যশোর আজ সোমবার , ২৫ অক্টোবর ২০২১ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

ত্বকের রঙের সাথে মিলিয়ে ঠোঁটের রং

প্রতিবেদক
Jashore Post
অক্টোবর ২৫, ২০২১ ৫:৩৭ অপরাহ্ণ
ত্বকের রঙের সাথে মিলিয়ে ঠোঁটের রং
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

কবির ভাষায় যদি বলি,হাসি মানেই তো হলো রাঙা ঠোঁট।গ্রামীণ বধূর লাল টুকটুকে ঠোঁটের বর্ণনা পাওয়া যায় অনেক কবিতায়-গানে-গল্পে। কখনো পান খেয়ে, কখনো ফুলের রঙিন নির্যাসে ঠোঁট রাঙানো ছিল সাজের অংশ। তবে ফ্যাশনের পালাবদলে রঙিন লিপস্টিকের পাশাপাশি ত্বকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে লিপস্টিক এখন বেশ সমাদৃত।

যেটিকে বলা হচ্ছে ন্যুড লিপস্টিক। এর রং কিছুটা নির্জীব। অর্থাৎ, ত্বকের রঙের সঙ্গে একেবারে মিশে যাবে। হঠাৎ দেখলে মনে হবে, ঠোঁটে কোনো লিপস্টিকের ছোঁয়া নেই। কিন্তু এ হালকা রঙেই আসবে পরিপূর্ণতা। ন্যুড রঙের লিপ্সটিক মানিয়ে যায় যে কোনো বয়সে,যে কোনো সময়ে। ত্বকের রঙের সঙ্গে যেহেতু মিলিয়ে ঠোঁটের রং,লাগানোর আগে মানতে হবে কিছু নিয়ম

অফিস বা ঘরোয়া অনুষ্ঠানে, এমনকি ভারী সাজের সঙ্গে আজকাল ন্যুড লিপস্টিক যেমন মানানসই, তেমনি সাজে আনে আভিজাত্য। কিন্তু ন্যুড লিপস্টিক দেওয়ার পর চেহারা বা ঠোঁট ফ্যাকাশে দেখালে বিপত্তি। ত্বকের রঙের সঙ্গে ঠোঁটের রঙের সামঞ্জস্য পাওয়া যায় না এবং ঠোঁটের আকারও ঠিকমতো বোঝা দায় হয়ে যায়। তাই ন্যুড লিপস্টিক দেওয়াকে শিল্পের সঙ্গেই তুলনা করা হয়।

ন্যুড লিপস্টিক ব্যবহার করতে হবে ত্বকের রঙের টোন থেকে এক ধাপ গাঢ় করে। একেবারে ত্বকের রঙের লিপস্টিক ব্যবহারে কোনো পার্থক্য দেখা যায় না।এ ছাড়া লিপ লাইনার ব্যবহারে ভালো ফল পাওয়া যাবে।

ন্যুড লিপস্টিক ব্যবহারের জন্য ঠোঁটের বিশেষ যত্নের কথা বলেছেন নুজহাত খান। এর কারণ, প্রাকৃতিক রঙের জন্য ঠোঁটের চামড়া অনেকটা বোঝা যায়, যা গাঢ় রঙের লিপস্টিকের ক্ষেত্রে হয় না। তাই সপ্তাহে দুই দিন ঠোঁটে হালকা স্ক্র্যাব করা ও নিয়মিত লিপবাম ব্যবহার জরুরি। ন্যুড লিপস্টিক দেওয়ার আগে কিছু অনুষঙ্গ ব্যবহার জরুরি। কোনো একটি বাদ পড়লে ঠিকঠাক সৌন্দর্য পাওয়া যাবে না।


প্রথম ধাপঃ ঠোঁটের স্ক্র্যাবার ব্যবহার করতে হবে। ঠোঁটের কালো দাগ, চামড়া ওঠা কমাতে চিনি ও মধুর ঘরোয়া স্ক্র্যাব ব্যবহার করে ঠোঁটে হালকাভাবে ঘষে নিতে হবে। এবার একটি তুলা দিয়ে ভালোভাবে পরিষ্কার করার পালা। সাধারণত রাতের বেলা স্ক্র্যাবার ব্যবহার করা উত্তম।


দ্বিতীয় ধাপঃ স্ক্র্যাবের পর ঠোঁটের ত্বকে একটু রুক্ষতা আসে, তাই দরকার ময়েশ্চারাইজার। ঠোঁটের জন্য ভালো ময়েশ্চারাইজার হলো লিপবাম। ব্যবহার করতে হবে কোনো রং ছাড়া লিপবাম।


তৃতীয় ধাপঃ ঠোঁটের রং যেন ত্বকের রঙের সঙ্গে একেবারে মিশে না যায়, তাই লিপ লাইনার ব্যবহার দরকার। এতে ফ্যাকাশে দেখানোর প্রবণতা কমবে। কিন্তু লিপ লাইনারের রং অবশ্যই হতে হবে লিপস্টিক থেকে এক ধাপ গাঢ়।লিপ লাইনার ব্যবহারের নিয়ম অনুসারে প্রথমে নিচের ঠোঁটের দুই পাশ আঁকতে হবে, এরপর মাঝের অংশ।

ওপরের ঠোঁটের দুই ভাঁজের অংশটুকু প্রথমে আঁকুন। তারপর দুই পাশ আঁকতে হবে। এখন আঙুল দিয়ে লিপ লাইনার একটু মিশিয়ে দিতে হবে। এতে ঠোঁটে প্রাকৃতিক ভাব আসবে।

চতুর্থ ধাপঃ একেবারে শেষে ন্যুড লিপস্টিক ব্যবহারের পালা। কিন্তু লিপস্টিক ব্যবহার করতে হবে হালকা করে লিপ লাইনার ব্যবহারের নিয়ম অনুসারে। নিচের ঠোঁটের মাঝবরাবর একটু ওপরে লিপস্টিক না দিয়ে একেবারে প্রাকৃতিক রং রাখতে পারেন।

এখন আঙুল দিয়ে হালকাভাবে মিশিয়ে নিলে শেষ হবে ন্যুড লিপস্টিক ব্যবহারের সব ধাপ। তবে চাইলে ঠোঁটের ওপর হালকা গ্লস ব্যবহার করা যাবে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল