যশোর আজ বুধবার , ২৯ মার্চ ২০২৩ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

পদ্মা সেতুতে ৪ এপ্রিল থেকে চলবে ট্রেন

প্রতিবেদক
Jashore Post
মার্চ ২৯, ২০২৩ ১০:০০ পূর্বাহ্ণ
পদ্মা সেতুতে ৪ এপ্রিল থেকে চলবে ট্রেন
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

বহুল প্রত্যাশিত পদ্মা সেতু গত বছরের ২৫ জুন উদ্বোধন করা হয়। সড়কপথে দুয়ার খুলে যায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের। কিন্তু অপ্রাপ্তি ছিল একটাই— উদ্বোধনের দিন পদ্মা সেতুতে চলেনি ট্রেন। সাড়ে ৯ মাস পরে সেই অপেক্ষার অবসান ঘটছে আগামী ৪ এপ্রিল।

এদিন প্রথম বারের মতো পরীক্ষামূলকভাবে পদ্মা সেতুতে চলবে ট্রেন। গতকাল মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের উপ-প্রধান তথ্য কর্মকর্তা শরিফুল আলম।

তিনি বলেন,পদ্মা সেতুতে পরীক্ষামূলক ট্রেন চলাচলের সম্ভাব্য তারিখ ৪ এপ্রিল। আর জুনের মধ্যেই কাজ শেষ হবে মাওয়া থেকে ভাঙ্গা পর্যন্ত রেললাইন। ঐ অংশের ৩২ কিলোমিটার রেললাইনে রেল ট্রায়াল সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে আগেই। ইতিমধ্যে রেল সেতুর প্রায় ৯৮ দশমিক ৫০ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, মূল সেতুতে রেললাইন স্থাপন প্রায় শেষ। সাত মিটারের স্প্যান বসানো কেবল বাকি। ভায়াডাক্টের ওপর পাথরবিহীন সাড়ে ৬ কিলোমিটার রেললাইন স্থাপন হচ্ছে মূল সেতুতে।

পুরো প্রকল্পের কাজের অগ্রগতি হয়েছে প্রায় ৭৫ দশমিক ৯২ শতাংশ। আর দ্রুত কাজের সুবিধার্থে পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্পের কাজ তিন শতাংশ করা হয়েছে। ঢাকা থেকে মাওয়া পর্যন্ত অংশের কাজ সম্পন্ন হয়েছে ৭৪ দশমিক ১৪ শতাংশ।

অন্যদিকে মাওয়া-ভাঙ্গা অংশে ৯১ দশমিক ৮৮ শতাংশ এবং ভাঙ্গা-যশোর অংশে ৬৮ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এখন ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটের ট্রেন চলাচল বন্ধ করে কাজ দ্রুত করা হচ্ছে এ প্রকল্পের ঢাকা-মাওয়া অংশ।

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, সরেজমিনে দেখা যায়, পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্ত থেকে ট্রাককারে মূল সেতুর রেলের ট্র্যাক প্যানেল (লোহার পাত ) আর মালামাল নেওয়া হচ্ছে। বিশাল আকৃতির ট্র্যাক প্যানেলবোঝাই ট্রাককারটি ভায়াডাক্ট পেরিয়ে মূল সেতুতে চলছে পাথরবিহীন রেললাইনের ওপর দিয়ে।

সেখানে ভায়াডাক্ট ও মূল সেতুর রেল কাজের প্রকৌশলীরাও আছেন। সেতুর রেললাইন নির্মাণে চলছে শত শত শ্রমিকের কর্মযজ্ঞ।ক্রেনের সাহায্যে রেলের ট্র্যাক প্যানেল বসানোর জন্য নিয়ে যাওয়া হয় নির্ধারিত স্থানে।

এরপর ধীরে ধীরে বসিয়ে দেওয়া হয় সেতুর ওপর। যন্ত্রের সাহায্যে তা নিখুঁতভাবে পর্যবেক্ষণ করেন প্রকৌশলীরা। এরপর প্যানেলের ওপর ঢালাইয়ের আগের আনুষঙ্গিক কাজ সেরে নেন শ্রমিকরা। এভাবে একের পর এক ট্র্যাক প্যানেল ওয়ার্কশপ থেকে নিয়ে মূল সেতুতে তৈরি করা হচ্ছে পাথরবিহীন রেলের ট্র্যাক স্ল্যাব।

রাজধানী থেকে যশোর পর্যন্ত ১৭২ কিলোমিটার পদ্মা রেল সংযোগের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল পদ্মা নদী। সেই পদ্মায় এখন সেতু নির্মাণ হয়েছে। তবে বড় চ্যালেঞ্জের জায়াগা ছিল সেতুতে যানবাহন চালু রেখেই নিচ তলায় সূক্ষ্মভাবে টেকসই পাথরবিহীন রেললাইন স্থাপন।

প্রকল্প পরিচালক আফজাল হোসেন বলেন, পদ্মা নদীতে সেতু নির্মাণই একটি চ্যালেঞ্জের কাজ। সেতুতে রেলসংযোগ আরো চ্যালেঞ্জিং।তিনি আরো বলেন, ইতিমধ্যে ৯৯ ভাগ কাজ শেষ। আমাদের কিছুটা সমস্যা হলেও পরে তা কেটে গেছে। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ৪ এপ্রিল মাওয়া থেকে ভাঙ্গা পর্যন্ত পরীক্ষামূলক রেল চলাচল করবে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল