যশোর আজ সোমবার , ২৫ অক্টোবর ২০২১ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. জবস
  7. জাতীয়
  8. প্রবাস
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

অভয়নগরে তমা হত্যাকান্ডের বিচার চেয়ে মানববন্ধন

প্রতিবেদক
Jashore Post
অক্টোবর ২৫, ২০২১ ৯:০৪ অপরাহ্ণ
অভয়নগরে তমা হত্যাকান্ডের বিচার চেয়ে মানববন্ধন
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

বিশেষ প্রতিবেদক :: যশোরের অভয়নগর উপজেলায় সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা সুমাইয়া আক্তার তমা হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে গ্রামবাসী। সোমবার সকাল ১১টায় উপজেলার চলিশিয়া ইউনিয়ন পরিষদচত্ত্বরে এ দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন,তমার মা নাসিমা বেগম, পিতা জলিল শেখ,স্থানীয় ইউপি সদস্য তুহিন শেখ,কামাল শেখ,সাবেক মেম্বর ( সংরক্ষিত ) রাফেজা বেগম, ওয়ার্ড আ.লীগ নেতা হাবিবুর রহমান, আবুল বাশার ও কোটা গ্রামের শতাধিক নারী পুরুষ । এ সময় তমাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে দাবি জানিয়ে হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন নিহত তমার পিতা আব্দুল জলিল শেখ ও মাতা নাসিমা বেগম । জলিল শেখ বলেন, উপজেলার কাদিরপাড়া গ্রামের মিজানুর রহমান শেখের ছেলে রিয়াজুল ইসলাম শেখ সুজনের সাথে ২০২০ সালের ৩০জুন তমার বিবাহ হয়। মাত্র ছয়দিনপর সুজন তালাকের নোটিশ পাঠায়। ওই মাসের ১০ তারিখ প্রশাসনের সহযোগিতায় পুনরায় তাদের বিবাহ সম্পন্ন হয়।

এরপর থেকে সুজন, সুজনের মা কুমকুম বেগম, ও তমার ননদ রুনা খাতুন যৌতুকের দাবিতে তমার ওপর শারীরিক ও মানুষিক নির্যাতন চালাত। এরপর ছয়মাস উপজেলার হাসপাতাল রোডের ওয়াপদামোড়ে তারা বাসাভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করে। তমা ইতিমধ্যে ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। কিন্তু সেখানেও চাচাত ভাই রুবেল শেখ ও মায়ের মদদে সুজন তমার উপর নির্যাতন শুরু করে।

গত ঈদের আগে কুমকুম বেগম ও রুনা খাতুন ভাড়া বাড়িতে গিয়ে তমার কাছে ঈদ খরচ বাবদ বাপের বাড়ি থেকে দশ হাজার টাকা আনতে বলে। টাকা না দেওয়ায় গত ১৮ জুলাই রাত বারটার দিকে তমাকে হত্যা করে আত্মহত্যার নাটক সাজিয়ে উপজেলা স্বাস্থকমপ্লেক্সে নিয়ে ফেলে রেখে সুজন সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় অভয়নগর থানায় ‘আত্মহত্যার প্ররোচণায়’ সুজনকে আসামি করে মামলা রেকর্ড হয়েছে। হত্যার তিনমাস গড়িয়ে গেলেও পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করেনি বলে আরো জানান।

জানা গেছে,গত ১৮ জুলাই রাত ১২টার দিকে উপজেলার হাসপাতাল রোডের বাসাবাড়িতে সিলিংফ্যানের সাথে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় তমাকে ঝুঁলতে দেখে তার স্বামী রিয়াজুল ইসলাম সুজন প্রতিবেশিদের ডেকে মরদেহটি নামিয়ে হাসপাতালে রেখে সেখান থেকে সে পালিয়ে যান।

এ ঘটনায় তমাকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে উল্লেখ করে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান,মানববন্ধনে অংশ নেওয়া কোটা গ্রামবাসী।

সর্বশেষ - সারাদেশ