যশোর আজ সোমবার , ১৭ জানুয়ারি ২০২২ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

ইউপি সদস্য উত্তম হত্যা মামলায় অস্ত্র ও বিস্ফোরকসহ গ্রেফতার-৫

প্রতিবেদক
Jashore Post
জানুয়ারি ১৭, ২০২২ ১০:৫৮ পূর্বাহ্ণ
ইউপি সদস্য উত্তম হত্যা মামলায় অস্ত্র ও বিস্ফোরকসহ গ্রেফতার-৫
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

জেমস রহিম রানা:: যশোরের অভয়নগরে সংঘটিত চাঞ্চল্যকর নব নির্বাচিত ইউপি সদস্য উত্তম হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটিত হয়েছে। হত্যাকান্ডের ৫দিনের মধ্যেই চাঞ্চলকর এই মামলার এজাহারভুক্ত পাঁচ আসামি গ্রেফতারসহ হত্যা রহস্য উদঘাটন করেছে ডিবি পুলিশ।রোববার দুপুরে তাদের আদালতে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে আরো জানা গেছে।

গ্রেফতারকৃতদের কাছে পাওয়া গেছে বিপুল পরিমাণ অস্ত্রও বিষ্ফোরক। এরমধ্যে রয়েছে একটি ওয়ানশুটার গান, ৩ রাউন্ড গুলি, ২টি গুলির খোসা, ৬ রাউন্ড ১২ বোর কার্তুজ, একটি ককটেল, ১০ গ্রাম বোমা তৈরীর পাউডার ( গান পাউডার), উত্তম মেম্বার হত্যার মিশনে আসামীদের ব্যবহৃত মোট ৫টি মোবাইল ফোন ও ৫০ গ্রাম বোমা তৈরীর তারকাটা।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সংবাদসম্মেলন হতে জানা যায়,যশোর জেলার মনিরামপুর, কেশবপুর উপজেলার বিভিন্ন স্থানসহ খুলনা জেলার ডুমুরিয়া উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে যশোর গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা ইউপি সদস্য উত্তম কুমার হত্যার এজহারভুক্ত এই ৫ আসামিকে গ্রেফতার করেন।শনিবার রাত থেকে রোববার ভোর ৫ টা পর্যন্ত এই চলে এই অভিযান। আসামীদের বিরুদ্ধে একাধিক হত্যা ও চাঁদাবাজি মামলা আছে।

আটককৃতরা হলো- খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার রুদাঘরা গ্রামের ইসহাক গোলদারের ছেলে ইকরামুল গোলদার (১৯), একই এলাকার চুকনগর গ্রামের শিবপদ মন্ডলের ছেলে প্রশান্ত মন্ডল (৩৮), দিঘলিয়া গ্রামের বিষ্ণুপদ মন্ডলের ছেলে বিজয় কুমার মন্ডল ওরফে বিনোদ (৪২) যশোরের অভয়নগর উপজেলার সুন্দলি পূর্বপাড়ার নিতাই বিশ্বাসের ছেলে প্রজিত বিশ্বাস ওরফে বুলেট (২৪) ও মণিরামপুর উপজেলার সুজাতপুর গ্রামের পরিতোষ বিশ্বাসের ছেলে পল্লব বিশ্বাস ওরফে সুদিপ্ত (২৪)।

রোববার সকাল ১১টায় যশোর ডিবি অফিসে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জানানো হয়, গত ১০ জানুয়ারি অভয়নগরে নবনির্বাচিত মেম্বার উত্তম কুমার সরকার খুন হয়। এঘটনায় অভয়নগর থানায় মামলা হলে মামলার তদন্তভার গ্রহণ করে জেলা ডিবি পুলিশ। প্রযুক্তি ব্যবহার করে হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে বিভিন্ন জায়গা থেকে পাচঁজনকে আটক করা হয় ।

এসময় তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত একটি ওয়ান শুর্টারগান, তিন রাউন্ড গুলি, দুটি গুলির খোসা, ছয় রাউন্ড কার্তুজ, একটি লোহার রড, একটি ককটেল, ১০ গ্রাম গান পাউডার, ৫০ গ্রাম তার কাটা, একটি শপিং ব্যাগ, পাঁচটি মোবাইল ফোন, দুটি মোটরসাইকেল ও একটি ইয়ারগান।হত্যাকারীরা নিউ বিল্পবী কমিউনিস্ট পার্টির সক্রিয় সদস্য।

এরা বিভিন্ন ছদ্মনাম ব্যবহার করে দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চালে চাঁদাবাজি করে। নবনির্বাচিত মেম্বার উত্তম সরকারের কাছে চাঁদা চেয়ে ছিলো গ্রেফতারকৃতরা। চাঁদা না দেয়ায় উত্তম সরকারকে হত্যা করা হয় বলে তারা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেন।

যশোর গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ রুপণ কুমার সরকার বলেন, জেলার অভয়নগর উপজেলার ইউপি সদস্য উত্তম কুমার হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ক্ললেস হাওয়ায় যশোরের পুলিশ সুপার মামলাটির তদন্তভার দেন যশোর গোয়েন্দা পুলিশের উপরে।

এক পর্যায়ে আমি মামলাটির তদন্তভার দেয় যশোর গোয়েন্দা পুলিশের এসআই শেখ শাহিনুর রহমান, এসআই শামীম হোসেন ও এসআই মফিজুল ইসলামের নিকটে। তারা আসামিদের শনাক্ত করার পর অভিযান চালিয়ে আসামিদের গ্রেপ্তার করেন।

আসামিরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, ধৃত ও পলাতক আসামীগণ একটি সংঘবদ্ধ কথিত চরমপন্থী সংগঠন নিউ বিপ্লবী কমিউনিস্ট পার্টির সক্রিয় সদস্য। তারা পরস্পর যোগসাজসে তাদের দলীয় ছদ্মনাম ব্যবহার করে দেশের দক্ষিন পশ্চিমাঞ্চলের জেলা গুলোতে তাদের হেফাজতে থাকা অবৈধ অস্ত্রগুলি, বিস্ফোরকদ্রব্য ইত্যাদি ব্যবহার করে হত্যা, চাঁদাবাজি করে থাকে।

তাদের মধ্যে অনেকেই ইতিপূর্বে বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশে আত্মসমর্পণ করে পুনরায় তারা সংঘবদ্ধ হয়ে নতুন সদস্য সংগ্রহ করে। এবং নতুনভাবে দল গঠন করে দীর্ঘদিন যাবৎ যশোর জেলার অভয়নগর, মনিরামপুর, কেশবপুরসহ আশপাশের বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন মাছের ঘের দখল, চাঁদাবাজি ও হত্যাকান্ড ঘটিয়ে আসছিলো ।

উল্লেখ্য,গত ১০ই জানুয়ারি সন্ধ্যা রাতে দুর্বৃত্তরা যশোরের অভয়নগর উপজেলার সুন্দলী গ্রামের হরিশপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে সুন্দলী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য উত্তম কুমারকে নির্মমভাবে গুলি করে হত্যা করে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

হত্যাকান্ডের পরদিন মঙ্গলবার দুপুরে উত্তম কুমারের পরিবারের লোকজন অভয়নগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার সূত্র ধরেই আসামিদের অনুসন্ধানে নামে যশোর গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা।

যশোর গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ রুপণ কুমার সরকারের নেতৃত্বে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শেখ শাহিনুর রহমান, এসআই শামীম হোসেন ও এসআই মফিজুল ইসলামের একটা চৌকস টিম যশোর জেলার মনিরামপুর কেশবপুর ও খুলনা জেলার ডুমুরিয়া উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ইউপি সদস্য হত্যার সাথে জড়িত আসামিদের গ্রেপ্তার করেন।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল