যশোর আজ রবিবার , ৬ আগস্ট ২০২৩ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

বেনাপোলে সড়কে আনিকার মৃত্যু ও শীক্ষার্থীদের নিরাপদ সড়কের দাবী

প্রতিবেদক
Jashore Post
আগস্ট ৬, ২০২৩ ১০:২৯ অপরাহ্ণ
বেনাপোলে সড়কে আনিকার মৃত্যু ও শীক্ষার্থীদের নিরাপদ সড়কের দাবী
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

মানুষ মাত্রই মৃত্যু অবধারিত। তবে সে মৃত্যু যদি হয় অনাকাঙ্খিত বা অবহেলায় তা প্রতিটি বিবেক বোধ সম্পন্ন মানুষকে জাগ্রত করে বিচারের দাবীতে সৃষ্টি হয় জনরোষ। শুরু হয় আন্দোলন ও প্রতিষ্ঠিত হয় যৌক্তিক দাবী।

গত বুধবার ( ২ আগস্ট )স্কুলে আসার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে বেনাপোল পৌরসভাধীন চেকপোস্ট এলাকায় রাস্তাপারের সময় বেপরোয়া গতিতে চলা ট্রাকের চাকায় পিষ্ঠ হয়ে সড়কে প্রান হারায় মরিয়ম মেমোরিয়াল বালিকা বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেনির মেধাবী ছাত্রী মোছাঃ আনিকা আক্তার শরিফা।

পাথরের ঐ পিচঢালা সড়কে আনিকার পড়ে থাকা নিথর দেহ,রক্তমাখা স্কুলড্রেস,টায়ারের নিচে পড়ে থাকা জুতা ও স্কুল ব্যাগ দেখে শিহরিত হয়েছিলো এলাকার সকল শ্রেনী-পেশার মানুষ। মুহুর্তের মধ্য শোকেরে কালো ছায়া নেমে আসে বেনাপোলে।পরিবার,স্বজনদের করুন আর্তনাদে আকাশ বাতাস ভারী হয়ে ওঠে। তাৎক্ষনিক আনিকার অকাল মৃত্যু মানতে না পারাই যশোর কোলকাতা মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে প্রতিবাদ জানাই গ্রামবাসী।

নিহত শিক্ষার্থীর পিতা আলমগীর হোসেন ও বড়আঁচড়া গ্রামের নবনির্বাচিত কাউন্সলির কামাল হোসেন গনমাধ্যমকর্মীদের কাছে দেওয়া বক্তব্যে আনিকার অকাল মৃত্যুর কারন হিসাবে ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের চাঁদাবাজিকে দ্বায়ী করেন।

মেধাবী ছাত্রীর অকাল মৃত্যুতে ফুঁসে ওঠে শিক্ষার্থীরা।সহপাঠীসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা সাথে সাথে রাজপথে নেমে আনিকার অকাল মৃত্যু ও সড়কে অব্যবস্থপনায় জানযটের প্রতিবাদ জানিয়ে মানববন্ধন করেন। একই দিন ঘাতক চালকের শাস্তি নিশ্চিত করা,মোড়ে মোড়ে ট্রাফিক ব্যবস্থা জোরদার করা, বিদ্যালয়ের সন্মুখে স্পীড ব্রেকার স্থাপন,শিক্ষার্থীদের রাস্তাপারাপারের সুবিধার্তে ফুট ওভার ব্রীজ নির্মান,ফুটপাত অবমুক্তকরনের দাবী জানিয়ে ১৫দিন সময় বেধে দেন শিহ্মার্থীরা।

এ দাবী আদায়ের লক্ষে সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে বেনাপোলের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণে বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় সাবেক বর্তমান নামের অনলাইন গ্রুপ রবিবার ( ৬ আগস্ট ) বেনাপোল কাস্টমস হাউসের সামনে “ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ”এর ডাক দেন। আচমকা ৫ আগস্ট শোকের মাস আগস্ট এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের চলমান পরীক্ষার কথা বিবেচনা করে কর্মসূচী স্থগিত করেন।

“ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ স্থগিত করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা চালানোর পরও নিরাপদ সড়কের দাবীতে রবিবার সকাল ১০টায় বেনাপোল কাস্টমস হাউসের সন্মুখ সড়কে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে মরিয়ম মেমোরিয়াল বালিকা বিদ্যালয় ও বেনাপোল ডিগ্রি কলেজের আনুমানিক ১হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এর আগে নিরাপদ সড়ক ও আনিকার মৃত্যুর নায্য বিচার চেয়ে বেনাপোল বাজারে মিছিল করে বেনাপোল ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থীরা।

বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় সাবেক ও বর্তমান অনলাইন গ্রুপের এহেন কর্মকান্ডে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হওয়াসহ শিক্ষার্থীদের দাবী আদায়ে যৌক্তিক কর্মসূচী পালনে বাধাগ্রস্থ হয়েছেন জানান সহপাঠীরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও চলছে সমালোচনার ঝড়। গ্রুপটির কর্মকান্ড সন্দেহভাজন বলে মনে করছেন এলাকাবাসী।

এখনো পর্যন্ত প্রশাসন বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কর্তৃক শিক্ষার্থীদের সন্তোষজনক জবাব না পাওয়ায় আনিকার মৃত্যুর ৪র্থ দিনে আবারো রাজপথে প্রতিবাদ র‌্যালী ও মানববন্ধন করলো শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের দাবি তাদের দাবী পূরনে একটি স্বার্থন্বেষী মহল ষড়যন্ত্র করছে যার কারনে তাদের কর্মসূচী বাধাগ্রস্থ হচ্ছে।

বেনাপোলে সড়ক দূর্ঘটনায় স্কুল ছাত্রী নিহতের খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সড়কের যানযট নিরসন সকলের দাবীর মুখে তা গণদাবীতে পরিনত হয়েছে। এই দাবী আদায়ের লক্ষ্যে সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে স্বেচ্ছার বেনাপোলের শিক্ষার্থীসহ সব শ্রেনী পেশার মানুষ।

তবে কি ফরমায়েশী আদেশ বাস্তবায়ন করা কিংবা নিরাপদ সড়কের দাবীতে শিক্ষার্থীদের একাত্বতায় ফাটল ধরাতে বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় সাবেক ও বর্তমান অনলাইন গ্রুপের অপচেষ্ঠা এমন প্রশ্ন জনমনে?

ঘাতক ট্রাক চালকের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠিয়েছে পোর্টথানা পুলিশ প্রশাসন। রাস্তার দুই পাশে খালি ট্রাক না রাখতে প্রচার মাইক চললেও যত্রতত্র যানবাহন পার্কিং অব্যাহত রয়েছে। ফুটপাত ছিন্নমূল ব্যবসায়ীদের দখলে,হয়নী ট্রাফিক ব্যবস্থার উন্নয়ন,সড়কে বসেনী স্পীড ব্রেকার।

কেন এই ধোয়াশা? সড়কে আর কত আনিকার রক্ত গড়ালে হুশ ফিরবে সমাজ কর্তাদের। যেখানে বন্দর ব্যবহারকারী ৬/৭টি সংগঠন তাদের ব্যবসায় কিঞ্চিত টান ধরলে বন্দর অচল করে দেয় সেখানে আনিকার মৃত্যুতেও তারা মুখে কুলুপ এটে বসে আছে।

আজ দরিদ্র অসহায় ভাজা বিক্রেতার মেয়ে আনিকার পাশে নেই ক্ষমতাধর কোন ব্যক্তি তাইতো অনাকাঙ্খিত মৃত্যুর জন্য দায়ী ট্রাক শ্রমিক সংগঠনের বিরুদ্ধে নেওয়া হয়নী প্রশাসনিক ব্যবস্থা।

তবে কি শীক্ষার্থীদের দাবি পূরন হলে ক্ষতি হবে স্বার্থন্বেষী মহলের তাই তারা মরিয়া হয়ে ওঠেছে শীক্ষার্থীদের আন্দোলন দমাতে।এরা কোন অপশক্তি যারা লাশের বিনিময়ে টাকার পাহাড় গড়ে, আর সে কালো টাকা দিয়েই ধামাচাপা দেয় অসহায় পরিবারের সন্তান হারানোর আকুতি,হাজারো শিক্ষার্থীর সড়কে নিরাপত্তার দাবী।

আজ যাহারা পর্দার আড়ালে থেকে কলকাঠি নেড়ে নিজেদের স্বার্থে বেনাপোলের শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবী আদায় নস্যাৎ করতে সচেষ্ট তাদের মুখগুলো কি কখনোই উন্মোচিত হবেনা। সকল আধার কেটে নতূণ সূর্য উদিত হবে নিশ্চিয়ই,পরাজিত হবে অপশক্তি এমনই প্রত্যাশায় রইলাম আনিকার সকলসহপাঠী যোদ্ধাদের সাথে আমরাও।

লেখক- মাহমুদুল হাসান

বিঃ দ্রঃ- পাঠক কলামের সম্পূর্ন লেখকের নিজিস্ব মতামত।লেখার ভুল-ত্রুটির জন্য প্রকাশক কোন ভাবে দায়ী থাকবেনা।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল