যশোর আজ বুধবার , ১০ জুলাই ২০২৪ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমাদের যশোর
  5. খেলা
  6. গল্প
  7. জবস
  8. জাতীয়
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. রান্না
  14. রূপচর্চা
  15. লাইফস্টাইল

বেনাপোল স্থলবন্দরের অব্যবস্থাপনায় আবারো অগ্নিকান্ডে ক্ষয়-ক্ষতির শঙ্কায় ব্যবসায়ীরা

প্রতিবেদক
Jashore Post
জুলাই ১০, ২০২৪ ১২:১২ অপরাহ্ণ
বেনাপোল স্থলবন্দরের অব্যবস্থাপনায় আবারো অগ্নিকান্ডে ক্ষয়-ক্ষতির শঙ্কায় ব্যবসায়ীরা
সর্বশেষ খবর যশোর পোস্টের গুগল নিউজ চ্যানেলে।

মাহমুদুল হাসান :: বাংলাদেশের বৃহৎস্থলবন্দর বেনাপোল বন্দরে কৃর্তৃপক্ষের অনিয়ম ও অব্যবস্থপনা নিয়ে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ব্যবসায়ীসহ( আমদানীকারক ) সহ বন্দর সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়িক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। বন্দরটিতে দ্রুত পরিচালক নিয়োগের দাবী জানিয়েছেন তারা।

গতকাল ( ৯জুলাই  )বেনাপোল স্থলবন্দরের ১৭ নং পণ্যগার হতে ফেব্রিক্স বোঝাই করা ( ঢাকা মেট্রো ট-১৬-৯৫৭৭ ) ট্রাকে আকস্মিক আগুন ধরে গেলে বন্দর কর্তৃপক্ষের অবহেলা ও ব্যার্থতার স্বচিত্র বেরিয়ে আসে। আধুনিক অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রাংশের বীপরীতে মান্ধাতা পদ্ধতিতে বালতি দিয়ে পানি মেরে আগুন নেভাতে দেখা যায়। এ ঘটনায় ফুঁসে ওঠেছে ব্যবসায়ীক সংগঠন গুলো।

স্থলবন্দরটিতে কর্মরত লেবার,চালক ও বহিরাগত কিছু লোকজনের সাহসিকতায় ট্রাকের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনলে বড় ধরনের ক্ষয়-ক্ষতির হাত হতে রক্ষা পায় এ যাত্রা।গতকালের অগ্নিকান্ডের ঘটনায় বেনাপোল স্থলবন্দরের অগ্নিনির্বাপক কার্যক্রম জনমনে প্রশ্নবিদ্ধ?।বছরের পর বছর ধরে স্থলবন্দরটির অগ্নিনির্বাপক খাতে ব্যায় বরাদ্দ কোথায় যায় এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সচেতন মহলে।

আগুন ধরে যাওয়া যানবাহটির চালক মিলন জানান,পণ্য বোঝাই করে বেনাপোল স্থলবন্দরের অভ্যান্তরে গেট পাশের জন্য অপেক্ষারত অবস্থায় আকস্মিক তার গাড়িতে আগুন ধরে যায়। আগুনের লেলিহান শিখা দেখে তিনি লাফ দিয়ে গাড়ি থেকে নেমে ডাক চিৎকার শুরু করলে বন্দরের লেবার,চালক ও হেলপার মিলে আগুন নেভানোর চেষ্ঠা শুরু করে। এ সময় বন্দরের ফায়ার সার্ভিসে কর্মরত কাউকে পাওয়া যায়নী এমনকি পানির সঙ্কটে বড় ধরনের ক্ষয়-ক্ষতির ঝুঁকিতে পড়তে হয় বলে তিনি আরো জানান।

অগ্নিকান্ড ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সাহেব আলী,বন্দরে কর্মরত জামাল,কাদের ও দায়িত্বরত পিমা সদস্য কবিরের সাথে কথা বলে বেনাপোল স্থলবন্দরে কর্মরত ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের অনউপস্থিতি ও অবহেলার সত্যতা পাওয়া যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক আমদানিকারক জানান,বিগত দিনে বন্দরকর্তৃপক্ষের অবহেলায় বেনাপোল বন্দরের পণ্যগারে অগ্নিকান্ডের ঘটনাগুলোতে আমরা কোটি কোটি টাকা লোকসান খেয়েছি। আজও পর্যন্ত কোন ডেমারেজ পাইনি এমনকি অগ্নিকান্ড ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত হয়নি।বেনাপোল স্থলবন্দরের কর্মকর্তারা দূর্নীতিতে জড়িয়ে নিজেদের আখের গোছাতে হরিলুটে ব্যস্ত যা সুষ্ঠু তদন্তে বেরিয়ে আসবে।

বেনাপোল স্থলবন্দরের অন্যতম বৃহৎ ব্যবসায়িক সংগঠন বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক আজিম উদ্দিন গাজী প্রতিনিধিকে জানাই,বর্তমানে বেনাপোল স্থলবন্দরে আমদানিকারক,যানবাহন মালিক,কর্মরত লেবার শ্রমিক কেহই নিরাপদ না।গতকাল গাড়িটিতে আগুন ধরার পর লেবার,চালকসহ অনেকে ডাক চিৎকার করে ফায়ারের কোন লোক পাইনি বলে আমিও অভিযোগ পেয়েছি।

ইতিপূর্বেও বন্দর কর্তৃপক্ষের অবহেলা ও উদাসীন আচরনে বন্দরে আগুন ধরে শত শত কোটি টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে। কোন ব্যবসায়ী আজও পর্যন্ত ক্ষতিপূরন পাইনী। কালকের এই অগ্নিকান্ডের ঘটনায় বন্দরকর্তৃপক্ষের উদাসিনতা দেখে আমি আশঙ্কা করছি এ ভাবে চলতে থাকলে আবারো অগ্নিকান্ডে বড়ধরনের ক্ষয়-ক্ষতির সন্মুখীন হতে হবে ব্যবসায়ীদের। এহেন কান্ডে তিনি সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি আমলে নিয়ে দ্রুত প্রশাসনিক পদক্ষেপ গ্রহণের দাবী জানান।

অভিযোগ বিষয়ে জানতে বেনাপোল স্থলবন্দরের ফায়ার পরিদর্শক শাহিনুর রহমানের মুঠো ফোনে কথা বললে তিনি জানান,অগ্নিকান্ডের সময় তিনি বন্দরে ছিলেন না যশোরে অবস্থান করছিলেন। যশোর থেকে ফিরে তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। অগ্নিকান্ডের সময় তাদের সদস্য ছিলোনা এমন অভিযোগ সত্য নই। জনবল সংকটের সত্যতা স্বীকারকরে তিনি আরো জানান মোট ৬জন সদস্য ফায়ার স্টেশনের দায়িত্বে কর্মরত আছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া গতকালের বেনাপোল স্থলবন্দরের অভ্যান্তরে পণ্যবাহী ট্রাকের অগ্নিকান্ডের ভিডিও ফুটেজ পর্যালোচনা করলে বেনাপোল বন্দর কর্তৃপক্ষের অব্যবস্থপনা,অবহেলা ও উদাসীনতা প্রতীয়মান হয়। সেখানে কেবলই লেবার ও গাড়ীর ড্রাইবার হেলপার দের আগুন নেভাতে দেখা যায়। বিষয়টি জানতে বেনাপোল বন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক রেজাউল করিমের সাথে যোগাযোগের চেষ্ঠা চালালে সাক্ষাৎ না মেলা ও কল না ধরায় বক্তব্য জানা যাইনী।

বেনাপোল স্থলবন্দরের অগ্নিকান্ডের ঘটনার সংক্ষিপ্ত এক পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, ১ যুগের বেশী সময় ধরে ১৩ বারের বেশী অগ্নিকান্ড সংঘটিত হয়েছে। উল্লেখযোগ্য ২০২২সালে, ২০২১সালে,২০১৯সালে ( ৭ই জুন ও ২৭ আগস্ট ) দুইবার, ২০১৮সালে, ২০০৯সালে, ২০০৫সালে, ২০০১সালে ও ১৯৯৬সালে বড় ধরনের অগ্নিকান্ড সংগঠিত হয়ে শত শত কোটি টাকা ক্ষয়-ক্ষতি সাধিত হয়েছে। বেনাপোল স্থলবন্দরে অগ্নিকান্ডে এত বড় ক্ষয়-ক্ষতির পরেও কেন অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থার আধুনিকায়ন করা হয়নি এমন প্রশ্ন এখন জনমনে।

প্রসঙ্গত বেনাপোল স্থলবন্দরের পরিচালক পদ প্রায় ১ বছর ধরে শূন্য রয়েছে। বন্দরটির উপপরিচালক রেজাউল করিম বর্তমানে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসাবে ভারপ্রাপ্ত পরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন। এতে করে চরম অব্যবস্থাপনা ও অনিয়মে ধুঁকছে বেনাপোল স্থলবন্দরের কার্যক্রম।কোন অশুভ শক্তির ইশারায় চলছে বেনাপোল স্থলবন্দর এবং অনাকাঙ্খিত এ ক্ষয়-ক্ষতির দায় কার তা বোধগম্য নই।

মালামাল লোড আনলোডে পর্যাপ্ত ইকুপমেন্টের স্বল্পতা,বন্দরে চাঁদাবাজি,ফায়ার স্টেশনে লোকবল সংকট,বহিরাগত লোক দ্বারা পন্যগার নিয়ন্ত্রণ করানোর মত গুরুতর অভিযোগে দুষ্ট বন্দরকর্তৃপক্ষ। বন্দরের খোদ ভারপ্রাপ্ত পরিচালক রেজাউল করিম দুদকে দূর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত বলে একাধিক পত্র-পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হয়েছে।

বন্দরের অনিয়ম-অব্যবস্থপনা নিয়ে একাধিক প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ায় খবর প্রকাশিত হলেও টনক নড়েনি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের। তবে কি?চেয়ার আঁকড়ে রাখার বাসনায় ভারপ্রাপ্ত পরিচালকের স্বেচ্ছাচারিতায় বেনাপোল স্থলবন্দরের আধুনিকায়নসহ চলমান কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছেেএমন অভিমত এলাকার সুধী মহলের।

সর্বশেষ - লাইফস্টাইল