যশোর আজ রবিবার , ৭ নভেম্বর ২০২১ ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

চট্টগ্রাম বন্দরে কন্টেইনার জটের আশঙ্কা নেইঃ কর্তৃপক্ষ

প্রতিবেদক
Jashore Post
নভেম্বর ৭, ২০২১ ৭:০৪ পূর্বাহ্ণ
চট্টগ্রাম বন্দরে কন্টেইনার জটের আশঙ্কা নেইঃ কর্তৃপক্ষ
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে আহুত পরিবহন ধর্মঘটেও উদ্বিগ্ন নয় চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। মূলত সিঙ্গাপুর ও কলম্বো বন্দরে জাহাজ জটের কারণে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে এই রুটে ফিডার জাহাজ চলাচলে শ্লথ অবস্থার কারণে চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজের চাপ তেমন একটা নেই।

আবার পরিবহন ধর্মঘটের অতিবাহিত দু’দিন শুক্রবার ও শনিবার হওয়ায় এই সময় সাধারণ কন্টেইনার ডেলিভারিও কম থাকে।ফলে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ জাহাজ জট কিংবা কন্টেইনার জটের আশংকা করছেনা।

চট্টগ্রাম বন্দরের পরিচালক ( ট্রাফিক ) এনামুল করিম জানান,বর্তমানে চট্টগ্রাম বন্দরে কন্টেইনার বা জাহাজ জটের কোন সম্ভাবনা নেই।চট্টগ্রাম বন্দরের জেটিতে কন্টেইনারের ধারণ ক্ষমতা প্রায় ৪৯ হাজার। বর্তমানে প্রায় ৩৮ হাজার কন্টেইনার রয়েছে বলে জানা গেছে।

চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য ডেলিভারি না হলেও জেটিতে জাহাজের পণ্যের ওঠানামা স্বাভাবিক রয়েছে। শুক্রবার ও শনিবার কাস্টমসের কাজ এক প্রকার বন্ধ থাকায় ডকুমেন্ট ছাড়করণ প্রক্রিয়াও চলে না।

ফলে পণ্যের খালাসের জন্য অ্যাসাইনমেন্ট তেমন একটা থাকে না। এরপরও পূর্বের ডকুমেন্টের ভিত্তিতে শুক্রবার পণ্য খালাসের অ্যাসাইনমেন্ট কিছুটা থাকলেও শনিবার একেবারেই কম থাকে।

বন্দর সূত্রে জানানো হয়, গত শুক্রবার ১ হাজার ১৬৬টি কন্টেইনার খালাসের অ্যাসাইনমেন্ট বন্দরকে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু দিন শেষে খালাস হয়েছে ৪১৯ টি। জানা যায়, স্থানীয় পর্যায়ে কিছু প্রতিষ্ঠান ওই সকল কন্টেইনার খালাস নিয়েছে।

পরিবহন ধর্মঘটের মধ্যে গত শনিবার ৭০০টি কন্টেইনার খালাসের জন্য বন্দরকে অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হয়। দিন শেষে স্থানীয় পর্যায়ে প্রায় অর্ধেক সংখ্যক খালাস নেওয়া হয়েছে বলে জানা যায়।

জানা যায়, করোনার কারণে ইউরোপ, আমেরিকা, চীন ও ভিয়েতনাম বন্দর সমূহে সাপ্লাই চেইন ব্যাহত হওয়ার প্রেক্ষিতে এখনও তা স্বাভাবিক পর্যায়ে আসেনি। পরিসংখ্যানে দেখা যায়, চট্টগ্রাম বন্দর থেকে সিঙ্গাপুর বন্দর অভিমুখী ৩৬টি ফিডার জাহাজ চলাচল করে। এর মধ্যে ২২টি জাহাজ সিঙ্গাপুর বন্দরে অপেক্ষায় আছে। বাকি ১৪টি জাহাজের মধ্যে ৬টি জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দরের জেটিতে খালাসে রয়েছে।

অপর ৮টি জাহাজ সিঙ্গাপুর থেকে চট্টগ্রাম বন্দর অভিমুখী রয়েছে। একইভাবে চট্টগ্রাম বন্দর ও কলম্বো বন্দর রুটে ৪১টি ফিডার জাহাজ চলাচল করে। গতকাল শনিবারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ১৯টি জাহাজ কলম্বো বন্দরে রয়েছে। বাকি ২২টি জাহাজের মধ্যে ৮টি চট্টগ্রাম বন্দরের জেটিতে খালাসের অপেক্ষায় রয়েছে। অন্য জাহাজগুলো মাঝপথে রয়েছে।

সূত্রে জানা যায়, বিশ্বব্যাপী করোনা পরবর্তী জাহাজ ভাড়া বৃদ্ধি পেলে বাংলাদেশের ক্ষেত্রে এই প্রধান দুই রুটে জাহাজের ভাড়া বৃদ্ধি পায়নি। ফলে ভাড়াজনিত কারণে পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি সম্ভাবনা থাকছে না।

তবে চট্টগ্রাম বন্দরের সাথে মালয়েশিয়া অভিমুখী পণ্যবাহী জাহাজ চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। এই রুটে শতকরা ১০ ভাগ থেকে ১৫ ভাগ পণ্য পরিবহন হয়ে থাকে।

সর্বশেষ - সারাদেশ