যশোর আজ বৃহস্পতিবার , ১০ মার্চ ২০২২ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

বিশ্ব কিডনি দিবস আজ

প্রতিবেদক
Jashore Post
মার্চ ১০, ২০২২ ১০:৩৩ পূর্বাহ্ণ
বিশ্ব কিডনি দিবস আজ
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

আজ বিশ্ব কিডনি দিবস। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও বিভিন্ন কর্মসূচিতে বিশ্ব কিডনি দিবস পালিত হচ্ছে। দিনটি উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

প্রতি বছর মার্চের দ্বিতীয় বৃহস্পতিবার এই দিবসটি পালিত হয়।চলতি বছর দিবসটির মূল প্রতিপাদ্য হচ্ছে—‘সুস্থ কিডনি সবার জন্য-জ্ঞানের সেতুবন্ধনে সাফল্য’।

কিডনি দিবস উপলক্ষে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি বাংলাদেশ কিডনি ফাউন্ডেশন, ক্যাম্পস, বাংলাদেশ রেনাল অ্যাসোসিয়েশন, পেডিয়াট্রিক নেফ্রোলজি সোসাইটি অব বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়সহ ( বিএসএমএমইউ ) বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

দিবসটি উপলক্ষ্যে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব কিডনি ডিজিজ অ্যান্ড ইউরোলজি হাসাপাতাল রাজধানীতে এক আলোচনা সভার আয়োজন করেছে। সভায় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

দেশের কিডনি রোগীদের চিকিত্সা পেতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। যে পরিমাণ রোগী রয়েছে, সে অনুযায়ী চিকিত্সাব্যবস্থা নেই। ডায়ালাইসিস সেবা পাওয়া যেন অনেকটা ভাগ্যের ব্যাপার। ডায়ালাইসিস করতে অনেকের এক মাস পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। যাদের সপ্তাহে দুই দিন ডায়ালাইসিস করে বেঁচে থাকতে হয়, তাদের কী অবস্থা হয়, সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

কিডনি চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। চিকিৎসার ব্যয় বহন করতে গিয়ে নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্ত এমনকি অনেক উচ্চবিত্তও সর্বস্বান্ত হচ্ছেন। দেশে কিডনি রোগীদের মধ্যে অনেকেই দরিদ্র। চিকিৎসার জন্য সরকারি হাসপাতালই তাদের একমাত্র ভরসা। কিন্তু দেশে সরকারিভাবে একমাত্র ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব কিডনি ডিজিজ অ্যান্ড ইউরোলজি হাসাপাতালে কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট হয়। আর কিডনি ডায়ালাইসিস হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

এছাড়া স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় এবং বেসরকারি কিডনি ফাউন্ডেশনে কিডনি ডায়ালাইসিস হয়। এই দুটি হাসপাতালে তুলনামূলক কম মূল্যে কিডনি চিকিৎসা হয়। এই দুটি হাসপাতালে নিয়মিত কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট হচ্ছে। আর বেসরকারি আরো কিছু হাসপাতালে কিডনি চিকিৎসা হলেও সেখানে মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তের ব্যয়ভার বহন করা সম্ভব হয় না।

সারা দেশ থেকে কিডনি রোগীরা চিকিৎসা পেতে ঢাকায় চলে আসেন। দিনে ১০০ জনের ডায়ালাইসিসের প্রয়োজন হলেও মাত্র চার জনকে দেওয়া সম্ভব হয়। এ অবস্থার পরিবর্তন না হলে দ্রুত হারে বৃদ্ধি পাওয়া কিডনি রোগ অচিরেই মহামারি আকার ধারণ করতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

গ্রামাঞ্চলের রোগীদের সুচিকিত্সার জন্য প্রত্যেক সরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পৃথক কিডনি ইউনিট চালু, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নিয়োগ, জেলা শহরে অন্তত একটি ডায়ালাইসিস সেন্টার এবং উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে স্ক্রিনিং প্রোগ্রাম চালু করার তাগিদ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে রোগপ্রতিরোধে সচেতনার কোনো বিকল্প নেই বলে বিশেষজ্ঞরা অভিমত ব্যক্ত করে বলেন, যেসব কারণে কিডনি নষ্ট হয় সেই ব্যাপারে মানুষজনকে সচেতন করে তুলতে হবে।

দেশে কিডনি রোগে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছেই। কিডনি রোগীর সঠিক পরিসংখ্যান নেই। প্রায় ২০ বছর আগের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২ কোটির বেশি মানুষ কিডনি রোগে আক্রান্ত। কিন্তু বাস্তবে বর্তমানে কিডনি রোগী কয়েক গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ডায়বেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, খাদ্যে ভেজাল, কেমিক্যাল সংমিশ্রণে উত্পাদিত খাদ্যসামগ্রী, পরিবেশগত, ভেজাল ওষুধ ও অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার, ব্যথানাশক ওষুধ সেবনসহ নানা কারণে দেশে কিডনি রোগী বৃদ্ধি পাচ্ছে।

শিশু কিডনি রোগীর সংখ্যাও ব্যাপক হারে বাড়ছে। বাংলাদেশ রেনাল অ্যাসোসিয়েশন বলছে, প্রতি বছর ৫০ হাজার মানুষের ডায়ালাইসিসের মাধ্যমে জীবন বাঁচাতে হয়। দেশের প্রায় ১৫ ভাগ মানুষ কোনো না কোনো কিডনি রোগে আক্রান্ত। অন্যদিকে বিশ্বে প্রায় ১০ ভাগ মানুষ কোনো না কোনোভাবে কিডনি রোগে আক্রান্ত।

বিষাক্ত কেমিক্যাল ও ভেজাল ওষুধের কারণে তাদের হঠাত্ কিডনি নষ্ট হয়ে যায়। দেশে আক্রান্ত কিডনি রোগীদের মধ্যে ১০ থেকে ১২ ভাগের কারণ জানা যায়নি। বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকরা মনে করেন, বিষাক্ত কেমিক্যাল ও খাদ্যে ভেজালের কারণে তাদের কিডনি নষ্ট হয়েছে। স্বাস্থ্য খাতে যে পরিমাণ দুর্নীতি হয় তার এক ভাগ অর্থ দিয়ে দেশে সরকারিভাবে পূর্ণাঙ্গ কিডনি চিকিৎসা ব্যবস্থা করা সম্ভব।

বাংলাদেশ রেনাল অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব ডাঃ কে বি এম হাদিউজ্জামান বলেন, দেশে কিডনি রোগীর সংখ্যা কত তার জাতীয় পর্যায়ের কোনো পরিসংখ্যান করা হয়নি। তবে ব্যাপক হারে বাড়ছে কিডনি রোগী। আর দেশে সরকারিভাবে কিডনি চিকিৎসা ব্যবস্থা চাহিদার তুলনায় খুবই সীমিত।

কিডনি রোগীদের জন্য পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসা ব্যবস্থা চালু করতে বাংলাদেশ রেনাল অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে সরকারকে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে । তিনি বলেন, প্রতিকার উত্তম ব্যবস্থা। যেসব কারণে কিডনি রোগ হয় সেই ব্যাপারে মানুষকে সচেতন করতে বৃহস্পতিবার র‍্যালিসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

কিডনি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডাঃ নিজাম উদ্দিন চৌধুরী বলেন, দেশে কিডনি চিকিৎসা ব্যবস্থা খুবই সীমিত। কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট করতে সরকারিভাবে দেশে দুই থেকে আড়াই লাখ টাকা খরচ হয়। অথচ পার্শ্ববর্তী দেশে ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকা ব্যয় করতে হয়। তবে দেশের বেসরকারি হাসপাতালে খরচ হয় প্রায় ১০ লাখ টাকা। প্রতিটি সরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে কিডনি ডায়ালাইসিসের ব্যবস্থা করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

সর্বশেষ - সারাদেশ