকপোস্ট ইমিগ্রেশানকে ঘীরে কাস্টমস,স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন,সাংবাদিক,স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও আইনশৃঙ্খলা কাজে নিয়োজিত বিভিন্ন সংস্থার একাধিক অসাধু কর্মকর্তা যোগসাজে একটি শক্তিশালী নেটওর্য়াক গড়ে ওঠেছে বলে একাধিক প্রিন্ট পত্রিকায় খবর প্রকাশ হয়েছে।

এতেও টনক নড়েনি সংশ্লিষ্ট মহলের। মুখে কুলুপ এটে বসে আছে সবাই। যাত্রী হয়রানী  বন্ধে বা হুন্ডি ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে নেই কোন প্রশাসনিক অভিযান।এতে করে স্টেশনটিতে আগত পাসপোর্ট যাত্রীরা জিম্মি দশায় পড়ছে নিয়ত।

গত ২৩ জানুয়ারী ভারত ফেরত পাসপোর্ট যাত্রী পিরোজপুর জেলার সদর উপজেলার শিকারপুর গ্রামের পরিমল চন্দ্র রায়ের ছেলে পিজুস কান্তি রয় এর এক লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে বেনাপোল পোর্টথানা পুলিশ হুন্ডি ব্যবসায়ী চক্রের সদস্য রানাকে আটক করে।

আটক অভিযানে অংশ নেওয়া বেনাপোল পোর্টথানার এস আই রাজু অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,ভূক্তভোগী পাসপোর্ট যাত্রী ভারত গমনের প্রাক্কালে কুয়াকাটা এক্সপ্রেসে কর্মরত সাদীপুর গ্রামের ইদুর ছেলে জসিমের কথা মত তার নিকট ৬০ হাজার রেখে যায়।

ভারতীয় ইমিগ্রেশানের কাজ শেষে জসিমের কাছে রাখা টাকা উত্তোলনের সময় ২০ হাজার টাকা কম পাওয়ায় যাত্রী ভারত ভ্রমণ শেষে দেশে ফিরে থানায় অভিযোগ করেন।

সেমত জসিমের সহযোগী রানাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হয়। ভূক্তভোগী তার পাওনা টাকা ফিরে পাওয়ায় ও রানার বিরুদ্ধে অভিযোগ না থাকায় তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

প্রতারক ও হুন্ডি চক্রের সদস্য পুলিশ প্রশাসনের কাছ হতে ছাড় পাওয়ার ঘটনায় এলাকা জুড়ে সমালোচনার ঝড় বইছে।পুলিশের এহেন প্রশ্নবিদ্ধ কান্ডে প্রতারকরা উৎসাহিত হবেন বলে এলাকার বিশিষ্টজনদের অভিমত।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,স্টেশনটিতে প্রতিদিনই দায়িত্বরত প্রশাসনিক অফিসারদের ইন্ধনে পাসপোর্ট যাত্রীদের সাথে একাধিক বহিরাগত লোক প্রবেশ করে যাহারা বিভিন্ন পরিবহন কাউন্টার ও মানিএক্সচেঞ্জ প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছে।

মূলত ভারত হতে পাসপোর্ট যাত্রীর সাথে আনা পন্যের সরকারী শুল্ক ফাঁকি দেওয়া,পাসপোর্ট যাত্রীর সাথে থাকা বেআইনি পণ্য নির্বিঘ্নে পারাপার করাই তাদের কাজ। দিন বা সপ্তাহ চুক্তিতে প্রশাসনের একাধিক সেক্টরে নিয়োজিত কর্তা ব্যাক্তিদের বড় অংকের টাকা ঘুস দিয়ে থাকে তাই যাত্রী হয়রানী বা প্রতারণার অভিযোগ ওঠলেও কেউ টিকিটি ছুঁতে পারেনা।

ইমিগ্রেশান চত্তরে যাত্রী সেবা বিষয়ে যশোরের নাভারন সার্কেলের সিনিয়র এ এসপি নিশাত আল নাহিয়ান জানান, বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশান এলাকায় বহিরাগত দালাল,ছিনতাইকারীদের অপকর্ম রুখতে প্রতিদিন ভোর ৪ টা হতে সকাল ৭টা পর্যন্ত বেনাপোল পোর্টথানা পুলিশকে ডিউটি করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এছাড়াও যাত্রীর অভিযোগ পেলেই ( ভূইফোঁড় প্রতিষ্ঠান, ছিনতাইকারী,দালাল ) অভিযুক্তদের  আইনের আওতায় এনে মামলা দিয়ে কোর্টে সোপার্দ করা হবে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল