যশোর আজ সোমবার , ৮ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

দাদন ব্যবসায়ীদের খপ্পরে পড়ে সর্বস্বান্ত হচ্ছে দিনাজপুরের অনেক পরিবার

প্রতিবেদক
Jashore Post
এপ্রিল ৮, ২০২৪ ১০:১৪ পূর্বাহ্ণ
দাদন ব্যবসায়ীদের খপ্পরে পড়ে সর্বস্বান্ত হচ্ছে দিনাজপুরের অনেক পরিবার
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

চন্দন মিত্র,দিনাজপুর প্রতিনিধি :: দাদন ব্যবসায়ীতে ছেয়ে গেছে দিনাজপুরের বৃহত্তর এলাকা। আর এই দাদন ব্যবসায়ীদের খপ্পরে পড়ে সর্বস্বান্ত হচ্ছে অনেক পরিবার। দিনের পর দিন বেড়েই চলছে সুদ ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম। কোন সরকারি অনুমোদন ছাড়াই, আবার কেউ কেউ সরকারি কিছু প্রতিষ্ঠান থেকে রেজিষ্ট্রেশন করে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই চালিয়ে যাচ্ছেন দাদন ব্যবসা ।

আর অসহায় কিছু মানুষ দারিদ্রতার কষাঘাত থেকে সাময়িক পরিত্রাণ পেতে গ্রহন করছে চড়া সুদে অর্থ । আর এই সুযোগটাকে কাজে লাগিয়েই ফুলে ফেঁপে উঠছে দাদন ব্যবসায়ীরা।

ব্যাপকতর খোঁজ খবর নিলে জানা যায়,এই সব সুদ ব্যবসায়ীদের কাছে টাকা গ্রহণ করার বিপরীতে দিতে হচ্ছে ফাঁকা স্ট্যাম্প ও সই করা ফাঁকা চেক। আর মুল টাকার অনুকুলে দিনের পর দিন টাকা দিলেও শোধ হচ্ছে না ৠনের টাকা। পরবর্তীতে পরতে হচ্ছে মোটা অঙ্কের অর্থ ৠনের মামলায়। অনেকে এই সুদ ব্যবসায়ীদের কবলে পরে ভিটে মাটি পর্যন্ত দিয়ে সর্বস্বান্ত হতে হয়েছে । অথচ এদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর নেই কোন পদক্ষেপ ।

সম্প্রতি এক অভিযোগ সুত্রে জানা যায় দিনাজপুর সদর উপজেলার ২ নং সুন্দরবন ইউনিয়নের খোসালপুর গ্রামের মোঃ বজলু ‘র ছেলে ধান চাল ব্যবসায়ী মোঃ জাকির হোসেন ১নং চেহেলগাজী ইউনিয়নের নশিপুর চৌকিদার পাড়া এলাকার মোঃ আব্দুস সাত্তারের ছেলে সুদ ব্যবসায়ী মাসুদ আলমের খপ্পরে পরে দিশেহারা হয়ে পড়েছে ।

মোঃ জাকির হোসেন বলেন বিভিন্ন সমস্যার কারনে ব্যবসায় মন্দা যাওয়ায় হঠাৎ নগদ অর্থের প্রয়োজন হলে আমি গত ১৯সালের ১জানুয়ারি ছয় মাসে পরিশোধ করার শর্তে ৩লক্ষ ৬০হাজার টাকা গ্রহণ করি।তারপর থেকে আমি রীতিমত তার লভ্যাংশ পরিশোধ করা কালে হঠাৎ আমার কাছে চড়া সুদ দাবি করে আরো অধিক টাকা চায় ।

আমি টাকা দিতে অপারগতা স্বীকার করলে,সে আমার বিরুদ্ধে ডিবি অফিসে অভিযোগ করে। পরবর্তীতে ডিবি অফিসে ( গত ১৯সালের ৫ জুলাই ) স্থানীয় মেম্বার নাজির হোসেনসহ অনেকের উপস্থিতিতে তাহার দাবিকৃত টাকা থেকে নগদ ১লক্ষ ৫০হাজার টাকা দিয়ে আরো ৩লক্ষ টাকা পাওনা রয়েছে যাহা সুদবীহিন ছয় মাসের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে মর্মে আপোষ মীমাংসা হয় ।

জামানত স্বরুপ আমার ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের নামীয় অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের আমার সাক্ষরিত ফাঁকা চেকের পাতা প্রদান করি।কিন্তু বৈষয়িক করোনার কারনে অবশিষ্ট টাকা দিতে ব্যর্থ হলে মোঃ মাসুদ আরো অধিক টাকা দাবি করে এবং আমাকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করাসহ মামলা মোকদ্দমা দিয়ে অধিক অর্থ আদায় এবং প্রান নাশের হুমকি দিয়ে আসছে।

সুদ ব্যবসায়ী মোঃ মাসুদের হাত থেকে পরিত্রাণ পেতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তভোগী মোঃ জাকির হোসেন । বিষয়টি জানতে অভিযুক্ত মাসুদের সহিত যোগাযোগের চেষ্ঠা চালালে সাক্ষাৎ না দেওয়ায় বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

দিনাজপুরে মাসুদ ছাড়াও একাধিক দাদন ব্যবসায়ীদের চড়া ঝৃণের ফাঁদে জড়িয়ে নিঃস্ব হচ্ছে হাজারো পরিবার। এসব সুদ ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সুদৃষ্টি কামনা করেন একাধিক ভুক্তভোগী ও এলাকার সুশীল ব্যাক্তিবর্গ।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল