যশোর আজ শুক্রবার , ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

অচেনা ভালোবাসা পর্ব-১

প্রতিবেদক
Jashore Post
এপ্রিল ১৯, ২০২৪ ১১:৪৬ অপরাহ্ণ
অচেনা ভালোবাসা পর্ব-৪
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

মাহমুদুল

বয়স আঠারো ছুঁই ছুঁই। মাধ্যমিকের গন্ডি তখনো পার হয়নি।মেধাবী ও চট্পটে স্বভাবের। মায়াবী মুখ ও সাবলীল ভাষায় অভ্যস্ত এক সরল মনা মানুষ।স্যেশাল প্লাটফর্মের বদৌলতে পরিচয় আমাদের।বিধাতার দেওয়া উপহার হিসাবে বললেই চলে। মাঝ বয়সী আমি বরাবরই কৌতুহলী,ইট-পাথরের শহরের নিয়মতান্ত্রিক জীবন যাপনের ঘোর বিরোধী হলেও সংসার জীবন সামলাতে গিয়ে নিরুপায়।

জগতের আরো দুই চারজনের মতই শৈশব,কৈশর কাটিয়ে তরতাজা যুবক হয়ে সংসার জীবনের ঘানি টেনে চলছি।নিজেকে কখনো পরখ করে দেখার সুযোগ মেলেনি,প্রযুক্তির ছোঁয়াও মেলেনি কৈশর জীবনে। জীবন চলার পথে হঠাৎই পরিচয় গল্পের সেই মূল চরিত্রের সাথে,আর সে থেকেই ঘুরে গেলো আমার জীবনের মোড়।

গল্প লেখার শুরুতেই মূল চরিত্রের ছদ্মনাম দিলাম পাখি,কেননা বাবুই পাখির প্রতি বরাবরই আকৃষ্ট আমি।শৈল্পিক গুনে বাবুই পাখি যেমন অতুলনীয় তেমনী করে এই গল্পের বাবুই পাখিও অন্যনা। স্পষ্টভাষী,সত্যবাদীতা তার চারিত্রিক মহৎগুন। হয়তো এ গুনের প্রতি আকৃষ্ট হয়েই পরিচয় পরবর্তী আমাদের পথচলা শুরু।

বর্তমান সময়ে প্রযুক্তির সেরা উপহার মুঠোফোন,আগের ভালোবাসার যুগুলদের মধ্যে দুরুত্ব ও যোগাযোগের ঘাটতি থাকায় এক প্রকার অধরা বিরহ কাজ করলেও মুঠোফোনের বদৌলতে এখন তা অনেকটাই সহিষ্নু।পরিচয়ের পর হতেই মাঝে মধ্যে কথা হতো দুজনের।

সোশ্যাল প্লাটপর্মে অনেকখানি পরিচিত সে,স্বাভাবিক নিয়মেই হয়তো পাখি কথা বলতো।পড়াশোনা জীবনে সময় বের করা কঠিন হলেও নিজের অবসাদ কাটাতে প্রতিদিনই খানিকটা সময় মুঠোফোনে দিতো।এরমাঝে কোন কোন দিন কথা হতো তার সাথে,তবে কথা বললে আমার একটা মানসিক তৃপ্তি মিলতো।

অল্পবয়সে তার জ্ঞানগর্ভ কথাবার্তায় মুগ্ধ হতাম,অল্পবয়সে সে জীবনের বাস্তবতা উপলব্ধি করতো। হাস্যরসের কথাবার্তার বীপরীতে অজানাকে জানার আলাপচারিতায় সময় গড়াতো আমাদের। তখনো ভালোবাসা কি বুঝিনি? অপ্রাসঙ্গিক কর্থাবার্তা তার একদমই পছন্দ না। খাবারের ভিতর পছন্দ করতো বিরিয়ানি ও চকলেট। নিজেকে সে বিরিয়ানি লাভার বলে পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দবোধ করতো।

কথা প্রসজ্ঞে একদিন সে বিরিয়ানি খেতে চাইলো তাও বছর পাঁচেক আগের কথা বলছি। মুঠো ফোনে আমিও রাজি হলাম বিরিয়ানি খাওয়াতে কিন্তু দিন-ক্ষন নির্ধারন হলোনা।দুজনের অবস্থানের দুরুত্বও ২শো কিলোমিটারের কাছে।এত লম্বা পথ আবার মা-বাবার শাসন বাঁধা জীবন যাপন তার এজন্য হুট করে তো ইচ্ছে পূরন সম্ভব নই।

অপরিচিত মানুষ হলেও এপসের কল্যানে দুজনে-দুজনার মুখ দেখা হয়েছে তবুও সংশয় থেকেই যাই। যাহোক সময়ের সাথে কথা গড়াতে লাগলো,নিয়মিত না হলেও শুরুতে সপ্তাহে বা মাসে ৩/৪বার কথা হতো। অনেক সময় কথায় বাধ সাধতো তার প্রাইভেট টিউটর।

স্যার এলেই বলতো টিচার এসছে রাখি,আপনি সন্মোধনেই সে অভ্যস্ত। আলাপচারিতার মাঝে একদিন তার কন্ঠে গান শুনলাম,সে থেকে তার অপেশাদার কন্ঠের প্রতি আকৃষ্ট হলাম। আমার কাছে বরাবরই শ্রুতিমধুর লেগেছে। সময় যত গড়াচ্ছে তারপ্রতি জানার কৌতুহল আমার বাড়ছে। এরমধ্যে হয়তো দুজনের মধ্যে একটা আত্নবিশ্বাসের সেতু তৈরী হয়েছে যদিও তখনো আমরা একে অপরের ব্যাক্তিগত জীবন শেয়ার করিনি। ক্রমশ্য আমি দূর্বল হয়ে পড়ছি,কেননা ভালোবাসা শব্দটি জানলেও বা মুখে উচ্চারিত হলেও আমার এর মর্মতা বা গভীরতা উপলব্ধি করা হয়নি।

মহান সৃষ্টিকর্তা মানুষকে ক্ষনস্থায়ী জীবন দিয়ে পৃথিবীতে পাঠিয়ে প্রকৃতি ও তার রুপ,রং গন্ধ সবই উপভোগ করতে দিয়েছেন। ভালো-মন্দ,বিধি-নিষেধ সব শিখিয়ে পরীক্ষা নিচ্ছেন।পৃথিবীতে যে যেমন কর্ম করবে পরকালে সে তেমন ফল ভোগ করবে। প্রত্যেক মানুষের জীবদ্দশা কয়েকটি ধাপে বিভক্ত। আমিও তার ব্যাতিক্রম নই,প্রকৃতির রুপ বৈচিত্র্য হয়তো আমার উপযুক্ত বয়সে দেখা হয় নাই। ভাবুক মন জাগ্রত হলো,চিন্তা-চেতনার শাখা প্রশাখা গুলো সঞ্চারিত হলো।

সময়ের সন্ধিক্ষনে এক সময় মুঠো ফোনে কথা চলতে চলতেই হঠাৎ করেই সিদ্ধান্ত হলো দুজনের মুখো-মুখি হওয়ার।আমিও পুলকিত হলাম এ আনন্দে বিরিয়ানি লাভারের বিরিয়ানি খাওয়াতে পারবো।বরাবরই আমি ভ্রমণ পিপাসু তাই সময়ক্ষেপন না করে গন্তব্যে ছুটলাম। একবুক আশা মানুষটাকে সামনে হতে দেখবো ও স্পর্শ করবো।

কপালে চিন্তার ভাঁজ একেবারেই ছিলোনা কেননা যতদূর তাকে চিনেছি, সে আমার মত দেওয়া কথা রাখে। পথটা অনেক দূরের,বাসে চেপে যাচ্ছি কিছুতেই সময় কাটছেনা। উৎসুক মন ও চোখ যেন তর সইছে না। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে তো লাভ নেই প্রায় ৫ ঘন্টা জার্নি শেষে  প্রতিক্ষার কল আসলো মুঠো ফোনে।

কোথায় আপনি? বললাম ফিলিং স্টেশনের ভিতর। বললো আমি ফিলিং স্টেশনের সামনে রাস্তায় দাড়িয়ে আছি।দূর হতে কালো পোশাকে স্বজ্জিত এক মানুষকে দেখে আমি ধারনা করলাম এই হবে পাখি। রিতিমত কাছে গেলাম,ধারনা বাস্তবে রুপ দিলো। মৃদুস্বরে বললো কোথায় যাবেন,বললাম লম্বা ভ্রমণে বের হবো।বললো চলেন-কথামত আবারো বাসে চেপে বসলাম আনুমানিক ৪ ঘন্টার কাছের রাস্তা।

পাশাপাশি সিটে বসা কিভাবে শুরু করবো বুঝতে পারছিনা,কেমন সব অস্পষ্ট লাগছে। এতদিনে এতটুকু আমার বুঝ এসেছে আমি ওকে প্রচন্ড মিছ করি ও একপ্রকার টান হয়েছে ওর প্রতি। বাস আনুমানিক এক ঘন্টা চলার পর সাহস করে ওর হাতটা ধরলাম,ওর লম্বা নখ গুলো  দেখতে লাগলাম। পাখি অস্বস্তিবোধ না করাতে সাহস বাড়লো এবং হাতের স্পর্শে জার্নিটা সুখকর হতে লাগলো। কেননা এর মধ্যে আমাদের মধ্যে কিছুটা আস্থা-ভরসার জাগা বা মিষ্টি বন্ধুত্ব তৈরী হয়েছিলো।

সে তার হেডফোনের একটা স্পিকার আমার কানে গুজে দিলো। দুজনেই গান শুনতে পছন্দকরি আর মেমেরী ভর্তি বাছাই করা গান যা লম্বা সময় ধরেই হাত ধরে শুনতে লাগলাম। মাঝে মধ্যে দু একটি কথা হচ্ছে। তারপরিবারের চিন্তাও করছি তাপরও দুজনেই নির্ভিক মনে ছুটছি গন্তব্য পথে।অপরিচিত জায়গা দুজনেরই,কয়েক ঘন্টাপর রাত্রি হবে তবে কোন চিন্তাই নেই আমাদের।কেননা পুর্বেই সিদ্ধান্ত হয়েছে ঘোরাফেরা ও গল্পকরে সময় কাটবে আর ফেরা না গেলে নিরাপদ স্থানে রাত্রি যাপন হবে।

যথারিতী সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসলো ও গন্তব্য স্থানে পৌঁছালাম। আলো ঝলমলে শহরে এক রিকশা চালকের সহযোগীতায় পেলাম রাত্রি যাপনের নিরাপদ স্থান। দুজনেই রুমে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে বেরিয়ে পড়লাম শহর ঘুরতে। প্রথমেই বিরিয়ানি লাভারকে অফার করলাম সেও খেতে বসলো। খেতে খেতেই বললো তার শহরের বিরিয়ানি ভালো সে বিষয়ে তখন আমার ধারনা না থাকলেও পরবর্তী সময়ে তার শহরের বিরিয়ানী খেয়ে আমি এখনো অকপটে স্বীকার করি সত্যই তার শহরের বিরিয়ানী অতীব সুস্বাদু।

আমার টানা ৯ ঘন্টা ও তার টানা ৪ ঘন্টা জার্নি তাই রাতের আলোয় একটু শহর হেটে,মুঠোফোনে কিছু ছবি ধারন করে ও একটু লাল চা পানের মধ্য দিয়ে ঘোরাঘুরী শেষ করে রুমে ফিরলাম কেননা দুজনেই ক্লান্ত।ফেরার আগে কিছু ফাস্টফুড, পানি ও দই এর খুরি নিলাম। মাঝরাতে একফাঁকে নিজ হাতে তার মুখে তুলে দই খাওয়ালাম।

ঘরে ঢুকে ফ্রেশ হয়ে বিছানায় শুয়ে পড়লাম ও তাকে গল্প করার আহবান জানালাম।লাজুক মনের পর্দা শরিয়ে আকস্মিক তার মুখে চুমু দিলাম,আমার তরফ হতে সেটা ভালোবাসার চুমু হলেও তখন সে নিছক ভদ্রতার খাতিরে কিছু বলেনী বলে কিছু সময় পর বুঝতে পারলাম। লম্বা জার্নির সময় যতটা না তাকে চিনতে পেরেছি ইট-পাথরের শহরে চারদেওয়ালে আবদ্ধতার মধ্যেও তাকে আরো বেশী করে চিনলাম।সে আমার কাছে আজও পবিত্রতার দেবী।

দুজনের গল্পের মাঝে সে আমাকে জানালে সে একজনকে  ভালোবাসে।একথা নিজে কানে শোনার পর বজ্রাঘাতের ন্যায় আমার কোমল মনে কষ্টের ঝটকা লাগলো। মুহুর্তের মধ্যে আমার কাছে সুখকর ভ্রমণ বিশাদময় হয়ে ওঠলো,কোন ভাবেই স্বস্তি পাচ্ছিনা। কখন রাত পোহাবে আর আমি ফিরবো আমার ভূবনে। রাতও দীর্ঘ কিছুতেই সময় পার হচ্ছেনা,দুজন দুই বিছানাই শুয়ে আছি।একটা সময় তার কাছে শুয়ে গল্প করছিলাম ও তার হাতে অগনিত চুম্বন করেছিলাম।ভালোবাসার কথা জানতেই দুজন পৃথক।

বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় মনে আশা না জাগলেও তাকে সামনে হতে দেখার পর ও একসাথে হাত ধরে দীর্ঘ যাত্রার সময় মনে বাসনা জাগলো যে রাতে পাখিকে বলবো তাকে আমি ভালোবেসে ফেলেছি। হয়তো সে কিছুটা আঁচ করতে পেরেই আমার মুখ দিয়ে ব্যাক্ত করার আগেই আমাকে থামিয়ে দিয়েছিলো।

মন ভাঙ্গার কষ্ঠ বা ভালবাসার গবীরতা তখনো আমি পুরোপুরি বুঝিনি তাই আমিও তাকে ভালোবাসি সে কথা আর বলিনি তাকে। হয়তো আমার চেহারার কষ্টের ছাঁপ দেখে ভদ্রতার খাতিরে রাতটা পার করার জন্য ইচ্ছের বিরুদ্ধে সে গল্প করেছে।নির্ঘুম রাত কাটলো দুজনের গল্পে পারিবারিক ছাড়াও ব্যাক্তিগত জীবনের কিছু কথা আলোচনায় ওঠলো। ভোর হতেই নিজ নিজ গৃহে ফেরার জন্য তাড়াহুড়ো শুরু করলাম।

যাওয়ার সময় যতটা আনন্দঘন সময় উপভোগ করেছিলাম তার ভালোবাসার মানুষের কথা জানার পর দ্বিগুন বিষাদময় সময় কাটছিলো আমার কাছে।সে সবটুকু বুঝতে পেরে তখন আমাকে কিছু না বললেও এখন নিয়মিত কথা শোনায়।সে দিন সকালে আমি তাকে নাস্তা খেতে দিইনি। সময় ঘনিয়ে আসলো মাঝপথে তাকে বাস হতে নামিয়ে দিলাম কোন প্রকার পিছুটান ছাড়াই। ক্ষনিকের জন্য ভালোবাসার কথা প্রকাশ না করতে পারার ব্যাথা আমাকে পীড়া দিলেও পরদিন স্বাভাবিক ছিলাম।

বিধাতার কাছে প্রার্থনা জানিয়ে বলেছিলাম আমি পাখিকে ভালোবাসি। তাকে আমার জীবনে মিলিয়ে দিক।পাখি বাসায় ফেরার পর সভাবসুলভ কথা হতো। তখনো আমি মনের আকুতি তাকে বলিনি,তবে তাকে প্রচন্ড মিছ করি এটা জানিয়েছি।আকস্মিক দুজনের কথা বলা বন্ধ হয়ে গেলো তা কয়েক মাস পেরেলো।বিধাতার ইশারায় হয়তো বা আবারো কথা শুরু হলো পাখির সাথে।এবারের শুরু হওয়া কথা এত লম্বা হলো যে,গল্প ছাপিয়ে উপন্যাস সৃষ্টি হতে চললো-

বিঃদ্রঃ  লেখাটি সম্পূর্ন লেখকের নিজিস্বি চিন্তা ও মতামত। কোন প্রকার ভূল ত্রুটির জন্য প্রকাশক দায়ী নহে।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল