যশোর আজ বৃহস্পতিবার , ৪ জানুয়ারি ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

নিয়মিত আতা ফল খেলে মিলবে নানা রোগ হতে মুক্তি

প্রতিবেদক
Jashore Post
জানুয়ারি ৪, ২০২৪ ৩:৫৫ অপরাহ্ণ
নিয়মিত আতা ফল খেলে মিলবে নানা রোগ হতে মুক্তি
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

আতা হল অ্যানোনেসি পরিবারভুক্ত এক ধরনের যৌগিক ফল।এটি শরিফা এবং নোনা নামেও পরিচিত। এই ফলের ভিতরে থাকে ছোট ছোট কোষ। প্রতিটি কোষের ভেতরে থাকে একটি করে বীজ, বীজকে ঘিরে থাকা নরম ও রসালো অংশই খেতে হয়। শীতে রোজ খেলে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ এই ফল,একাধিক ভয়াবহ রোগের আক্রমণের চেষ্টা হবে বিফল!

শীত পড়তেই বাজারে ভিড় করেছে আতা।এমনকী এই ফলের দামও এখন সাধ্যের মধ্যে চলে এসেছে। আর সেই কারণেই বিশেষজ্ঞ পুষ্টিবিদেরা ৮ থেকে ৮০,সকলকে নিয়মিত আতা খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন।তাঁদের কথায়,এই ফলে রয়েছে ভিটামিন এবং খনিজের ভাণ্ডার।এমনকী এতে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট।

গ্রাম বাংলার এই আদি ফলই কিন্তু শরীরের একাধিক উপকার সাধন করে। এমনকী এই ফলের গুণে ক্যানসার থেকে শুরু করে একাধিক জটিল রোগ থাকে দূরে। তাই শীতের দিনে নিয়মিত আতা খাওয়ার গুণাগুণ সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের আঁতুরঘর​

এই ফলে রয়েছে কাউরেনোইক অ্যাসিড, ফ্ল্যাভনয়েডস, ক্যারোটিনয়েডস এবং ভিটামিন সি-এর ভাণ্ডার। আর এই সমস্ত উপাদান শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করে। তাই নিয়মিত আতা খেলেই প্রশমিত হবে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস। এমনকী দেহে জমে থাকা ক্ষতিকর উপাদান বা ফ্রি রেডিকেলসও সুরসুর করে দেহের বাইরে বেরিয়ে যাবে। আর সেই সুবাদেই আপনি অনায়াসে একাধিক ছোট-বড় রোগব্যাধির থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে পারবেন।


​ মনে থাকবে প্রফুল্ল

এই ফলে রয়েছে ভিটামিন বি৬-এর ভাণ্ডার। আর এই ভিটামিন ডোপামিন থেকে শুরু করে অন্যান্য ফিল গুড হরমোনের ক্ষরণ বাড়ানোর কাজে সিদ্ধহস্ত। তাই তো শীতের দিনে নিয়মিত আতা খেলে মনের নদীতে খুশির জোয়ার উঠবে। বিশেষত, যাঁরা ইতিমধ্যেই উৎকণ্ঠা, অবসাদ বা অন্য কোনও মানসিক সমস্যায় ভুগছেন, তাঁদের জন্য এই ফল হল মহৌষধির সমান।


চোখের জন্য সেরার সেরা ঔষধ

সারাদিন কম্পিউটার এবং মোবাইল ঘাটলে যে চোখের উপর চাপ বাড়বেই, তা তো বলাই বাহুল্য! তাই চক্ষু যুগলের খেয়াল রাখতে চাইলে স্ক্রিন টাইম কমাতেই হবে। আর সেই সঙ্গে রোজের ডায়েটে আতাকে জায়গা করে দিন। তাতেই হবে কেল্লাফতে। কারণ এই ফলে রয়েছে লিউটিন নামক একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। আর এই উপাদান ম্যাকুলার ডিজেনারেশনের মতো ভয়াল রোগ প্রতিরোধে সিদ্ধহস্ত। তাই চোখের স্বাস্থ্যের হাল ফেরাতে চাইলে দ্রুত এই ফলের সঙ্গে বন্ধুত্ব করে নিন।


অ্যাসিডিটির সমস্যা কমাবে

নিয়মিত গ্যাস, অ্যাসিডিটির ফাঁদে পড়ে কষ্ট পান নাকি? উত্তর হ্যাঁ হলে কাল থেকেই নিয়মিত আতা খাওয়া শুরু করে দিন। কারণ এই ফলে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে ডায়েটরি ফাইবার যা কিনা অন্ত্রের হাল ফেরানোর কাজে সিদ্ধহস্ত। আর অন্ত্রের হাল ফিরলে যে অচিরেই পেটের হাল হকিকত বদলে যাবে, তা তো বলাই বাহুল্য! তাই রোজকার গ্যাস, অ্যাসিডিটির সমস্যা থেকে চিরতরে মুক্তি পেতে চাইলে এই ফলের সঙ্গে দ্রুত সন্ধি করে নিন।


​ক্যানসার থাকবে দূরে​

ভয়াল রোগ ক্যানসারের থেকে যেন তেন প্রকারেণ দূরত্ব বজায় রাখতেই হবে। আর এই কাজে সাফল্য পেতে চাইলে আপনাকে নিয়মিত আতা খেতেই হবে। তাতেই দেহে ক্যানসার কোষের বৃদ্ধি আটকে দেওয়া সম্ভব হবে বলে আশাবাদী বিশেষজ্ঞরা। তাই এই মারণ রোগ প্রতিরোধ করার ইচ্ছে থাকলে আতা ফল খেতে হবে।

এছাড়াও অপুষ্টিজনিত সমস্যায় আতাফলের রস বেশ উপকারী।

সর্বশেষ - সারাদেশ