যশোর আজ সোমবার , ১ নভেম্বর ২০২১ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের আদর্শকে লালন করে আজও রাজপথে অবিচল স্বার্থশূন্য রাজনিতীর আইকন মীর জহুরুল

প্রতিবেদক
Jashore Post
নভেম্বর ১, ২০২১ ১১:২৬ পূর্বাহ্ণ
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের আদর্শকে লালন করে আজও রাজপথে অবিচল স্বার্থশূন্য রাজনিতীর আইকন মীর জহুরুল
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

মীর জহুরুল ইসলাম,যশোরের সামাজিক,রাজনৈতিক,সাংস্কৃতিক ও শিক্ষাজ্ঞনের এক উজ্বল ও পরিচিত নাম। যিনি কৈশর হতেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন করে জীবনের প্রতিটি বাঁকে বাঁকে তা ধারন করে এবং নিজেকে সবসময়ই লোভ লালসার উর্দ্ধে রেখেই সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে দীপ্তময় পদচারণায় নিজেকে আজো অবিচল রখেছেন।

তাইতো আজ তিনি পৌঁছেছেন সাফল্যের চুড়ায়,অর্জন করেছেন জনপ্রিয়তা ও হয়েছেন র্নিমোহ রাজনিতীর আইকন। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ,যশোর জেলা শাখার যুগ্ন সাধারন সম্পাদক এর দায়িত্ব পালন করছেন।

মীর জহুরুল ইসলাম ১৯৬৫ সালের ১লা জানুয়ারী এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন পিতা মৃত শামসের আলী ও মাতা মৃত হাসিনা বেগমের অতি আদরের সন্তান। ছোটবেলা হতেই ছিলেন মেধাবী। তিনি তার সততা ও মেধাকে কাজে লাগিয়ে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। বি এ পাশের মধ্য দিয়েেই তার শিক্ষা জীবনের সমাপ্তি ঘটে।

ছাত্র জীবন হতেই ১৯৮০ সালে দশম শ্রেনীতে অধ্যায়নরত অবস্থায় ছাত্রলীগের রাজনিতীতে যোগদেন। বৈবাহিক জীবনে তিনি ৩ সন্তানের পিতা যাহার সকলেই উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত। স্ত্রী মোছাঃ রোকেয়া বেগম একজন গৃহিনী। বর্তমানে তিনি যশোর সদরের পুরাতন কসবা এলাকার (গাজীর ঘাট রোডে)হাসিনা মঞ্জিলে বসবাস করেন।

রাজনৈতিক অজ্ঞনে মীর জহুরুল ইসলামের রয়েছে এক বর্ণঢ্যময় অভিযাত্রা। ১৯৮৮ হতে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত জাতীয় ছাত্রলীগ যশোর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন,বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাথে জাতীয় ছাত্রলীগ একিভূত হলে ১৯৯১ থেকে ১৯৯৪ বাংলাদেশ ছাত্রলীগ যশোর জেলার সাধারণ সম্পাদক সম-মর্যাদায় দায়িত্ব পালন।

১৯৯৪ সাল হতে ২০০৪সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ,যশোর জেলা শাখার যুগ্ন সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন, ২০০৪ সাল হতে ২০১৫সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ,যশোর জেলা শাখার দপ্তর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন ও ২০১৫ সাল হতে ২০১৯সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ যশোর জেলা শাখার সংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন শেষে ২০১৯ সাল হতে যুগ্ন সাধারণ সম্পাদকের পদে অধিষ্ট হন। দীর্ঘ সময়ের এই রাজনৈতিক পথচলায় যশোরের স্থানীয় ও জাতীয় রাজনৈতিক সকল কর্মকান্ডে দলীয় নেতা-কর্মীদের পাশে থেকে সব সময়ই আন্দোলন,সংগ্রামের সন্মুখ সারিতে ছিলেন।


রাজনৈতিক জীবনে তিনি নানা ভাবে নির্যাতন ও ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যামামলার স্বীকার হয়েছেন। তার পিতাও মুজিব আদর্শে উজ্জিবীত ছিলো যার ফলে ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে ইপিআর বাহিনীকে সহযোগীতা করার কারনে পৈত্রিক ভিটায় সেল মেরে বাড়ি ঘর নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছিলো তৎকালীন পাকবাহিনী। ১৯৮১ সালে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রথম যশোর আগমনে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়।তা ভঙ্গ করার দ্বায়ে হুমায়ন কবীর মুছা, জুবায়ের আহমেদ সহ তাকেও অনেক ছাত্র নেতাদের সাথেই পুলিশী নির্যাতন সহ্য করতে হয়।

১৯৮০ সাল হতে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সন্মুখ সারিতে নেতৃত্ব দেন তিনি। ১৯৯০ সালে তিনি ৭টি রাজনৈতিক মামলার সন্মুখীন হন। ১৯৯০ থেকে ১৯৯৫ পর্যন্ত আরো ৬টি হরতাল বিরোধী মামলায় জড়িয়ে পুলিশী নির্যাতনের মুখে দীর্ঘ সময় ধরে গৃহ ছাড়া হন। যুবলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক থাকা অবস্থায় তৎকালীন সরকার কর্তৃক আরো ৩টি ষড়যন্ত্র মূলক মামলায় জড়ান। জেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক থাকা অবস্থায় বিএনপি-জামাত কর্তৃক আরো ২টি রাজনৈতিক মামলার সন্মুখীন হন।


রাজনৈতিক অঙ্গনের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানসহ জনকল্যান মূলক প্রতিষ্ঠানে জড়িয়ে তাহার উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে। এপেক্স ক্লাব অব যশোরের আজীবন সদস্য,যশোর চেম্বারের সদস্য,যশোর ইনিস্টিটিউটের আজীবন সদস্য, যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য,যশোর জেলা রোগী কল্যাণ সমিতিরআজীবন সদস্য,নতুন খয়েরতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ২৭ বৎসর যাবৎ দাতা সদস্য রযেছেন।

নতুন খয়েরতলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি, ২০০৫ সাল হতে চলমান সময় পর্যন্ত গাজীর ঘাট রোড জামে মসজিদের সভাপতির দায়িত্বে নিয়োজিত থাকা, যশোর নতুন খয়েরতলা এতিমখানা মাদ্রাসার ২০১৮ সাল হতেচলমান সময়ে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন, যশোর পালবাড়ী বাজার কমিটির সভাপতির দায়িত্বসহ ক্রিকেট ক্লাব ও মীর স্পের্টিং ফুলবল ক্লাবের সভাপতির দায়িত্ব অত্যান্ত সুনামের সহিত পালন করে চলেছেন। ভালো কাজের পুরষ্কার স্বরুপ যশোর জেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেষ্ঠ সভাপতি নির্বাচিত হওয়া সহ পেয়েছেন সন্মাননা।


যশোর পোস্টকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে যশোরের এ কৃতী সন্তান জানান,সুস্থ থাকা পর্যন্ত তিনি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরনে সোনার বাংলা গড়তে দলকে সহযোগীতা করে যাবেন। তিনি সকল সময়ে নিজেকে দূর্নীতি মূক্ত রেখেছেন যার সত্যতা যশোরের প্রশাসন সহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার কাছে খোঁজ নিলে পাওয়া যাবে বলে আশা রাখেন। সমাজের জনকল্যাণ মূলক কাজে তিনি যেন আরো বেশী নিজেকে নিয়োজিত করতে পারেন সে জন্য সকলের দোয়া কামনা করেন। যশোরের র্নিমোহ এই রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব এর জন্য রইলো শভকামনা
লেখক, মাহমুদুল হাসান

সর্বশেষ - সারাদেশ