যশোর আজ সোমবার , ৮ জুলাই ২০২৪ ২রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

প্রধান শিক্ষক কর্তৃক ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রীর যৌন নিপিড়নের হাত থেকে রক্ষা পেতে সংবাদ সম্মেলন

প্রতিবেদক
Jashore Post
জুলাই ৮, ২০২৪ ৪:৪৪ অপরাহ্ণ
প্রধান শিক্ষক কর্তৃক ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রীর যৌন নিপিড়নের হাত থেকে রক্ষা পেতে সংবাদ সম্মেলন
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

এম কামরুজ্জামান( সাতক্ষীরা ) জেলা প্রতিনিধি :: সাতক্ষীরা’র শ্যামনগর উপজেলার ১৭১ নং টেংরাখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল কাসেম কর্তৃক চতুর্থ ছাত্রীদের যৌন নিপিড়নের হাত থেকে রক্ষা পেতে শ্যামনগর উপজেলা প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার ( ৮ জুলাই ) বেলা ৩টার সময় প্রেসক্লাব হল রুমে উপজেলার রমজানগর ইউনিয়নের টেংরাখালী গ্রামের মৃত শহর আলীর গাজীর ছেলে মোঃ মুনছুর আলী সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্য পাঠ করা করেন।

লিখিত বক্তব্য বলেন,১৭১ নং টেংরাখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল কাসেম একজন দুঃচরিত্রবান,লম্পট প্রকৃতির ব্যক্তি। তিনি অত্র প্রায় বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের যৌন নিপিড়ন করে আসছে। বিষয়টি নিয়ে ইতি পূর্বে তার বিরুদ্ধে কয়েকবার অভিযোগ উঠলে মোটা অঙ্গের অর্থের বিনিময়ে ধামাচাঁপা দিয়েছেন।

বাদীর ছোট ছেলে মোঃ মুজিবর গাজীর কন্যা মোছাঃ মারিয়া খাতুন ( ১১) ৪র্থ শ্রেনী ও বড় ছেলে মোঃ মিজানুর রহমানের কন্যা মোছাঃ হাবিবা খাতুন( ১১) একই শ্রেনীতে অত্র বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত আছে।গত ৭ জুলাই রবিবার স্কুল চলাকালীন সময়ে প্রধান শিক্ষকের শ্রেনী কক্ষে মোছাঃ মারিয়া খাতুন ও মোছাঃ হাবিবা খাতুনকে যৌন নিপিড়ন করেন। ঘটনাটি তারা বাড়ীতে এসে বলে।

বাদী আরো বলেন,ইতি পূর্বে আমার কন্যা মুর্শিদা খাতুনের কন্যা মোছাঃ মুক্তা খাতুনের উপর কুনজর পড়ে উক্ত প্রধান শিক্ষক আবুল কাশেমের। তাকেও বার বার যৌন নিপিড়ন করার চেষ্টা করলে তাকে অত্র বিদ্যালয় হতে বাহির করে অন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করায়। বর্তমানে জহিরনগর মাদ্রাসায় সপ্তম শ্রেণীতে পড়াশোনা করছে।

তাহার এমন অপকর্মের কারনে অত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হতে ছাত্র/ ছাত্রীর সংখ্যা কমে যাচেছ। তার বিরুদ্ধে বার বার এমন ধরনের অভিযোগ উঠলেও মোটা অঙ্কের টাকা ও ক্ষমতার দাপটে বার বার স্থানীয় ভাবে রক্ষা পেয়েছে। আপনাদের লিখনের মাধ্যমে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

অপার দিকে অভিযুক্ত ১৭১ নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কাশেমের কাছে মোবাইল ফোনে জানতে চাই তিনি বলেন, আমি এই সমস্ত এর কাজের সাথে কোনভাবে জড়িত না। আমার মান-সম্মান নষ্ট করার জন্য এবং স্কুলের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছে। আমি আগামী কাল মঙ্গলবার সকালে এই বিষয়ে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সাথে মিটিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যদি প্রমাণিত হয় তাহলে আইনগত যে সাজা হবে আমি সেটা মেনে নেবো।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল