যশোর আজ শুক্রবার , ২৬ জানুয়ারি ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

প্রতারক স্বামীর খপ্পরে পড়ে মালেশিয়ায় বিপাকে বাংলাদেশী তরুনী

প্রতিবেদক
Jashore Post
জানুয়ারি ২৬, ২০২৪ ৯:১৬ অপরাহ্ণ
প্রতারক স্বামীর খপ্পরে পড়ে মালেশিয়ায় বিপাকে বাংলাদেশী তরুনী
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

স্টাফ রিপোর্টার :: প্রতারক স্বামী শরিফুলের পাতানো ফাঁদে পা ফেলে মালেশিয়ায় মানবেতর জীবন যাপন করছে সুমাইয়া খাতুন ( ২২) নামের এক বাংলাদেশী তরুনী।

সুমাইয়া যশোর জেলার শার্শা উপজেলার কাগজপুকুর গ্রামের মাহবুর এর কন্যা। প্রতারক স্বামী শরিফুল (৩০) যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলার নিশ্চিন্তপুর গ্রামের ওলিয়ার রহমানের ছেলে।

ভূক্তভোগী সুমাইয়া জানান সে একজন কলেজ পড়ুয়া ছাত্রী ও তার স্বামী শরিফুল দীর্ঘ বছর ধরেই প্রবাস জীবনে মালেশিয়া ছিলো।দেশে ফিরলে গত ৯ আগস্ট ২০২১সালে পারিবারিক সন্মতিতে তাদের বিয়ে হয়। স্বামীর সাথে শশুরবাড়ির লোকজনের মনমালিন্য হওয়ায় তাকে পিতৃালয়ে রেখে শরিফুল আবার মালেশিয়ায় পাড়ি জমায়।

মালেশিয়া পৌঁছে শরিফুল তাকে মালেশিয়ায় পড়াশোনা করানোর কথা বলে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহসহ পাসপোর্ট করতে বলে।সে মোতাবেক সুমাইয়া দীর্ঘ আট মাস ধরে প্রচেষ্ঠা চালিয়ে মালেশিয়ায় অবস্থিত ইনটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসটিতে ভর্তি হন।

সুমাইয়ার অসহায় পিতা-মাতা মেয়ের ভবিষ্যত চিন্তায় ৪ লাখ টাকা লোন ও ধার দেনা করে জামাই শরিফুলের কাছে পৌঁছে দেন। বিগত ২২ তারিখে সুমাইয়া স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে মালেশিয়া পৌছালে শরিফুল তাকে মালেশিয়া বিমানবন্দর হতে রিসিভ করে কলেজ ক্যম্পাসে ওঠতে না দিয়ে নিজের হেফাযতে নেন।

সুমাইয়াকে ভার্সিটি কর্তৃপক্ষ ক্যাম্পাসে উপস্থিত হতে বললে স্বামী শরিফুলের শারিরিক নির্যাতনের স্বীকার হন সুমাইয়া। এসময় শরিফুল ডাক ছেড়ে বলে তোকে মালেশিয়া এনেছি কাজ করাতে পড়াশোনা নই। শরিফুল তাকে গৃহবন্ধী রেখে মোবাইল ফোন কেড়ে নেওয়াসহ মারধর করেছে বলে তিনি আরো জানান।

দীর্ঘ ২২দিন অবরুদ্ধ থাকার পর মালেশিয়ায় অবস্থানরত বাংলাদেশিদের সহযোগীতায় সুমাইয়া কোন মতে ভার্সিটিতে পৌঁছে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিয়ে ভার্সিটি কর্তৃপক্ষের তত্তাবাধনে মালেশিয়ায় থাকার বৈধতা পেলেও প্রতারক শরিফুল কেড়ে নেই স্বামীর স্বিকৃতী।

মধ্যযুগীয় কায়দায় মুখে তালাক ঘোষণা করেই সুমাইয়ার দায়িত্ব এড়াতে সকল প্রকার যোগাযোগ বন্ধ করে দেন শরিফুল এমনকি সুমাইয়ার মা-বাবাকে তালাকের বিষয় জানিয়ে আরো ২ লাখ টাকা দাবী করেছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সুমাইয়ার মা নার্গিস আক্তার (৪২) জানান,গত ৫দিন আগে মালেশিয়ায় বসবাসরত শরিফুল এর ভাই সাদ্দাম ( প্রাবাসী ) মুঠো ফোনে তালাক দেওয়ার বিষয়টা জানিয়ে মেয়েকে দেশে ফিরিয়ে নিতে ২ লাখ টাকা দাবী করেন।

বর্তমানে মেয়ের চিন্তায় বিছানাগ্রস্থ হয়ে পড়েছে অশিক্ষিত-দরিদ্র পরিবারটি। জামাই শরিফুলের সাথে বারংবার যোগাযোগের চেষ্ঠা করলেও নাম্বার ব্লক রাখায় সুমাইয়ার খোঁজ-খবর পাচ্ছেনা পরিবারটি বলে আরো জানান।

ভূক্তভোগী সুমাইয়া আশঙ্কা করছেন শরিফুল মানবপাচার চক্রের সঙ্গে জড়িত।বর্তমানে সে অর্থ ও অভিভাবক শূণ্য অবস্থায় প্রবাস জীবন কাটাচ্ছে ।

সংবাদ লেখাকালীন সময়ে সে ভার্সিটি হোস্টেলে অবস্থান করা সহ আইনী সহায়তা পেতে মানবাধিকার সংস্থার সাথে যোগা যোগের চেষ্ঠা চালাচ্ছে বলে জানা গেছে।

সর্বশেষ - সারাদেশ